ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ৬ মিনিট ৪৫ সেকেন্ড

ঢাকা শনিবার, ৪ কার্তিক, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ১৯ সফর, ১৪৪১

এই দিনে ইতিহাসের এই দিনে

ইতিহাসের এই দিনে

আজ (বুধবার) ১৮ সেপ্টেম্বর’২০১৯

১৮১৮ সালের ১৮ই সেপ্টেম্বর চিলি স্পেনের কাছ থেকে স্বাধীনতা অর্জন করে। ১৫৩৬ খ্রীস্টাব্দে স্পেন চিলিতে অভিযান চালিয়ে দেশটি দখল করে নেয়। ১৮১৪ সালে চিলিতে স্বাধীনতা আন্দোলন মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে। তবে সরকারী বাহিনীর দমনের মুখে স্বাধীনতাকামীদের আন্দোলন ব্যর্থ হয়। ১৮১৭ সালে আর্জেন্টেনীয় নেতা সান মার্টিন তার কয়েক হাজার বাহিনী নিয়ে স্পেনের দখলীকৃত ভুখন্ড পের” ও চিলিতে অভিযান চালায়। চিলির স্বাধীনতাকামীদের সহায়তায় সান মার্টিনের বাহিনী স্প্যানিশদের চিলি থেকে পিছু হটতে বাধ্য করে। এভাবে ১৮১৮ সালে চিলি স্বাধীন প্রজাতন্ত্র হিসাবে আত্ম প্রকাশ করে। চিলির আয়তন সাত লক্ষ ৫৬ হাজার ৬২৬ বর্গ কিলোমিটার। এটি দক্ষিণ আমেরিকার পশ্চিমে প্রশান্ত মহাসাগরের তীরে অবস্থিত। এর প্রতিবেশী দেশগুলো হচ্ছে আর্জেন্টিনা, বলিভিয়া এবং পের” ।

১৯৩১ সালের ১৮ই সেপ্টেম্বর জাপানের সেনা বাহিনী চীনের উত্তর পূর্বাঞ্চলিয় ভ‚খন্ড মানচুরী দখল করে নেয়। এ ভ‚খন্ড দখলের মাধ্যমে চীন ও জাপানের মধ্যে দ্বিতীয় যুদ্ধের সূচনা হয়। মানচুরি দখলের পর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের প্রথম বছরগুলো পর্যন্ত পূর্ব ও দক্ষিণ চীনের একটা বিশাল ভ‚খন্ড জাপানের অধিনে ছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ফলে চীন জাপানের বির”দ্ধে যুদ্ধে মিত্র বাহিনীর সহযোগিতা লাভ করে। ফলে ১৯৪৫ সালে যুদ্ধে পরাজিত জাপান চীনা ভ‚খন্ড থেকে তার সেনা বাহিনী পুরোপুরি প্রত্যাহার করে নেয় ।

১৯৬১ সালের এই দিনে সুইডিস রাজনীতিবিদ ও জাতিসঙ্ঘের দ্বিতীয় মহাসচিব দ্যাগ হেমার শোল্ড এক বিমান দূর্ঘটনায় নিহত হন। তিনি কঙ্গোতে যুদ্ধ অবসানের লক্ষ্যে এক ক‚টনৈতিক মিশন পরিচালনার সময় এ দূর্ঘটনার স্বীকার হন। দ্যাগ হেমার শেল্ড ১৯০৫ সালে জন্ম গ্রহণ করেন এবং তিনি সুইডেনের সমকালীন লেখক ও সাহিত্যিকদের মধ্যে অন্যতম। ১৯৫২ সাল থেকে তিনি পরপর দু’বার জাতিসঙ্ঘের মহাসচিব নির্বাচিত হন। মৃত্যুর কিছুকাল পরেই তিনি নোবেল শান্তি পুরস্কার লাভ করেন।

দ্বিতীয় হিজরীর ১৭ই রমজান বদরের যুদ্ধ সংঘটিত হয়। রাসূলে খোদা (সা:)এর জীবনের অন্যতম এ যুদ্ধটি মক্কা ও মদীনার একটা প্রান্তে অনুষ্ঠিত হয়। মদীনার ১২০ কি:মি: দক্ষিণ পশ্চিমে বদর নামে একটি কুয়া ছিল। মুসলমানদের সাথে মুশরিকদের প্রথম যুদ্ধ সেখানেই সংঘটিত হয়। এই যুদ্ধে মুশরিক বাহিনীর সংখ্যা ছিল প্রায় ৯২০ জন এবং মুসলিম বাহিনীর সংখ্যা ছল মাত্র ৩১৩ জন। কিন্তু তারপরও মুসলমানরা তাদের দৃঢ়তা ও ঈমানী শক্তির বলে এ যুদ্ধে জয়ী হয়। মুসলমানদের চেয়ে প্রায় তিন গুন সেনা সংখ্যা এবং ব্যাপক অস্ত্র-শস্ত্রের মোকাবেলায় মুসলমানদের ছোট্ট ও দূর্বল বাহিনীর এ বিজয় ছিল বিষ্ময়কর। আল্লাহর নবী মোহাম্মদ(সা:) বদর যুদ্ধের বিজয়কে আল্লাহর বিশেষ অনুগ্রহ বলে উল্লেখ করেছেন। যেমনটি সূরা আল ইমরানের ১২৩ নম্বর আয়াতে এ সম্পর্কে বলা হয়েছে, “বদরের যুদ্ধে যখন তোমরা হীনবল ছিলে তখন আল্লাহ তোমাদিগকে সাহায্য করেছিলেন। সুতরাং তোমরা আল্লাহকে ভয় কর, যাতে তোমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ কর।”

স্পেনীয় শাসন থেকে চিলির স্বাধীনতা লাভ (১৮১০)
টাইফুনে হংকংয়ে ১০ হাজার লোক নিহত (১৯০৬)
হিন্দু-মুসলমান স¤প্রীতির জন্য মহাত্মা গান্ধীর অনশন শুর” (১৯২৪)
সোভিয়েত ইউনিয়নের লীগ অব নেশনে যোগদান (১৯৩৪)
জাতিসংঘের দ্বিতীয় মহাসচিব নোবেল বিজয়ী দাগ হামার শোল্ডের মৃত্যু (১৯৬১)
বার্মায় সামরিক অভ্যুত্থান (১৯৮৮)

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)