ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট জুলাই ১৩, ২০১৯

ঢাকা শনিবার, ৫ কার্তিক, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ২০ সফর, ১৪৪১

এই দিনে ইতিহাসের এই দিনে

ইতিহাসের এই দিনে

আজ (শনিবার) ১৩ জুলাই’২০১৯

ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর মৃত্যু
জ্ঞানতাপস, বহুভাষাবিদ, ভাষা বিজ্ঞানী ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ১৯৬৯ সালের এই দিনে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ ১৮৮৫ সালের ১০ জুলাই পশ্চিমবঙ্গের চব্বিশ পরগনায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন ভাষাবিদ, ভাষা বিজ্ঞানী, গবেষক ও শিক্ষাবিদ। হাওড়া জেলা স্কুল থেকে তিনি এন্ট্রান্স পাস করেন। ১৯১০ সালে কলকাতা সিটি কলেজ থেকে সংস্কৃতে অনার্স নিয়ে বিএ পাস করেন। তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তুলনামূলক ভাষাতত্ত্বে এমএ পাস করেন। বিভিন্ন চাকরি শেষে ১৯২১ সালের ২ জুন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্কৃত ও বাংলা বিভাগের প্রভাষক নিযুক্ত হন। তিনি ইংরেজি, আরবি, উর্দু, হিন্দি, সংস্কৃত ও বাংলা বিভাগের প্রভাষক নিযুক্ত হন। তিনি ইংরেজি, আরবি, উর্দু, হিন্দি, ফরাসিসহ বেশ কয়েকটি ভাষায় পারদশী ছিলেন। এ কারণে তাকে বহুভাষাবিদ বলা হয়। ১৯২৮ সালে ফ্রান্স থেকে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৬০ সালে পূর্ব পাকিস্তানি ভাষার আদর্শ অভিধান প্রকল্পের সম্পাদক হিসেবে যোগদান করেন বাংলা একাডেমীতে। তার উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ-কানপার গীত ও দোহা, বাংলা সাহিত্যের কথা, বাংলা ভাষার ইতিবৃত্ত, ভাষা ও সাহিত্য, বাংলা ব্যাকরণ, মহররম শরীফ, ইসলাম প্রসঙ্গ, কুরআন প্রসঙ্গ প্রভৃতি। তিনি বহু গবেষণামূলক প্রবন্ধ, অনুবাদ গ্রন্থ রচনা করেন। আঞ্চলিক ভাষার অভিধান’ সম্পাদনা তার একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর পরই দেশের রাষ্ট্রভাষা উর্দু-না বাংলা এ বিতর্কে তিনি বাংলার পক্ষে জোরালো বক্তব্য উপস্থাপন করেন। তার এ ভূমিকা পূর্ব বাংলার রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের পথ প্রশস্ত করেএ

(আমিনুল হকের মৃত্যু)
প্রতিথযশা খ্যাতিমান আইনজীবী এটর্নি জেনারেল আমিনুল হকের মৃত্যুদিন। ১৯৯৫ সালের এই দিনে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে একজন সৎ, দেশপ্রেমিক এবং মানবিক গুণাবলী শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। সম্পন্ন মানুষ ছিলেন তিনি। অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর অর্জনের পর তিনি এলএলবি পাস করেন। প্রথম জীবনে অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর অর্জনের পর তিনি এলএলবি পাস করেন। প্রথম জীবনে পাকিস্তান বিমান বাহিনীতে পাইলট হয়ে যোগ দেন। বাঙালিদের প্রতি পশ্চিম পাকিস্তানিদের বিরূপ মনোভাব ও আচরণের প্রতিবাদে চাকরি ছেড়ে দিয়ে আইন ব্যবসা শুরু করেন। ঢাকা হাইকোটে যোগ দেন ১৯৬২ তে । পরে প্রতিষ্ঠা পান সুপ্রিমকোর্টের একজন বিশিষ্ট আইনজীবী হিসেবে। ১৯৯০ সালে এরশাদের পদত্যাগের পর তত্ত্বাবধায়ক সরকার তাকে বাংলাদেশের এটর্নি জেনারেল নিয়োগ দেয়। এ পদে দায়িত্ব পালনকালে সাবেক সামরিক প্রেসিডেন্ট এরশাদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলাগুলো দক্ষতার সঙ্গে পরিচালনা করেন। জামায়াতে ইসলামীর আমির অধ্যাপক গোলাম আযমের নাগরিকত্ব সংক্রান্ত রিট মামলায় সরকারের পক্ষে মামলা পরিচালনা করে দেশব্যাপী আলোচনার সৃষ্টি করেন। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে তার অবদান স্মরণীয়। দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে তার অবদান সর্বজনবিদিত। উল্লেখ্য, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম আসামী সার্জেন্ট জহুরুল হক তার অনুজ।

