ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট মে ২৮, ২০১৯

ঢাকা বুধবার, ৩ শ্রাবণ, ১৪২৬ , বর্ষাকাল, ১৪ জিলক্বদ, ১৪৪০

সড়ক সংবাদ ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে মানিকগঞ্জ প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি

ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে মানিকগঞ্জ প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি

নিরাপদ নিউজ : ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে মানিকগঞ্জ  প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি। এর মধ্যে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে বসানো হবে ১২৮ সিসি ক্যামেরা। এছাড়া ঈদের তিন দিন আগে ও পরে বন্ধ থাকবে পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার কয়েক লাখ মানুষের যাত্রা নির্বিঘ্ন এমনই ৩০ পদক্ষেপ নিয়েছে প্রশাসন।

মানিকগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহিউদ্দিন আহম্মেদ বলেন, ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে জেলা পুলিশ ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে। পাটুরিয়া ঘাট এলাকাতে ট্রাফিক, জেলা পুলিশসহ সাদা পোশাকে বিপুল সংখ্যক পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে। ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে ১২৮ সিসি ক্যামেরা দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করা হবে। এর মধ্যে পাটুরিয়া ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে আরসিএল মোড় পর্যন্ত থাকবে ১৬টি ক্যামেরা।

যাতে করে মহাসড়কে কোনও ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে এবং ঘাট এলাকাতে যানজট না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখা হবে। এছাড়া শিবালয় থেকে ছোট গাড়ির (প্রাইভেট কার) জন্য আলাদা লেনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আর পাটুরিয়া ঘাট এলাকাতে প্রবেশের জন্য রোড ডিভাইডারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

বাড়তি যানবাহনের চাপ থাকায় ঈদের ৩ দিন আগে ও পরে বন্ধ থাকবে পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার।তবে জরুরি পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার করা হবে।

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়ায় বর্তমান ছোট-বড় মিলিয়ে মোট ১৬টি ফেরি চলাচল করছে। এর সঙ্গে আরও চারটি ফেরি যোগ হবে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন করপারেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) নির্বাহী প্রকৌশলী এনামুল হক অপু জানান, পুরনো ফেরিগুলো মেরামত করে যানবাহন পারাপারের উপযোগী করে তোলা হচ্ছে।

বিআইডব্লিউটিসি আরিচা কার্যালয়ের এরিয়া ম্যানেজার (ডিজিএম) আজমল হোসেন জানান, ঈদের সময় ২০টি ফেরি চলাচল করবে। কোনও ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এবার ঈদে ভোগান্তির আশঙ্কা নেই।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) আরিচা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক (ট্রাফিক) ফরিদুল ইসলাম জানান, ফেরির পাশাপাশি পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ও আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে ৩৪টি লঞ্চ চলাচল করবে।

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনা অনুযায়ী ফেরি ও লঞ্চ ঘাট এবং টারমিনাল এলাকায় আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ, পরিবহন সেক্টরে চাঁদাবাজি বন্ধ করা, গাড়ি পার্কিং ও সিরিয়াল অনুযায়ী গাড়ি পারাপারের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা,পুলিশ টহল, বাস ও লঞ্চের ভাড়া এবং অতিরিক্ত যাত্রী বহন,অপেক্ষমাণ যাত্রীদের জন্য রাতের বেলায় নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ ও অস্থায়ী টয়লেট স্থাপন,লঞ্চে প্রয়োজনীয় সংখ্যক লাইফ জ্যাকেট ও বয়া রাখার ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়।এছাড়া ফেরি ও লঞ্চঘাট এলাকায় সার্বক্ষণিক বিদুৎ সরবরাহ নিশ্চিত এবং কন্ট্রোলরুম স্থাপনেরও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

ঈদের প্রস্তুতি প্রসঙ্গে শিবালয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এএফএম  ফিরোজ মাহমুদ জানান, যাত্রাপথে অসুস্থ হয়ে পড়া ব্যক্তিদের সেবা নিশ্চিত করতে পাটুরিয়া ফেরিঘাট এলাকায় কাজ করবে ভ্রাম্যমাণ মেডিক্যাল টিম। এছাড়াও যাত্রী ও পরবিহন চালকদের সুবিধার্থে পাটুরিয়ায় অস্থায়ীভাবে ২০টি শৌচাগার নির্মাণের প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে।

মানিকগঞ্জের পুলিশ সুপার রিফাত রহমান শামীম জানান, ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জ জেলার প্রায় ৩৬ কিলোমিটার অংশে মোতায়েন থাকবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর ৫ শতাধিক সদস্য। সব মিলিয়ে ঘরমুখো যাত্রীদের নিরাপদ যাত্রা নিশ্চিত করতে জেলা পুলিশের চেষ্টার কোনও কমতি থাকবে না।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)