আপডেট ডিসেম্বর ১, ২০১৪

ঢাকা মঙ্গলবার, ১ শ্রাবণ, ১৪২৬ , বর্ষাকাল, ১২ জিলক্বদ, ১৪৪০

ক্রিকেট অভিষেক ম্যাচেই হ্যাটট্রিক করার রেকর্ড তাইজুলের

অভিষেক ম্যাচেই হ্যাটট্রিক করার রেকর্ড তাইজুলের

তাইজুল ইসলাম

তাইজুল ইসলাম

ঢাকা, ০১ ডিসেম্বর, নিরাপদনিউজ : অভিষেকেই রেকর্ড বইয়ের পাতায় ঢুকে গেলেন বাংলাদেশের তরুণ স্পিনার তাইজুল। আর রেকর্ড বইয়ের এ পাতায় তিনি একাই রাজত্ব করছেন। কারণ অভিষেক ম্যাচেই হ্যাটট্রিক করার রেকর্ড এর আগে কারোরই ছিল না। বাংলাদেশের তরুণ স্পিনার তাইজুল ইসলামের রেকর্ড তাই সারা বিশ্বে অনন্য।
সফরকারী জিম্বাবুয়ে দলের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচে মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে এই কীর্তি গড়লেন তাইজুল।
সোমবার জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের পঞ্চম ম্যাচে দেশের ১১৬তম ক্রিকেটার হিসেবে ওয়ানডে অভিষেক হয় তাইজুলের। এরপর ম্যাচের ১১তম ওভারে বল হাতে নেন ২২ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার।
প্রথম স্পেলে কোনো উইকেট না পেলেও নিজের জাত চেনাতে বেশি সময় নেননি নাটোরের ছেলে তাইজুল। দ্বিতীয় স্পেলের প্রথম ওভারের এক নম্বর ও ছয় নম্বর বলে উইকেট তুলে নেন তিনি। এর পরের ওভারের প্রথম দুই বলে দুটি উইকেট তুলে নিয়ে হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন তাইজুল।
ইনিংসের ২৭তম শেষ বলে তিনাশে পানিয়াঙ্গারাকে বোল্ড করেন তিনি। তখনো হয়তো হ্যাটট্রিকের ভাবনা তার ছিল না। কিন্তু ২৯তম ওভারের প্রথম দুই বলে নিয়াম্বু ও চাতারাকে ফিরিয়ে দিয়ে অভিষেক ম্যাচেই হ্যাটট্রিক এর অনন্য রেকর্ড করেন তাইজুল। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আর কেউই এমন রেকর্ডের অধিকারী হতে পারেননি।
এছাড়া বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের চতুর্থ ক্রিকেটার হিসেবে হ্যাটট্রিক করলেন তাইজুল ইসলাম। অন্যদিকে ওয়ানডে ক্রিকেটে বিশ্বের ৩৬তম হ্যাটট্রিক শিকারি হলেন তাইজুল।
জিম্বাবুয়ের ইনিংস শেষে তাইজুলের বোলিং ফিগার ছিলো ০৭-০২-১১-৪।
অর্থাৎ ৭ ওভার বল করে ২ মেডেনসহ মাত্র ১১ রানের বিনিময়ে তুলে নিয়েছেন ৪টি উইকেট।
এর আগে ওয়ানডেতে বাংলাদেশের হয়ে হ্যাটট্রিক করেছেন, ২০০৬ সালে শাহাদাত হোসেন এবং ২০১২ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আব্দুর রাজ্জাক এবং ২০১৩ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করেন রুবেল হোসেন।
কিন্তু অভিষেকেই তাইজুলের এ হ্যাটট্রিক বিশ্ব ক্রিকেটেই এক অনন্য রেকর্ড।
এনএন/সোমবার/ক্রিকেট/মিলটন

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)