আপডেট ৩৪ মিনিট ২০ সেকেন্ড

ঢাকা মঙ্গলবার, ৫ আষাঢ়, ১৪২৫ , বর্ষাকাল, ৪ শাওয়াল, ১৪৩৯

এই দিনে ইতিহাসের এই দিনে

ইতিহাসের এই দিনে

ইতিহাসের এই দিনে

আজ (বুধবার) ১৫ নভেম্বর’২০১৭

১৬৩০ সালের এই দিনে জার্মানীর বিশিষ্ট নক্ষত্রবিদ জোহান্নেস কেপলার ৫৯ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন। ১৫৭১ সালে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। জোহান্নেস কেপলার পড়ালেখা শেষ করার পর অস্ট্রিয়ায় যান এবং শিক্ষকতা শুরু করেন।পরবর্তীকালে কেপলার ডেনমার্কের বিখ্যাত নক্ষত্রবিদ তিকু ব্রাহার সাথে পরিচিত হন এবং ধীরে ধীরে নক্ষত্র বিদ্যার প্রতি আকৃষ্ট হন। কেপলার বছরের পর বছর ধরে এ বিষয়ে ব্যাপক পড়ালেখা এবং চিন্তা-গবেষণা করেন। এই নক্ষত্রবিদের গবেষণারই ফল হলো গ্রহ-নক্ষত্রের ঘোরা এবং ডিম্বাকৃতি মঙ্গল গ্রহের ঘোরা আবিষ্কার করা। নক্ষত্রের ঘোরা সংক্রান্ত এই আবিষ্কারটি কেপলার নীতি নামে পরিচিত।নতুন নক্ষত্র নামে তাঁর যে বইটি রয়েছে,ঐ বইটিতে এই তত্ত্বের পরোক্ষ ব্যাপক ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ লক্ষ করা যায়।

১৮৬২ সালের এই দিনে জার্মানীর বিশিষ্ট লেখক গেরর্হার্ড হপম্যান জন্মগ্রহণ করেন। যুবক বয়সেই তিনি লেখালেখি শুরু করেন। তাঁর সর্বপ্রথম গল্পগ্রন্থের নাম হলো পর্বতের সন্তান। তাঁর এই গ্রন্থটি ব্যাপক পাঠক জনপ্রিয়তা পায়।হপম্যানের আরেকটি উল্লেখযোগ্য বই হলো সূর্যোদয়ের আগে।১৯১২ সালে তিনি সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পান। ১৯৪৬ সালে মৃত্যুবরণ করেন।

১৯৮৪ সালের ১৫ই নভেম্বরে জার্মানীর রাজধানী বার্লিনে একটি সম্মেলন শুরু হয়েছিল।ইতিহাসে এই সম্মেলনটি বার্লিন সম্মেলন নামে পরিচিত। সম্মেলনটির মূল বিষয় ছিল আফ্রিকায় ইউরোপীয় উপনিবেশ গুলোকে ভাগ-বণ্টন করা।সম্মেলনটি পরবর্তী বছরের ২৬ ফেব্র”য়ারি পর্যন্ত চলেছিল। ফ্রান্স, বৃটেন, রাশিয়া, বেলজিয়াম, পর্তুগাল, অস্ট্রিয়া এবং জার্মানীর প্রতিনিধিরা এই সম্মেলনে যোগ দেয়।এইসব দেশ আফ্রিকায় তাদের উপনিবেশ বৃদ্ধি করতে চাইলে পরস্পরের মধ্যে মতানৈক্য দেখা দেয়।আর ঐ মতানৈক্যের কারণেই সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সেই সময় প্রচুর প্রাকৃতিক সম্পদ ছিল আফ্রিকায়। তাছাড়া এখানে কৃষ্ণাঙ্গ শ্রমিক ছিল খুবই সস্তা। এই দুই সুযোগকেই ভালোভাবে কাজে লাগিয়েছিল ইউরোপীয় উপনিবেশবাদীরা।বার্লিন সম্মেলনে সিদ্ধান্ত হয়েছিল,ইউরোপীয় যে-কোনো সরকার আফ্রিকার কোনো একটি ভূখ- নিজের দখলে আনতে চাইলে,তা ইউরোপের অন্যান্য সরকারগুলোকে জানাতে হবে। বার্লিন সম্মেলনে এইরকম সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরও আফ্রিকা মহাদেশে উপনিবেশ বিস্তারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ইউরোপীয় সরকারগুলোর মধ্যে যুদ্ধ-সংঘর্ষ আগের মতোই লেগে ছিল।

