ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ১১ মিনিট ৩৩ সেকেন্ড

ঢাকা বুধবার, ১২ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ , গ্রীষ্মকাল, ৯ই শাবান, ১৪৩৯ হিজরী

ধর্মকর্ম আল কোরআন ও আল হাদিস

আল কোরআন ও আল হাদিস

আল কোরআন

আল কোরআন
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম: সূরা আনআম
মক্কায় অবতীর্ণ
৭৬. যখন রাতের অন্ধকার তাকে আবৃত করলো, তখন সে আকাশের একটি তারকা দেখতে পেল, আর বললো, ‘এটাই আমার রব!’ অতঃপর যখন সেটা অস্তমিত হল তখন সে বলল, ‘আমি অস্তগামীদের ভালোবাসি না।’
৭৭. আর যখন সে আকাশে চাঁদকে উজ্জ্বল আভায় দেখতে পেল তখন বলল, ‘এটাই আমার রব।’ সেটাও যখন অস্তমিত হলো তখন বললো, ‘আমার রব যদি আমাকে পথপ্রদর্শন না করেন তাহলে আমি পথভ্রষ্ট সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবো।’
৭৮. অতঃপর যখন সে সূর্যকে উদ্ভাসিত দেখতে পেলো তখন সে বললো, ‘এটাই আমার রব! এটাই সবচেয়ে বড়।’ অতঃপর যখন সেটা ডুবে গেল, তখন বললো, ‘হে আমার সম্প্রদায়! তোমাদের শিরকের সাথে আমার আদৌ কোন সম্পর্ক নেই, আমি মুক্ত।’

আল হাদিস
২০। আনাস ইবনে মালেক (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, একদা মু‘য়ায একটি জন্তুর পিঠে নবী (স)-এর পেছনে আরোহী ছিলেন। নবী (স) মু‘য়াযকে ডেকে বললেন “হে, মু‘য়ায ইবনে জাবাল।” মু‘য়ায (রা) জবাবে বললেন, লাব্বাইকা ইয়া রাসূলুল্লাহ ওয়া সা’দাইকা। তিনি আবার ডাকলেন “হে মু‘য়ায” উত্তরে মু‘য়ায বললেন, লাব্বাইকা ইয়া রাসূলুল্লাহ ওয়া সা‘দাইকা। এভাবে তিনবার ডাকার পর তিনি বললেন, “কেউ যদি সর্বান্তকরণে সত্যিকার ভাবে একথার সাক্ষ্য দেয় যে, “আল্লাহ ছাড়া কোন ইলাহ নেই এবং মুহাম্মদ (স) তাঁর রাসূল” তাকে আল্লাহ জাহান্নামের জন্য হারাম করে দেবেন। (একথা শুনে) মু‘য়ায (রা) বললেন, হে আল্লাহর রাসূল! আমি কি জনগণকে এ বিষয়ে জানাবো, যাতে তারা এ সুসংবাদ পেয়ে খুশি হতে পারে? রাসূলুল্লাহ (স) বললেন, “না, এমতাবস্থায় তারা আমল ছেড়ে দিয়ে এর উপরই ভরসা করে বসে থাকবো।” মু‘য়ায (রা) ইল্ম গোপন করার পাপে অভিযুক্ত হওয়ার আশংকায় মৃত্যুর সময় তিনি এ হাদীসটি প্রকাশ করেন।
(বুখারী-কিতাবুল ইল্ম)

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)