ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ৭ সেকেন্ড

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২ কার্তিক, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ১৭ সফর, ১৪৪১

সম্পাদকীয় ইলিশ যেন নাগালে থাকে

ইলিশ যেন নাগালে থাকে

সম্পাদকীয়

সম্পাদকীয়

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী ১০ বছর আগেও দেশের মাত্র ২১টি উপজেলার নদীতে ইলিশ পাওয়া যেত। এখন ইলিশ ছড়িয়ে পড়েছে দেশের ১২৫টি উপজেলার নদীতে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মা-ইলিশের সুরক্ষা ও ডিম পাড়ার পরিবেশ সৃষ্টি করতে পারায় এ সফলতা এসেছে। পাশাপাশি আছে সরকারের জাটকা নিধন বন্ধ অভিযান। এ দুই কর্মসূচির সফলতাই ইলিশের সংখ্যা বাড়তে বড় ভূমিকা রেখেছে। মা-ইলিশ রক্ষায় ২০১১ সালে যেখানে এক হাজার ৪৪০টি অভিযান চালানো হয়েছিল, সেখানে ২০১৪ সালে চালানো হয় চার হাজার ৩৫৭টি অভিযান। মৎস্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী ২০০২-০৩
অর্থ বছরে দেশে দুই লাখ মেট্রিক টনের কম ইলিশ উৎপাদিত হতো। ২০১৩-১৪ অর্থ বছরে ইলিশ উৎপাদিত হয়েছে তিন লাখ ৮৫ মেট্রিক টন। দেশের প্রায় পাঁচ লাখ মানুষ সরাসরি ইলিশ আহরণে নিয়োজিত। আর ২০ থেকে ২৫ লাখ মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে যুক্ত আছে ইলিশ পরিবহণ, বিক্রয়, জাল ও নৌকা তৈরি, বরফ উৎপাদন, প্রক্রিয়াকরণ ইত্যাদি কাজে। জাটকা রক্ষা, ভরা প্রজনন মৌসুমে এগার দিন ইলিশ আহরণ বন্ধ এবং ইলিশের পাঁচটি অঞ্চলকে অভয়াশ্রম ঘোষণা- এই তিনটি কাজের মধ্য দিয়েই বর্তমানের ব্যাপক সফলতা পাওয়া যাচ্ছে। কয়েক বছর ধরে এসব কর্মসূচি চলায় এখন জেলে সহ সাধারণ মানুষের মধ্যেও সচেতনতা বেড়েছে। আকাশ ছোঁয়া দাম, বাজারেও সব সময় মিলছে না-এক দশক আগেও এমন ছিল ইলিশ মাছের অবস্থা। মেঘনা বা যমুনা তো দূরের কথা, খোদ পদ্মা নদীতেও ইলিশ নেই বলে হাহাকার উঠেছিল। কিন্তু গবেষকদের নির্দেশনা আর পরিকল্পিত একাধিক উদ্যোগ বাঙালির পাতে আবার ফিরিয়ে এনেছে ইলিশকে। মাত্র এক দশকে দেশে ইলিশের উৎপাদন বেড়ে প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। কিন্তু লক্ষ্য রাখতে হবে এর দাম যেন সাধারণ মানুষের নাগালে থাকে। বেশি দামের জন্য মানুষ ইলিশ কিনতে পারে না। উৎপাদন বাড়ার সঙ্গে যেন বাজারে মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে থাকে ইলিশ- সে ব্যাপারে বিশেষ দৃষ্টি থাকতে হবে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)