ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ১৭ সেকেন্ড

ঢাকা সোমবার, ২৪ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ১১ রবিউস-সানি, ১৪৪১

শোক সংবাদ ইহুদী নারীর জীবন রক্ষাকারি সবুজ অার নেই

ইহুদী নারীর জীবন রক্ষাকারি সবুজ অার নেই

ইসমাইল হোসেন স্বপন, নিরাপদ নিউজ: পাঠকদের কেউ কেউ হয়তো সবুজ খলিফাকে মনে রেখেছেন। শরীয়তপুরের নড়িয়া থানার সবুজ খলিফা। ইতালির রোমে বসবাস করতেন। বসবাসের জন্য বৈধ কাগজপত্র তার ছিলনা। সারাদিন ফুল বিক্রি করতেন। পুলিশের চোখ এড়িয়ে পর্যটক এলাকায় ফুল বিক্রি করে জীবন নির্বাহ করতেন সবুজ। ২০১৫ সালের ১২ মে তারিখে নিজের জীবন বাজি রেখে একজন ইহুদি নারীর জীবন বাঁচিয়েছিলেন বাংলাদেশের সবুজ খলিফা। তার দুঃসাহসিক সেই ঘটনায় ইতালীয় পুশিল সবুজকে বীরের উপাধি দিয়েছিল। সরকার পুরস্কার হিসাবে ইতালিতে বৈধভাবে বসবাসের জন্য স্থানীয় ডকুমেন্ট পেরমেচ্ছ দি সোজর্ন দিয়েছিল। ইতালীয় পত্রপত্রিকায় সবুজের বড় বড় ছবি ছাপা হয়েছিল। তার বীরত্বের গল্প ছাপা হয়েছিল। টেলিভিশনগুলোয় সবুজের সাক্ষাৎকার প্রচার হয়েছিল। বাংলাদেশের প্রবাসী বীর সেই সবুজ খলিফা মাত্র ৩৫ বছর বয়সে মারা গেছেন। গত ২২ নভেম্বর, ২০১৮ তারিখে রোমের একটি হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। সবুজের বীরত্বঃ ইতালির রাজধানী রোমের কোলজুড়ে বয়ে গেছে তাইবার নদী। প্রতিদিন হাজার হাজার পর্যটক ওই নদীর তীরে অবগাহন করেন অবারিত সৌন্দর্য লীলায়। নদীর পাশেই পর্যটকদের জন্য সুভেনির সামগ্রীর পসরা সাজিয়ে বসেন অনেকে। কেউ কেউ পর্যটকদের কাছে ঘুরে ঘুরে ফুল বিক্রি করেন। তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজন প্রবাসী বাংলাদেশি যুবক ছিলেন। যাদের অধিকাংশেরই ইতালিতে বৈধভাবে বসবাসের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছিল না। এমনই একজন প্রবাসী যুবক ছিলেন বাংলাদেশের সবুজ খলিফা। নিত্যদিনের মতো ১২ মে, ২০১৫ তারিখের বিকেলটাও ছিল অন্যান্য দিনের মতোই। তাইবার নদীর কুলকুল স্রোতের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে নদীর তীরে পিলপিল করে বাড়ছিল সৌন্দর্যপিপাসু পর্যটকের সংখ্যা। এ সময়ে হঠাৎ? করেই ৫৫ বছর বয়সী এক ইসরায়েলি নারী ঝাঁপিয়ে পড়েন নদীর পানিতে। সাঁতার না জানা ওই নারী ক্রমশ তলিয়ে যেতে থাকেন নদীর গভীরে। এ দৃশ্য দেখে হাজার হাজার পথচারী, পর্যটকরা ভয়ে চিৎ?কার চেঁচামেচি শুরু করেন। অনেকেই ব্যস্ত হয়ে পড়েন মোবাইলে ছবি তুলতে বা ভিডিও করতে। কেউ কেউ পুলিশকে ফোন করেন, দুর্যোগে সাহায্যকারী সংস্থা ভিজিলে দেল ফুওকোকে ফোন করেন। কিন্তু কেউই সাহস করে এগিয়ে যাননি ওই নারীকে উদ্ধার করতে। সে সময় ওখানেই উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের যুবক সবুজ খলিফা। তিনি সাতপাঁচ না ভেবে ঝাঁপিয়ে পড়েন নদীতে। নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে উদ্ধার করেন মৃতপ্রায় ওই ইহুদি নারীকে। এর মধ্যে ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় পুলিশ। তারা ওই নারী ও সবুজ খলিফা- দুজনকেই নিয়ে যায় হাসপাতালে। ইসরায়েলি নারীকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে রেখে পুলিশ সবুজকে নিয়ে আসে স্থানীয় থানায়। জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ জানতে পারে ইতালিতে বৈধভাবে বসবাসের অনুমতি নেই সবুজ খলিফার। পুলিশ কর্মকর্তারা তাৎক্ষণিক বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন রোমের পুলিশ প্রধান ও সরকারের উচ্চ মহলে। তারা পানিতে ঝাঁপিয়ে পড়া ইসরায়েলি নারীকে নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে উদ্ধার করায় সবুজ খলিফাকে ধন্যবাদ জানান। রোম প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এ জন্য সবুজকে পুরস্কৃত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। পরে পুলিশ কর্তৃপক্ষ পুরস্কার হিসেবে সবুজের হাতে তুলে দেন ইতালিতে বৈধভাবে বসবাসের সোনার হরিণ- পেরমেচ্ছ দি সোজর্ন উমানাতারিও।

উল্লেখ্য, সবুজ খলিফা দীর্ঘ দিন অসুস্থ হয়ে রোমের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। গত ২২ নভেম্বর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)