আপডেট ১৮ মিনিট ৩০ সেকেন্ড

ঢাকা শনিবার, ৩১ ভাদ্র, ১৪২৬ , শরৎকাল, ১৫ মুহাররম, ১৪৪১

এই দিনে ইতিহাসের এই দিনে

ইতিহাসের এই দিনে

আজ (বুধবার) ১৭ জুলাই’২০১৯

ইসমাইল হোসেন সিরাজীর মৃত্যু
কবি, ঔপন্যাসিক, রাজনীতিক ইসমাইল হোসেন সিরাজী ১৯৩১ সালের এ দিনে মৃত্যুবরণ করেন। জাগরণমূলক কাব্য সৃষ্টিতে কবি কাজী নজরুল ইসলামের পূর্বসূরিও বলা হয় তাকে। মুসলমানদের অন্ধকার কালে তার কাব্য ও অনলবর্ষী বক্তৃতা মুসলিম জাতিকে যেমন অনুপ্রাণিত করেছে, তেমন দেখিয়েছে আলোর পথ। সিরাজীর জন্ম ১৮৮০ সালের ১৩ জুলাই সিরাজগঞ্জে। দারিদ্রের কারণে উচ্চশিক্ষা নেয়া হয়নি। কিন্তু স্বচেষ্টায় সাহিত্য, ইসলাম, ধর্ম, সমাজ ইত্যাদি বিষয়ে অনেক জ্ঞানার্জন করেন। বিশ শতকের প্রারম্ভে কংগ্রেসে যোগ দেন এবং বঙ্গীয় প্রাদেশিক কংগ্রেসের একজন শীর্ষস্থানীয় নেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেন। বঙ্গভঙ্গ বিরোধী আন্দোলনে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখেন। বাঙালি মুসলমানদের মাতৃভাষা বাংলা না উর্দু এ বিতর্কে বাংলার পক্ষে দৃঢ় অবস্থান নেন। বলকান যুদ্ধে তুরস্ককে সাহায্য করার জন্যে ১৯১২ তে তুরস্কে যান। সেখানে আহত সৈনিকদের সেবা করেন। তুরস্কের সুলতান তাকে গাজী উপাধি দেন। খিলাফত ও অসহযোগ আন্দোলনেও সক্রিয় ছিলেন তিনি। ইসমাইল হোসেন সিরাজী ১৯২৩ সালে দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাশের স্বরাজ্য দলেও যোগ দিয়েছিলেন। অনলবর্ষ বক্তৃতা ও সাহিত্যের জন্যে কারাবন্দী হয়েছেন বেশ ক’বার। মাসিক নূর ও সাপ্তাহিক সুলতান সম্পাদনাসহ বিভিন্ন পত্রিকার সঙ্গে জড়িত ছিলেন। অনলপ্রবাহ উচ্ছাস উদ্বোধন, নব উদ্দীপনা, স্পেন বিজয়, সঙ্গীত সঞ্জীবনী, প্রেমাঞ্জলি তার উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থ। রায়নন্দিনী, তারা বাঈ তার বিখ্যাত উপন্যাস ।

১৯১৩ সালের এ দিনে বিখ্যাত ফরাসী দার্শনিক রুজে গারুদী ফ্রান্সের মার্সাই শহরে জন্ম গ্রহণ করেন। তিনি দর্শন, সাহিত্য ও এরফান এবং সংস্কৃতি ও সভ্যতা বিষয়ে তিনটি পিএইচডি ডিগ্রী লাভ করেছেন। হিটলারের ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে সংগ্রামের জন্য তাকে ১৯৪০ থেকে ১৯৪৩ সাল পর্যন্ত জার্মানীর বন্দী শিবিরে থাকতে হয়েছে। তিনি ২৫ বছর ধরে ফ্রান্সের কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন। অধ্যাপক রুজে গারুদি কমিউনিজম ও পশ্চিমা লিবারেলিজমে শান্তির সন্ধান না পেয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। ১৯৭৯ সালে ইরানে সংঘটিত ইসলামী বিপ্লব গারুদিকে ইসলাম ধর্ম গ্রহণে ব্যাপক প্রেরণা যুগিয়েছে। সাহসী ও মুক্তমনা নওমুসলিম এই চিন্তাবিদ ইসরাইল সৃষ্টির কাহিনী ও রাজনৈতিক ইহুদিবাদ এবং ইসরাইল প্রতিষ্ঠার কল্পকাহিনী নামক আলোড়ন সৃষ্টিকারী বই লিখে বাক স্বাধীনতা ও মুক্ত চিন্তার দাবীদার ইউরোপে বার বার কারাদন্ডে দন্ডিত এবং নির্যাতিত হয়েছেন। তিনি তার শেষোক্ত বইটিতে হিটলারের হাতে ৬০ লক্ষ ইহুদি হত্যাকে অতিরঞ্জিত বলে প্রমাণ করেছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পতনের বা অবক্ষয়ের অগ্রপথিক, ইসলামের ওয়াদা এবং বিশ শতকের ডায়েরী তার লেখা আরো কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বইয়ের নাম।