৬৪ খ্রিস্টাব্দের এই দিনে রোমান সা¤্রাজ্যের রাজধানী রোম শহরে ভয়াবহ অগ্নীকান্ডের ঘটনা ঘটে। শহরের অধিকাংশ ভবন কিংবা স্থাপনা কাঠের তৈরী হওয়ায় খুব অল্প সময়ের মধ্যে ঐতিহাসিক রোম শহরের একটা বড় অংশ ধ্বংস হয়ে যায় এবং অনেক অধিবাসী নিহত হয়। তৎকালীন রোম স¤্রাট এই অগ্নীকান্ডের ঘটনাকে সুযোগ হিসাবে ব্যবহার করে এবং এ বিপর্যয়ের জন্য খ্রিস্টানদেরকে দায়ী করে এক লক্ষ্যেরও বেশী খ্রিস্টানকে হত্যা করে।

১৭৪৮ খ্রিস্টাব্দের এই দিনে লরেন জোসো নামের বিখ্যাত উদ্ভিদ বিজ্ঞানী ফ্রান্সের লিওন শহরে জন্ম গ্রহণ করেন। তিনি তার পিতা ও চাচার মতই তার সমগ্র জীবনে উদ্ভিদের উপর গবেষণা চালান। তার এ গবেষণার ফলাফল এর আগের দুজন গবেষকের গবেষণার চাইতেও আরো বেশী পরিপূর্ণ ছিল। লরেন জোসো ১৮৩৬ খ্রিস্টাব্দে মৃত্যুবরণ করেন।

১৭৭১ খ্রিস্টাব্দের এই দিনে বিখ্যাত বৃটিশ সমুদ্র ভ্রমনকারী জেমস কুক তিন বছর ধরে পৃথিবীর দক্ষিণ গোলার্ধ ভ্রমণ শেষ করেন। তার এ ঐতিহাসিক সফরে তিনি বহু মূল্যবান গবেষণা ও পরীক্ষা নিরীক্ষা চালান। পৃথিবীর দক্ষিণ গোলার্ধের উদ্ভিদ, জীব-জন্তু, স্থানীয় অধিবাসীদের সম্পর্কে জানা ও গবেষণার জন্য একদল গবেষকও তার সফর সঙ্গী ছিলেন। এছাড়া তিনি তার গবেষণা কাজে জ্যোতির্বিদদেরকেও সঙ্গে নিয়ে গিয়েছিলেন। ১৭৬৮ সালের ২৬ জুলাই তিনি এ সফর শুরু করেছিলেন।

১৩৬২ সালের এই দিনে ইরানে বিশেষজ্ঞ পরিষদের প্রথম অধিবেশন বসে। ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরানের সংবিধানের নিয়ম অনুযায়ী ইরানের শাসন ব্যবস্থায় বিশেষজ্ঞ পরিষদ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিভাগ। ইরানের আলেমরা জনগণের সরাসরি ভোটে নির্বাচিত হয়ে এই পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। রাহবার বা ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা নির্বাচন এবং তাঁর কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করা এই পরিষদের অন্যতম মূল দায়িত্ব। এই পরিষদের সদস্যরা আট বছরের জন্য নির্বাচিত হয়ে থাকেন।

১৩৬৫ সালের এই দিনে ইরানের খ্যাতনামা কবি, গবেষক ও লেখক ড: মাহদি হামিদি শিরাজি পরলোক গমন করেন। তিনি ফার্সী ১২৯৩ সালে শিরাজ শহরে জন্ম গ্রহণ করেন এবং ফার্সী ভাষা ও সাহিত্যে ডক্টরেট ডিগ্রী অর্জন করতে সক্ষম হন। ড: হামিদি ফার্সী কবিতার উপর বেশ কিছু বই লেখেন যেগুলোতে কবিতার ধারা, সমালোচনা, সাহিত্যের ইতিহাস, কবিতার ধরণ বা শৈলী প্রভৃতি বিষয় স্থান পেয়েছে। তার লেখা কয়েকটি গ্রন্থের মধ্যে দরিয়ায়ে গোহার বা রতেœর সমুদ্র শকুফে বা বিকাশ, যামযামেয়ে শাব বা রাতের গুঞ্জরন বিশেষভাবে উল্লেখ করা যায়।

১৩৭২ সালের এই দিনে ইরানের খ্যাতনামা ইতিহাসবিদ ড: আব্দুল হাদি হায়েরি পরলোক গমন করেন। তিনি ফার্সী ১৩১৪ সালে কোমের একটি ধর্মীয় পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন কোমের ধর্ম তত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও তৎকালীন সময়ের খ্যাতনামা আলেম আয়াতুল্লাহ হাজ শেইখ আব্দুল করিম হায়েরির নাতি। ড: হায়েরি ইসলামিক ষ্টাডিজের উপর প্রাথমিক পড়া শেষ করে কানাডায় যান এবং সেখানে তিনি শিক্ষা অর্জন অব্যাহত রাখেন। ইরানে সাংবিধানিক আন্দোলন এবং এ ক্ষেত্রে শিয়া আলেমদের ভূমিকা উপর গবেষণা চালান। এ ব্যাপারে ফার্সী ভাষায় লেখা ড: হায়েরির একটি মূল্যবান গ্রন্থ ইংরেজিতেও প্রকাশিত হয়েছে।

