আপডেট মে ২, ২০১৯

ঢাকা মঙ্গলবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ , গ্রীষ্মকাল, ১৫ রমযান, ১৪৪০

ভ্রমন এই প্রচুন্ড গরমে শৈলশহর উটিতে ভ্রমনে এখন উত্তম মৌসম

এই প্রচুন্ড গরমে শৈলশহর উটিতে ভ্রমনে এখন উত্তম মৌসম

নাসিম রুমি, ০২ মে ২০১৯, নিরাপদ নিউজ : নীলগিরি পাহাড়ের রানি উটি। ২২,৪০ মিটার উচ্চতা সাজানো শৈলশহর। একদিকে চা-বাগান, কফি বাগান, অন্যদিকে পাইন-ওকগাছের সারি প্রাকৃতির সৌন্দর্যের এক অন্যন্য নজির গড়েছে।

শহরের মাঝে পাহাড়ঘেরা লেক, ওয়ার্ল্ড হেরিটেজের মুকুটপরা শতবর্ষের ঐতিহ্যবাহী টয়ট্রেন উটির আকর্ষণ আরও বাড়িয়ে তুলেছে। উটিকে ভালোভাবে উপভোগ করতে হলে অন্তত চারদিন এখানে থাকতেই হবে। উটির মূল আকর্ষণ উটি হ্রদ। পাহাড়ের কোলে সবুজ ঘেরা এই হ্রদে। পাহাড়ের কোলে সবুজ ঘেরা এই হ্রদে বোটিংয়ের মজাই আলাদা।

উটির বোটানিক্যাল গার্ডেনে সাংবাদিক, লেখক ও পর্যটক

হ্রদের ধারে রয়েছে বিনোদন পার্ক, টয়ট্রেন, রেস্তোরাঁ। চ্যারিং ক্রস থেকে খানিক দূরে রয়েছে বোটানিক্যাল গার্ডেন। খোলা থাকে সকাল ৭টা থেকে সন্ধে ৬টা পর্যন্ত। প্রবেশমূল্য। বড়দের ৫০ টাকা, ছোটদের ২৫ টাকা। স্টিল ক্যামেরা ৫০ টাকা, ভিডিও ক্যামেরা ১০০ টাকা। পাশের পাহাড়ের গায়ে রয়েছে গোলাপবাগান।

নীলগিরির সর্বোচ্চ শিখর ডোডারেটা ভিউপয়েন্ট (২,৬২৩ মিটার) থেকে কিট্রি ভ্যালির দৃশ্য অসাধারণ। গাড়িভাড়া করে এই স্পটগুলি ঘুরতে খরচ পড়বে ১৫০০- ২৫০০টাকা। দূরের দ্রষ্টব্যগুলি দেখার জন্য এখানে গাড়ি ভাড়া করতে হবে অথবা চাপতে পারেন।

উটির টয়ট্রেন

কন্ডাকটেড ট্যুরের বাসে ব্যবস্থা রয়েছে। দূরের দ্রষ্টব্যের মধ্যে প্রথমে চলুন পাইকারা হ্রদে। উটি থেকে মাইসোর যাওয়ার পথে ২১ কিলোমিটার দূরে এর অবস্থান। হ্রদের নিরালা প্রাকৃতির মাঝে বোটিং করা যায়। এখানে হ্রদ ছাড়াও দেখবেন পাইকারা বাধঁ আর পাইকারা ঝরনা। যাত্রাপথে দেখবেন শ্যুটিংস্পট, পাইনবন।

নাসিম রুমি, সাংবাদিক, লেখক ও পর্যটক

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)