১৯৭৩ সালের এ দিনে আফগানিস্তানের শেষ বাদশাহ জহির শাহের পতনের মধ্য দিয়ে দেশটিতে রাজতন্ত্রের অবসান ঘটে।

১৯৬৮ সালের এ দিনে ইরাকী বাথ পার্টি এক অভ্যুত্থান ঘটিয়ে প্রেসিডেন্ট আবদুর রহমান আরেফকে ক্ষমতাচ্যুত করে এবং ক্ষমতা দখল করে আহমদ হাসান আল বাকের। এ সময় ইরাকের দ্বিতীয় শীর্ষ ক্ষমতাধর ব্যক্তি হিসেবে আবির্ভূত হন সাদ্দাম হোসেন। তিনি নির্মমভাবে বিরোধীদের ওপর হত্যা অভিযান শুরু করেন। কূর্দী, জাতীয়তাবাদী, মুসলমান বা ইসলামপন্থী ও এমনকি বাথ পার্টির মিত্র কমিউনিস্টরাও তৎকালীন ইরাকী বাথিস্ট নেতাদের নিয়ন্ত্রিত সেনা বাহিনী বা গোয়েন্দা বাহিনীর হত্যা অভিযান থেকে রেহাই পায় নি। ১৯৭৯ সালে সাদ্দামের চাপের মুখে হাসান আল বাকের ক্ষমতা ছেড়ে দেন। এরপর সাদ্দাম বাথ পার্টির ভেতরেই তার সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বীদের খুব দ্রুত নির্মূল করেন। সাদ্দাম গোটা ইরাককে কার্যত সেনা ও গুপ্তচর নিয়ন্ত্রিত শ্বাসরুদ্ধকর কারাগারে পরিনত করেন। সাদ্দাম ইরান ও কুয়েতের ওপর যুদ্ধ চাপিয়ে দিয়ে এ তিন দেশেরই জনসম্পদ, জীবন এবং সম্পদের অপরিসীম ক্ষতি করেন। অবশেষে ২০০৩ সালে ইরাকে ইঙ্গ-মার্কিন হামলার পর সাদ্দামের পতন ঘটে। কিন্তু এখনও সাদ্দামের অনুসারী বাথিস্টরা ইরাকের নিরীহ জনগণের ওপর হত্যাকান্ড অব্যাহত রেখেছে।

১৯৩১ সালের এ দিনে বাংলাদেশের মুসলিম জাগরণের কবি, ঔপন্যাসিক ও রাজনীতিবিদ ইসমাইল হোসেন সিরাজী ইন্তেকাল করেন।

১৯৭৭ সালের এ দিনে বাংলাদেশের কর্ণফুলীর মোহনায় জেটি চালু হয়।

রাশিয়ার জার তৃতীয় পিটারকে হত্যা (১৭৬২)
খ্যাতিমান অর্থনীতিবিদ এ্যাডাম স্মিথের মৃত্যু (১৭৯০)
স্পেন আনুষ্ঠানিকভাবে ফ্লোরিডাকে আমেরিকার কাছে হস্তান্তর করে (১৮২১)
গভর্নর জেনারেল জন এ্যাডামের প্রস্তাবানুসারে কলকাতার সাধারণ শিক্ষা সমিতি গঠিত (১৮২৩)
পাঠশালার শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের জন্যে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের তত্ত্বাবধানে নার্মাল স্কুল স্থাপিত (১৮৫৫)
মেক্সিকোর রাষ্ট্রপতি পেনরে আলভারো ওবরেগন আততায়ীর গুলিতে নিহত (১৯২৮)
মায়ানমারের স্বাধীনতা সংগ্রামী অংসান নিহত (১৯৪৭)
ভারতে প্রশাসনিক চাকরিতে মহিলাদের অংশ নেয়ার অধিকার প্রদান (১৯৪৮)
স্পেনে গৃহযুদ্ধ শুরু (১৯৬৩)
ইরাকে সিপাহী-জনতার অভ্যুথান। সামরিক শাসক প্রেসিডেন্ট জেনারেল আহমদ হাসান ক্ষমতাচ্যুত ও গৃহবন্দী (১৯৬৮)
আফগানিস্তানে বাদশা জহির শাহ ক্ষমতাচ্যুত । রাজতন্ত্রের অবসান (১৯৭৩)
অভিনেত্রী, গায়িকা কাননবালা দেবীর মৃত্যু (১৯৯২)

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)