ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট জানুয়ারি ১১, ২০১৫

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ৩ কার্তিক, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ১৮ সফর, ১৪৪১

জাতীয়, সিলেট অবশেষে সিসিক মেয়রের চেয়ার সালেহ: মেনে নিলেন লোদী

অবশেষে সিসিক মেয়রের চেয়ার সালেহ: মেনে নিলেন লোদী

অ্যাডভোকেট সালেহ আহমদ ও রেজাউল হাসান কয়েস লোদী

অ্যাডভোকেট সালেহ আহমদ ও রেজাউল হাসান কয়েস লোদী

সিলেট, ১১ জানুয়ারি ২০১৫, নিরাপদনিউজ: নানা নাটকীয়তার পর অবশেষে সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) ভারপ্রাপ্ত মেয়রের চেয়ার প্যানেল মেয়র-২ অ্যাডভোকেট সালেহ আহমদের দখলেই থাকল। মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন জারির পরও ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব পাননি প্যানেল মেয়র-১ রেজাউল হাসান কয়েস লোদী।
নগরভবনে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীবের কার্যালয়ে কয়েস লোদী ও সালেহ আহমদ সমর্থক কাউন্সিলরদের মাঝে প্রায় আড়াইঘণ্টা রুদ্ধদ্বার বৈঠক শেষে ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবে প্যানেল মেয়র-২ সালেহ আহমদকে দায়িত্ব দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।
বৈঠক শেষে প্যানেল মেয়র-২ সালেহ আহমদ জানান, বৈঠকে সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত হয়েছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের আইনানুযায়ী ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব বুঝিয়ে দেয়ার এখতিয়ার সাময়িকভাবে বরখাস্তকৃত মেয়রের। তাই সিটি করপোরেশন থেকে কাগজপত্র আরিফুল হক চৌধুরীর কাছে পাঠানো হবে। কারান্তরীণ মেয়র আরিফ যাকে দায়িত্ব দেবেন তিনিই দায়িত্ব পালন করবেন।
৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ফরহাদ চৌধুরী শামীম বলেন, আরিফুল হক চৌধুরী ভারপ্রাপ্ত মেয়র নিয়োগ না দেয়া পর্যন্ত প্যানেল মেয়র-২ সালেহ আহমদই দায়িত্ব পালন করবেন।
প্যানেল মেয়র-১ রেজাউল হাসান কয়েস লোদী বলেন, আরিফুল হক চৌধুরী সিটি করপোরেশনের নির্বাচিত মেয়র। বাকি সবাই কাউন্সিলর। এর মধ্য থেকে তিনজনকে প্যানেল মেয়র নির্বাচিত করা হয়েছে। প্যানেল মেয়র নিয়ে কাউন্সিলরদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছিল, বৈঠকের মাধ্যমে তা সমাধান হয়েছে। এখন আরিফুল হক চৌধুরী যাকে দায়িত্ব দেবেন তিনিই ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব পালন করবেন।
এদিকে সিসিক’র নির্বাচিত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে সাময়িক বরখাস্ত করে প্যানেল মেয়র-১ রেজাউল হাসান কয়েস লোদীকে ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব দেয় মন্ত্রণালয়। কিন্তু রোববার সকালে প্যানেল মেয়র-২ সালেহ আহমদ নিজেকে ভারপ্রাপ্ত মেয়র দাবি করে মেয়রের চেয়ারে বসেন।
প্যানেল মেয়র-১ রেজাউল হাসান কয়েস লোদী নগরভবনে এলে তাকে মেয়রের কার্যালয়ে ঢুকতে দেননি সালেহ সমর্থকরা। পরে এ নিয়ে উভয়পক্ষ প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে বৈঠকে বসেন।
উল্লেখ্য, সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলায় মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বর্তমানে কারান্তরীণ রয়েছেন। তাকে বরখাস্ত করে বুধবার সন্ধ্যায় স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সহকারী সচিব সরোজ কুমার নাথ স্বাক্ষরিত আদেশ কপি সিলেট সিটি করপোরেশনে পৌঁছায়। আদেশে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত ও প্যানেল মেয়র-১ কে দায়িত্ব গ্রহণের জন্য বলা হয়।
গত ২১ ডিসেম্বর সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলায় মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে অভিযুক্ত করে হবিগঞ্জে আদালতে সম্পূরক চার্জশিট দেন সিআইডির সিনিয়র এসএপি মেহরুন্নেছা পারুল। ৩০ ডিসেম্বর আদালতে আত্মসমর্পন করে জামিন চাইলে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়।-বাংলামেইল

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)