আপডেট ২১ মিনিট ২৬ সেকেন্ড

ঢাকা সোমবার, ৭ কার্তিক, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ২২ সফর, ১৪৪১

বিনোদন, সাক্ষাৎকার এক বছরের মধ্যে শিল্পী সমিতির কিছু পরিবর্তন ঘটবে-মিশা

এক বছরের মধ্যে শিল্পী সমিতির কিছু পরিবর্তন ঘটবে-মিশা

অভিনেতা ও শিল্পী সমিতির বর্তমান সভাপতি মিশা সওদাগর

নাসিম রুমি, ১১ জুন ২০১৭, নিরাপদ নিউজ : নাম তার মিশা সওদাগর। দেড়যুগেরও অধিক সময় নায়ক হয়ে চলচ্চিত্রে তার আগমন ঘটেছিল। কিন্তু নায়ক হয়ে তার সাফলতা আসেনি। খল নায়ক হয়ে তিনি অত্যন্ত জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। বর্তমানে মিশাকে নাম্বার ওয়ান খলনায়ক হিসাবে চিহ্নিত করা হয়। একজন সফল অভিনেতার পাশাপাশি তিনি এবার শিল্প সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। তার কাঁধে এখন শিল্প সমিতির পুরো দায়িত্ব। একজন সফল খল নায়কের পাশাপাশি শিল্পীসমিতির সভাপতি হিসাবে তিনি কতটুকু সফলতা অর্জন করতে সক্ষম হন, তার প্রমান পাওয়া যাবে আগামীতে তার কর্মকান্ডে । সম্প্রতি তার সঙ্গে বিভিন্ন প্রসঙ্গে কথা হয় তা পাঠকদের উদ্দেশে তুলে ধরা হল ।
প্রশ্ন- গত ৫ মে নির্বাচনে আপনার পরিষদ গৌরবময় বিজয় অর্জন করেছে। আপনি সভাপতি এবং জায়েদ খান সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। এখন আপনারা যে ২১ টি প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তা পূর্ণ করতে হবে ?
উত্তর- প্রতিশ্রুতি অবশ্যই রক্ষা করবো। কারণ আমাদের সাধারণ ভোটাররা অনেক আশা নিয়েই ভোট দিয়ে জয়ী করেছেন। তবে সব প্রতিশ্রুতি তো এক সঙ্গে করা যাবেনা। সবাই কে সঙ্গে নিয়ে এক সঙ্গে কাজ করে চলচিত্রকে উন্নতির দিকে এগিয়ে নিয়ে যাব। এই জন্য আমি সবার সহযোগিতা কামনা করছি। সবার সহযোগিতা না পেলে চলচিত্রকে এগিয়ে নেওয়া সম্ভব হবেনা ।

নির্বাচনের আগে ভোট চাচ্ছেন এটিএম শামসুজ্জামান ও নিরাপদ নিউজের সিনিয়র রিপোর্টার নাসিম রুমির কাছে

প্রশ্ন- আপনাদের এই গৌরবময় বিজয়ে সিনিয়ার শিল্পীদের কি বিশেষ ভূমিকা ছিল ?
উত্তর- আমরা সকল সিনিয়র গুণী অভিনেতার বাসায় গিয়ে সরাসরি এবং ফোনের মাধ্যমে তাদের সহযোগিতা কামনা করেছি। তাদের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম জয়ী হলে চলচিত্রের এমন অব¯হা থেকে রক্ষা করবো। সিনিয়র শিল্পীরা আমাদের সমর্থন দিয়েছিলেন। আমাদের এই বিজয়ের মধ্যে সিনিয়র শিল্পীদের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। তাদের কাছে বর্তমান কার্যকরী পরিশোধ চির কৃতজ্ঞ।
প্রশ্ন- আগামী দুই বছরের জন্য দায়িত্ব পেয়েছেন। এই দুই বছরের শিল্পী সমিতির কতটুকু উন্নত হবে?
উত্তর- নির্বাচনি ইশতেহারে আমাদের পরিকল্পনার কথা বলেছি। সিনিয়র শিল্পীদের নিয়ে একটি শক্তিশালী উপদেষ্টা গঠন করবো। তাদের দিক নির্দেশনাকে আমরা অবশ্যই মূল্যায়ন করবো। সত্যি কথা বলতে কি আগামী এক বছরের মধ্যে শিল্পী সমিতির নতুন রূপে ফিরে আনবো।

