ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ১১ মিনিট ৫ সেকেন্ড

ঢাকা মঙ্গলবার, ৬ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ , হেমন্তকাল, ১১ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪০

এই দিনে ইতিহাসের এই দিনে

ইতিহাসের এই দিনে

আজ (বুধবার) ০৭ নভেম্বর’২০১৮

(বিপ্লব ও সংহতি দিবস)
৭ নভেম্বর জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস। একে সিপাহী জনতার বিপ্লব ও সংহতি দিবসও বলা হয়। রাজনৈতিক মূল্যায়ন ও বিশ্লেষণে ভিন্নমত থাকলেও বাংলাদেশের ইতিহাসে এটি একটি তাৎপর্যপূর্ণ দিবস। বাংলাদেশের বৃহৎ দল আওয়ামী লীগ ৭ নভেম্বরকে উপরোক্ত কোনো নামেই অভিহিত করতে চায় না। আওয়ামী লীগের মতে ৭ নভেম্বর সৈনিক হত্যা দিবস । ১৯৭৬ সাল থেকে দিবসটি জাতীয়ভাবে পালিত হতে থাকে। তবে দীর্ঘ ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে এ দিনের সরকারি ছুটি বাতিল করে। ২০০১ এ বিএনপি ক্ষমতাসীন হলে ৭ নভেম্বর আবার জাতীয়ভাবে পালিত হতে থাকে। ২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনরায় এ দিনের ছুটি বাতিল করে । ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার মধ্যদিয়ে ক্ষমতার পটপরির্বতন ঘটে । আড়াই মাস পর ৩ নভেম্বর ফের শুরু হয় সেনাবাহিনীতে অভু্যুথান ও পাল্টা অভ্যুত্থানের ঘটনা। কারাগারে বন্দী অবস্থায় নিহত হন জাতীয় চার নেতা। এসব ঘটনার এক পর্যায়ে তৎকালীন সেনা প্রধান মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান বন্দী হন। ক্ষমতার পালাবদলের ধারাবাহিকতায় ৭ নভেম্বর সিপাহী জনতা একসঙ্গে রাজপথে নেমে আসে। মুক্ত হন জিয়াউর রহমান। ব্রিগেডিয়ার খালেদ মোশাররফ ও কর্নেল এটিএম হায়দারসহ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা সেনা কর্মকর্তা নিহত হন। ৭ নভেম্বরের ঘটনাবলির মধ্যদিয়ে বদলে যায় রাজনীতির প্রেক্ষাপট।

১৮২৩ সালের এই দিনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পঞ্চম প্রেসিডেন্ট জেমস মনরো গুরুত্বপূর্ণ একটি ডকট্রিন ঘোষণা করেন। এই ডকট্রিন, মনরো ডকট্রিন নামে পরিচিত।মনরো ডকট্রিনে বলা হয়েছে, আমেরিকা মহাদেশের স্বার্থ ও ভবিষ্যত এই অঞ্চলের দেশগুলোর সাথে জড়িত এবং এই মহাদেশের বাইরের কোন দেশ এ অঞ্চলের দেশগুলো বিশেষকরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করতে পারবে না। এই ডকট্রিনে মূলত ইউরোপীয় দেশগুলোর প্রতিই ইঙ্গিত করা হয়েছে। অন্যদিকে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও ডকট্রিনে এই প্রতিশ্রুতি দিয়েছে যে, তারা ইউরোপের কোন বিষয়ে নাক গলাবে না। এই ডকট্রিনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নয়া উপনিবেশ গড়ে তোলার উপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে।

১৮৬৭ সালের এই দিনে বিখ্যাত বিজ্ঞানী ম্যাডাম মেরি কুরি পোল্যান্ডের রাজধানী ওয়ারশ-তে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা পদার্থ বিজ্ঞানের অধ্যাপক ছিলেন। এ কারণে ম্যারি কুরি এ বিষয়েই পড়াশোনা করেন। প্যারিসে বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত অবস্থায় তিনি ফরাসি পদার্থবিদ পিয়েরে কুরি’র সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। পরে দুজনে মিলে তেজস্ত্রিয়তা সম্পর্কে গবেষণা চালান। ১৯০৩ সালে ম্যাডাম ম্যারি কুরি ও পিয়েরে কুরি এক সাথে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন।

ফ্রান্সের বিখ্যাত লেখক আলবার্ট কামুস ১৯১৩ সালের এই দিনে জন্ম গ্রহণ করেন। দরিদ্র পরিবারে জন্ম হলেও পরবর্তীতে দেশজুড়ে তার ব্যাপক সুনাম ছড়িয়ে পড়ে। এই লেখকের সেরা বইগুলোর মধ্যে দ্য স্ট্রেঞ্জার ও দ্য প্লেগ অন্যতম। ১৯৫৭ সালে তিনি সাহিত্যে নোবেল পান এবং এর তিন বছর পর ১৯৬০ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান।

