আপডেট ৪ মিনিট ৫২ সেকেন্ড

ঢাকা রবিবার, ৮ আশ্বিন, ১৪২৬ , শরৎকাল, ২৩ মুহাররম, ১৪৪১

বরিশাল আমতলী সরকারী কলেজের ছাত্র লাঞ্ছিত, বিচারের দাবীতে সড়ক অবরোধ

আমতলী সরকারী কলেজের ছাত্র লাঞ্ছিত, বিচারের দাবীতে সড়ক অবরোধ

আব্দুল্লাহ আল নোমান,নিরাপদ নিউজ: আমতলী-বরিশাল মহাসড়কে চলাচলকারী বাসের আমতলী চৌরাস্তা মোরে অবস্থিত বাস কাউন্টারের এক শ্রমিকের হাতে বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার সময় আমতলী সরকারী কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির রিয়াজুল ইসলাম নামে এক ছাত্র লাঞ্ছিত হওয়ার প্রতিবাদে এবং বিচারের দাবীতে বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার সময় আমতলী নতুন বাজার চৌরাস্তা মোর এলাকায় প্রায় আধা ঘন্টা ধরে সড়ক অবরোধ করে রাখে। এসময় সড়কের দুই পাসে বাস, ট্রাকসহ অর্ধশতাধিক যানবাহন আটকা পড়ে। পরে পুলিশের বিচারের আশ্বাসে শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয়।

আমতলী সরকারী কলেজের শিক্ষার্থীরা জানান, বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার সময় দ্বাদশ শ্রেণির রিয়াজুল নামে এক শিক্ষার্থী তার খালা এবং খালুকে বরিশাল বাসে তুলে দেওয়ার জন্য আমতলী চৌরাস্তা মোর এলাকায় অবস্থিত বরিশাল গামী বাস কউন্টারে যান। এসময় ওই স্থানে বরিশাল গামী স্বর্না পরিবহন নামে একটি বাস যাত্রীদের জন্য অপেক্ষা করছিল। রিয়াজুল ওই বাসে তার খালা এবং খালুকে তুলে দিয়ে স্বপন নামে এক বাস কাউন্টারের শ্রমিকের নিকট (টিকেট কাটার লোক) ভাড়া জিঞ্জেশ করেন। ভাড়া জিঞ্জেস করায় ওই শ্রমিক ক্ষিপ্ত হয়ে রিয়াজুলের সাথে বাকবিতন্ডা শুরু করেন। এক পর্যায়ে ওই শ্রমিক রিয়াজুলকে লাঞ্ছিত করেন। পরে এঘটনা কলেজে এসে রিয়াজুল তার সহপাঠীদের জানালে সকাল সাড়ে ১০টার সময় কলেজের শতাধিক শিক্ষার্থীরা সংগঠিত হয়ে মিছিল সহকারে মহাসড়কে উপস্থিত হয়।

এবং রিয়াজুলকে লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে এবং বিচারের দাবীতে আমতলী নতুন বাজার চৌরাস্তা মোর এলাকায় অবস্থিত মহাসড়ক অবরোধ করেন। এসময় সড়কের দুই পাশে অর্ধশতাধিক যানবাহন আটকা পড়ে। খবর পেয়ে আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: আবুল বাশার পুলিশের একদল সদস্য নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। এসময় তিনি শিক্ষাথীদের সাথে কথা বলেন এবং অভিযুক্ত বাসের হেলপারের বিচারের অশ্বাস দিলে শিক্ষার্থীরা তাৎক্ষনিক অবরোধ তুলে নেয়।

শিক্ষার্থী রিয়াজুল ইসলাম জানান, বাসের ভাড়া জিঞ্জেস করা মাত্র আমি কিছু বুঝে উঠার আগেই স্বপন নামের এক হেলপার আমাকে লাঞ্ছিত করে। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই। অভিযুক্ত স্বপনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। বরগুনা জেলা বাস ম্যমিক ইউনিয়নের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো: হাসান মৃধা জানান, এটি আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার মধ্যস্থতায় সমাধান করা হবে। আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: আবুল বাশার জানান, অভিযুক্ত বাসের হেলপার এবং শিক্ষাথীদের নিয়ে শান্তিপূর্ন উপায়ে ছাত্র লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা সমাধান করা হবে।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)