১৯৫ সালের এই দিনে হযরত মোহাম্মদ (সা:) এর নবম বংশধর এবং আহলে বাইতের অন্যতম সদস্য ইমাম মোহাম্মদ তাকি (আ:) মদিনা শহরে জন্ম গ্রহণ করে। তিনি তার পিতা ইমাম রেজা (আ:)এর শাহাদাতের পর মাত্র নয় বছর বয়সে মুসলিম উম্মার নেতৃত্ব বা দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। ইমাম মোহাম্মদ তাকি (আ:) ছিলেন জনগণের অত্যন্ত প্রিয় ব্যক্তিত্ব। অত্যধিক দয়াবান ও ক্ষমাশীল ছিলেন বলে তিনি জাওয়াদ অর্থাৎ ক্ষমশীল হিসাবে পরিচিত ছিলেন। এজন্য তাকে ইমাম জাওয়াদ নামেও অভিহিত করা হয়। ইমাম জাওয়াদ ছিলেন অভাবি মানুষের আশ্রয় স্থল। বিষয় প্রয়োগ করা হলে ২২০ হিজরীর ২৯শে জি¦লকদ তারিখে ইমাম তাকি (আ:) শাহাদত বরণ করেন। তৎকালীন শাসক মুতাসিম এই বিষ প্রয়োগের ষড়যন্ত্র করেছিলেন। মাত্র ২৫ বছর বয়সে ইমাম তাকি (আ:) পৃথিবী থেকে বিদায় নিলেও মোহাম্মদি ইসলামের পথে চলার জন্য তিনি যে দিক নির্দেশনা দিয়ে গেছেন তা আজও সবার হেদায়তের জন্য কাজ করে চলেছে। ইমাম তাকি (আ:) বলেছেন, আল্লাহর উপর যিনি নির্ভর করেন, আল্লাহ তাকে সকল অকল্যাণ থেকে রক্ষা করেন।

২০০৭ সালের এই দিনে নেপালের পশ্চিমাঞ্চলে দু’টি পৃথক ভূকিম্পে অন্তত ২৬ জন নিহত হয়। নিহতদের মধ্যে বেশকিছু নারী ও শিশু ছিল। পশ্চিমাঞ্চলের পর্বত অধ্যুষিত বাগলং জেলার গোয়ালিচুর গ্রামে প্রথম ভূমিকম্পের ঘটনাটি ঘটে। স্থানীয় অধিবাসিরা যখন ঘুমিয়ে ছিল তখন ভূমিকম্পে পার্বত্য এলাকা থেকে নেমে আসা কাদার ¯্রােতে তাদের ঘরগুলো তলিয়ে যায়। অন্যদিকে রাজধানী কাঠমান্ডু থেকে ৫০০ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে অবস্খিত ব্রাতোলা গ্রামে পৃথক ভূমিকম্পে পাঁচজন নিহত হয়।

হযরত আয়েশা সিদ্দিকা (রা:)’র ইন্তেকাল (৬৭৮)
গ্রেট ব্রিটেন, ফ্রান্স ও নেদারল্যান্ডসোর মধ্যে শান্তিচুক্তি স্বাক্ষর (১৮১৩)
অযোধ্যার শেষ নবাব সঙ্গীতামোদী ওয়াজিদ আলী শাহর জন্ম (১৮২২)
পৃথিবীর ইতিহাসে প্রথমবারের মতো লন্ডনে বিড়াল প্রদর্শনী (১৮৭১)
তুরস্ক থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে রুমানিয়ার স্বাধীনতা লাভ (১৮৭৮)
কবি, ঔপন্যাসিক, রাজনীতিক ইসমাইল হোসেন সিরাজীর জন্ম (১৮৮০)
নোবেলজয়ী (১৯০৮)
পদার্থবিজ্ঞানী গাব্রিয়েল লিপমান সমুদ্রে ডুবে নিহত (১৯২১)
জার্মানিতে নাৎসি দল ছাড়া অন্যসব রাজনৈতিক দল নিষিদ্ধ ঘোষণা (১৯৩৩)
আফগানিস্তানকে প্রজাতন্ত্র ঘোষণা (১৯৭৩)
নিউইয়র্ক সিটি একটানা ১৪ ঘণ্টা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন থাকার নজিরবিহীন ঘটনা। এ সময়ে ভয়াবহ লুটপাট, খুন, ধর্ষণ (১৯৭৭)

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)