প্রথম বিশ্ব যুদ্ধ চলাকালে ১৯১৭ সালের এই দিনে লেলিন ও ট্রটেস্কির নেতৃত্বাধীন বলশেভিকরা কেরেনস্কির অস্থায়ী সরকারের পতন ঘটিয়ে ক্ষমতায় আরোহন করে। রাশিয়ার জারদের অন্যায়-অপরাধ ও দুর্নীতির কারণে দেশটির জনগণ ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। এ অবস্থায় বলশেভিকরা সবার জন্য খাদ্যের নিশ্চয়তা প্রদান এবং কৃষি জমি বন্টনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে জনগণের সমর্থন লাভ করতে সক্ষম হয়। কমিউনিস্টরা শাসন ক্ষমতা দখলের পর জার্মানির সাথে শান্তি চুক্তি স্বাক্ষর করে এবং পরবর্তীতে জারদের অনুগত বাহিনীর বিরুদ্ধে সাড়াশি অভিযান চালায়। ৭৪ বছর শাসনের পর ১৯৯১ সালে রাশিয়ায় কমিউনিজমের পতন ঘটে।

১৯৫৬ সালের এই দিনে জাতিসংঘের হস্তক্ষেপে সুয়েজ খাল নিয়ে যুদ্ধের অবসান ঘটে। সিনাই উপদ্বীপে ইহুদিবাদীদের আগ্রাসন এবং সুয়েজ খাল এলাকায় বৃটিশ ও ফরাসী ছত্রীসেনাদের হামলার কারণে এই যুদ্ধের সূচনা হয়। মিশরের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট আব্দুন নাসের সুয়েজ খালকে জাতীয়করণের ঘোষণা দেয়ায় আগ্রাসী দেশগুলো সেদেশে হামলা চালায়।

ইরাকের মুসলিম লেখক ইবনে যোবায়ের হিজরী ৩৪৮ সালে এই দিনে পরলোকগমন করেন। তিনি তার পিতার কাছে প্রাথমিক শিক্ষা সম্পন্ন করেন। তিনি গ্রন্থাগার প্রতিষ্ঠাসহ শিক্ষা প্রসারের জন্য বিপুল অর্থ ব্যয় করেছেন। ইবনে যোবায়ের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বই লিখে গেছেন,যা আজও শিক্ষানুরাগীদের জন্য প্রেরণার উৎস হিসেবে কাজ করছে।

১০৫০ সাল আগে হিজরী ৩৭৯ সালের এই দিনে ইরানি গণিতবিদ ও জ্যেতির্বিজ্ঞানী আবু হামেদ সাগানি মৃত্যুবরণ করেন। ইরানের খোরাসানে তার জন্ম হলেও জীবনের অধিকাংশ সময় কাটিয়েছেন বাগদাদে। জোতির্বিজ্ঞান বিষয়ে তিনি গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি বই লিখে গেছেন।

১৯৭৫ সালের এ দিনে বাংলাদেশের তৎকালীন সেনা প্রধান মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান সিপাহী জনতার মিলিত অভ্যুত্থানে গৃহবন্দী অবস্থা থেকে মুক্ত হন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার মধ্য দিয়ে ক্ষমতার পটপরিবর্তন ঘটে। আড়াই মাস পর ৩ নভেম্বর ফের শুরু হয় সেনাবাহিনীতে অভ্যুত্থান ও পাল্টা অভ্যুত্থানের ঘটনা। কারাগারে বন্দী অবস্থায় নিহত হন জাতীয় চার নেতা। এসব ঘটনার একপর্যায়ে তৎকালীন সেনাপ্রধান মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান বন্দী হন। ক্ষমতার পালাবদলের ধারাবাহিকতায় ৭ নভেম্বর সিপাহি-জনতা একসঙ্গে রাজপথে নেমে আসে, মুক্ত হন জিয়াউর রহমান।

ফ্রান্স ও স্পেনের মধ্যে ঐতিহাসিক পাইরনসিস শান্তি চুক্তি স্বাক্ষর (১৬৫৯)
ইংল্যান্ডে সর্বশেষ প্রকাশ্য ফাঁসি (১৭৮৩)
রুশ সাহিত্যিক লিও টলষ্টয়ের মৃত্যু (১৯১০)
জ্যানেট র‌্যানকিম মার্কিন কংগ্রেসে প্রথম মহিলা সদস্য নির্বাচিত (১৯১৬)
লেনিনের নেতৃত্বে সফল বিপ্লবের মাধ্যমে রাশিয়ায় পৃথিবীর প্রথম সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা (১৯১৭)
সমাজসেবক-রাজনীতিক অশ্বিনীকুমার দত্তের মৃত্যু (১৯২৩)
তিউনিসিয়ার রাষ্ট্রপতি হাবিব বুরগিয়া ক্ষমতাচ্যুত। আবেদিন বিন আলী নতুন রাষ্ট্রপতি (১৯৮৭)
নভেম্বর বিপ্লবের ৭০ বছর পূর্তিতে সোভিয়েত প্রেসিডেন্ট গরবাচেভের পেরেস্ত্রৈকা ও গ্রাসনোস্ত নীতি ঘোষণা (১৯৮৮)
দ্য স্যাটানিক ভার্সেস-এ ইসলাম অবমাননার দায়ে ইরানের ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খোমেনি কর্তৃক সালমান রুশদীর মৃত্যুদ- ঘোষণা (১৯৮৮)
মেরি রবিনসন আইরিশ প্রজাতন্ত্রের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী নিযুক্ত (১৯৯০)
ভারতের অন্ধ প্রদেশে সাইক্লোনে আড়াই হাজার লোকের প্রাণহানি (১৯৯৬)

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)