ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ৩৪ মিনিট ৪২ সেকেন্ড

ঢাকা রবিবার, ৪ ভাদ্র, ১৪২৬ , শরৎকাল, ১৭ জিলহজ্জ, ১৪৪০

আইন-আদালত, লিড নিউজ আদালতের সায় পেলে খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার : স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

আদালতের সায় পেলে খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার : স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল

স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল

ঢাকা, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫, নিরাপদনিউজ : অবরোধে নাশকতার জন্য  খালেদা জিয়াকে হুকুমের আসামি করে পুলিশ মামলা করলেও তাকে গ্রেপ্তারের বিষয়ে আদালতের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছে সরকার।
রোববার প্রধান বিচারপতির সঙ্গে দেখা করে বেরিয়ে আসার পর সাংবাদিকদের প্রশ্নে একথা জানান স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।
নতুন প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার সঙ্গে দেখা করাটা ‘সম্পূর্ণ সৌজন্য সাক্ষাৎ’ ছিল জানিয়ে তিনি বলেন, “উনি সুপ্রিম কোর্টের নিরাপত্তার উন্নয়ন করতে বলেছেন। সেটা আমরা দেখব।”
বিএনপি চেয়ারপারসনকে আটকের কোনো পরিকল্পনা রয়েছে কি না- জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “গ্রেপ্তারের কথা আসছে কেন?”
“গ্রেপ্তার তো বৈচারিক আদালত যখন বলবে, তখন গ্রেপ্তার করব। এখন এই প্রশ্ন আসছে না।”
২০ দলের অবরোধ-হরতালে নাশকতার জন্য কর্মসূচি আহ্বানকারী খালেদা জিয়াকে দায়ী করে আসছে সরকার। সম্প্রতি ঢাকা ও কুমিল্লায় গাড়িতে আগুন দেওয়ার ঘটনায় তাকে হুকুমের আসামি করে মামলা করে পুলিশ।
অবরোধ-হরতালে নাশকতার অভিযোগে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বেশ কয়েকজন নেতাকে ইতোমধ্যে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আটকের পর মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে তাদের আদালতে নেওয়া হয়।
নাশকতা ঠেকাতে আরও কঠোর আইন প্রণয়নের পরিকল্পনা সম্প্রতি আইন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত জানালেও প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্যে সেই ইঙ্গিত নেই।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আসাদুজ্জামান বলেন, “নতুন আইনের প্রয়োজন নেই। সন্ত্রাসবিরোধী একটা আইন আছে ২০০৯ সালের।
“আমরা সেই আইন প্রয়োগ করব। আমরা যে কোনো মূল্যে সন্ত্রাস দমন করব। সেখানে যে আইন হয়, সেই আইন দিয়ে বিচার করব।”
সরকাবিরোধী আন্দোলনের মধ্যে সম্প্রতি বেশ কয়েকটি স্থানে আইনশৃঙ্লা বাহিনীর সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ বিরোধী জোটের কয়েকজন কর্মী নিহত হয়েছেন, যাকে ‘হত্যাকাণ্ড’ বলছে বিএনপি।
কোনো ‘ক্রসফায়ার’ হচ্ছে না দাবি করে প্রতিমন্ত্রী এই বিষয়ে বলেন, “বন্দুকযুদ্ধ শুধু আমাদের বাংলাদেশে হয় না-কি, সারা পৃথিবীতে হচ্ছে। যেখানেই সন্ত্রাস হচ্ছে, আপনি দেখছেন, ফ্রান্সে চারজন মেরে ফেলেছে। আপনি দেখছেন, আমেরিকায় হাত না তুললেই গুলি করে মেরে ফেলে।
“কাজেই যেখানে সন্ত্রাস দমনের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়, পুলিশ যেখানে অ্যাকশনে যায়, সন্ত্রাসীকে ধরতে যায়, সেখানেই বন্দুকযুদ্ধ হয়।”-সংগৃহীত

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)