ফার্সি ১২৯২ সালের এই দিনে ইরানের স্বাধীনতাকামী জাতীয় নেতা সাত্তার খান মৃত্যুবরণ করেন।জাতীয় নেতা ছিল তাঁর উপাধি। সেই যুবক বয়সেই তিনি কাজার শাসকদের অত্যাচারী সেনাদের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে নিজ জন্মভূমি ছাড়তে বাধ্য হন। তাঁর জন্মস্থান হলো ইরানের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় শহর তাব্রিয।তবে তিনি পালিয়ে যান নি বরং অতি শীঘ্রই স্বাধীনতার দাবীতে সর্বপ্রথম আন্দোলন শুরু করেন এবং তাব্রিযে ফিরে আসেন।আজারবাইজান এলাকায় তিনি তাব্রিয অভ্যুত্থানের নেতৃত্ব দেন এবং স্বৈরাচারী মোহাম্মাদ আলী শাহ কাজারের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলেন। তাঁর আন্দোলনের ফলে মুহাম্মাদ আলী শাহ পদচ্যুত হয়। এদিকে তেহরানেও স্বায়ত্তশাসনের দাবীতে আন্দোলনকারীরা বিজয় লাভ করে।বিজয়ের পর আন্দোলনকারীরা সাত্তার খানকে তেহরানে আসার আমন্ত্রণ জানায়। জনতার আমন্ত্রণকে গ্রহণ করে তিনি তেহরান আসেন।তাঁকে সে সময় ব্যাপক সংবর্ধনা দেওয়া হয়। কিন্তু তেহরানে আসার পরপরই সাত্তারখান স্বৈরাচারী শাহ এবং তার সেবাদাসদের বিরোধিতার মুখে পড়েন। অরাজকতা সৃষ্টির দায়ে তাঁকে অভিযুক্ত করা হয়। এর ফলে স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে স্বাধীনতাকামীদের ব্যাপক সংঘর্ষ বেধে যায়। সংঘর্ষে স্বাধীনতাকামীদের বহু সংগ্রামী সদস্য হতাহত হয়। স্বয়ং সাত্তার খান মারাত্মকভাবে আহত হন এবং শেষ পর্যন্ত আজকের দিনে তিনি মারা যান।

১৯৮৬ সালের এই দিনে ইরানের বিশিষ্ট আলেম,গবেষক এবং সাহিত্যিক মুহাম্মাদ তাকি মোদাররেস রাজাভি ৯৫ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন। তিনি ইরানের উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় পবিত্র শহর মাশহাদে জন্মগ্রহণ করেন। তারপর তেহরানে আসেন এবং পড়ালেখা শেষ করে গবেষণা শুরু করার পাশাপাশি ফরাশি ভাষাও শেখেন। তিনি তরুণ গবেষকদের গবেষণা কাজে দিক-নির্দেশনা দেন এবং দেহখোদা অভিধান সম্পাদনার কাজে কিছুটা সময় দেন। দর্শন,যুক্তিবিদ্যা,ফিকাহ এবং ফরাশি ভাষায় তিনি উচ্চ মর্যাদা লাভ করেন। তাঁর কয়েকটি উল্লেখযোগ্য বই হলো খাজা নাসিরুদ্দিন তুসির শিল্পকর্ম,বোখারার ইতিহাস এবং দিওয়ানে আনওয়ারি।

উত্তর ভারতের কাংড়া দুর্গ মোগল স¤্রাট জাহাঙ্গীরের পদানত (১৬২১)
গেরাসিম লিয়েবে দিয়েফের উদ্যোগে বাংলার প্রথম মঞ্চ নাটক ছদ্মবেশী’ মঞ্চস্থ (১৭৯৫)
আইজাক পিটম্যানের শর্টহ্যান্ড পদ্ধতি প্রথম প্রকাশ (১৮৩৭)
ব্রাজিল গণপ্রজাতন্ত্রী রাষ্ট্রে পরিণত (১৮৮৯)
বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নোবেল পুরস্কার লাভ (১৯১৩)
কলকাতা কর্পোরেশনের মুখপত্র মিউনিসিপ্যাল গেজেটের প্রথম সংখ্যা প্রকাশ (১৯২৪)
বাংলাদেশে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন। বিচারপতি আবদুস সাত্তার বিপুল ভোটে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত (১৯৮১)
তুর্কি অধিকৃত সাইপ্রাসের স্বাধীনতা ঘোষণা (১৯৮৩)
তুর্কি অধিকৃত সাইপ্রাসের স্বাধীনতা ঘোষণা (১৯৮৩)

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)