প্রশ্ন- বর্তমানে চলচিত্রে বিভিন্ন সমস্যা দেখা দিচ্ছে। এই বিষয় গুলিকে কিভাবে দেখেছেন?
উত্তর- চলচিত্রের যতগুলি সমিতি আছে সবাইকে নিয়েই ঈদের পরে আমরা আলোচনায় বসবো এবং সমস্যা গুলি কি ভাবে মোচন করা যায় তা নিয়ে সব সমিতি মিলেমিশে কাজ করবো। শুধু শিল্পী সমিতির পক্ষে চলচিত্রের সকল সমস্যা মোচন করা সম্ভব নয়।
প্রশ্ন- অসহায় শিল্পীদের জন্য আপনাদের কোন কিছু করার পরিকল্পনা রয়েছে কি ?
উত্তর- আমাদের পরিকল্পনা রয়েছে অসহায় শিল্পীদের জন্য সরকারী অনুদান সংগ্রহ করা। তাছাড়া আমরা সমিতির পক্ষ থেকেও তাদের সাহায্য করবো।

শিল্পী সমিতির বর্তমান সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানের সঙ্গে মিশা

প্রশ্ন- বর্তমানে শিল্পী সমিতির তহবিলের পরিমান কেমন ?
উত্তর- যা আছে তাতে আমি সন্তুষ্ট নই। আমার পরিকল্পনা রয়েছে এক-দেড় কোটি টাকার একটা ফান্ড করবো। অর্থটা আয় করবো একাধিক প্রোগ্রাম করে ।
প্রশ্ন- আপনি গত নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে পরাজিত হয়েছিলেন। এবার সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। এ প্রসঙ্গে কিছু বলুন?
উত্তর- সাধারণ সম্পাদক পদে পরাজিত হওয়ার অন্তরালে একাধিক কারণ ছিল। সেই বিষয় নিয়ে এখন আর আমি কোন মন্তব্য করে কাউকে কষ্ট দিতে চাইনা। তবে শুধু এতটুকু বলছি আমার সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছিল। যার জন্য আমি পরাজিত হয়েছিলাম। খুব কাছের মানুষও আমার সঙ্গে বিশ্বাস ভঙ্গ করেছে।তাই আমি প্রতিজ্ঞা করেছিলাম আগামী নির্বাচনে আমি সভাপতি পদে প্রার্থী হব। সৃষ্টি কর্তার আশীর্বাদে আমি সভাপতি পদে প্রার্থী হয়েছি এবং বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছি। এখন আমি সবার সহযোগিতা চাই।
প্রশ্ন- আপনার কার্যকরী পরিষদ নিয়ে কি আপনি সন্তষ্ট ?
উত্তর- অবশ্যই সন্তষ্ট।

নির্বাচনে জয়ী হয়ে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন ওমর সানীকে সভাপতি মিশা

বিশেষ করে সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান অনেক পরিশ্রমী। সে চলচিত্রের উন্নয়নের জন্য নিবেদিত প্রান। অবশ্য যাহারা আছেন তারা সবাই শিল্পীসমিতিকে ভালোবাসেন এবং শিল্পী সমিতিকে একটা মর্যাদা পূর্ণ স্থানে নিয়ে যেতে চায়। এমন কি ওমরসানীও বলেছে আমাদের পাশে আছে। নির্বচনে জয়ী হয়ে আমি তার বাসায় ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছিলাম।
প্রশ্ন- এবার বলুন আপনার চলচিত্রে অবস্থান কেমন ?
উত্তর- আল্লাহর রহমতে আমার চলচিত্রের অবস্থান এক যুগ ধরে ভালো অবস্থানে রয়েছে। আমি কিন্তু নেগেটিভ চরিত্রে অভিনয় করিনা । মাঝে মধ্যে পজেটিভ চরিত্রে অভিনয় করি।
প্রশ্ন- যৌথ প্রযোজনা ছবির সম্পর্কে আপনার মন্তব্য কি ?
উত্তর- যৌথ প্রযোজনা ছবি নির্মানে আমার কোন আপওি নেই। তবে সরকারী নীতিমালা সঠিক প্রয়োগ করে যৌথ প্রযোজনা ছবি নির্মাণ করতে হবে। যৌথ প্রযোজনা ছবিতে আমাদের শিল্পী ও কলাকৌশলীদের অবশ্যই সঠিক মূল্যায়ন করতে হবে।

 

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)