ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট June ২, ২০১৬

ঢাকা শুক্রবার, ৩০ কার্তিক, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ১৭ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১

লিড নিউজ, শেয়ার বাজার এবার শেয়ারবাজার জেগে ওঠার প্রত্যাশায় অর্থমন্ত্রী

এবার শেয়ারবাজার জেগে ওঠার প্রত্যাশায় অর্থমন্ত্রী

বৃহস্পতিবার আগামী অর্থবছরের বাজেট উপস্থাপনকালে তিনি এ কথা বলেন।

বৃহস্পতিবার আগামী অর্থবছরের বাজেট উপস্থাপনকালে তিনি এ কথা বলেন।

০২ জুন, ২০১৬, নিরাপদনিউজ : শেয়ারবাজারের জন্য নির্ধারিত কোন প্রণোদনা দেয়া না হলেও পুঁজিবাজার এবার জেগে উঠবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন অর্থমন্ত্রী। বৃহস্পতিবার আগামী অর্থবছরের বাজেট উপস্থাপনকালে তিনি এ কথা বলেন।

এবারের বাজেটে পুঁজিবাজারের মার্জিন ঋণ ও সুদ (১০ লাখ টাকা পর্যন্ত) মওকুফজনিত সুবিধার করযোগ্যতা থেকে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদেরকে অব্যাহতি প্রদান করার প্রস্তাব করা হয়েছে। কিন্তু বিনিয়োগকারীদের দাবির পরও করমুক্ত লভ্যাংশের সীমা বাড়ানো হয়নি। নতুন কোন প্রণোদনা বা ছাড় কিছুই দেয়া হয়নি।

মন্ত্রী বলেন, দেশের শেয়ারবাজার এখন নিয়মমাফিকভাবে পরিচালিত হচ্ছে এবং স্থিতিশীলতা এসেছে। একই সঙ্গে ফটকাবাজির (কারসাজিমূলক লেনদেন) অবসান এবং নির্মূল হয়েছে। এ কারণে শেয়ারবাজার এবার জেগে উঠবে। তিনি বলেন, পুঁজিবাজারে শৃঙ্খলা বজায় রাখা, বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ রক্ষা, সিকিউরিটিজ আইন প্রতিপালন ও প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিভিন্ন সংস্কার কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্ট মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয়েছে।

এছাড়া বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (পাবলিক ইস্যু) রুলস, ২০১৫ প্রণয়ন করা হয়েছে। এতে অভিহিত মূল্যে আইপিও’র জন্য ফিক্সড প্রাইস পদ্ধতি এবং প্রিমিয়ামসহ আইপিও’র জন্য বুকবিল্ডিং পদ্ধতির বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হয়েছে। বর্তমানে বছরে প্রায় ১৪ হাজার কোটি টাকা উত্তোলিত হয়ে নানা খাতে ব্যবহৃত হচ্ছে, যা অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখছে।

নিরীক্ষা কার্যক্রমে শৃঙ্খলা আনতে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর জন্য নিরীক্ষকদের একটি প্যানেল প্রকাশ করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন অর্থমন্ত্রী। তিনি বলেন, পুঁজিবাজার বিষয়ক মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য গঠিত বিশেষ ট্রাইব্যুনালের কার্যক্রম শুরু হয়েছে।
পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের জন্য গঠিত সহায়তা তহবিল হতে এ পর্যন্ত ৬৩৭ কোটি টাকা বিতরণ করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ প্রদানে বিএসইসি’র সঙ্গে ভারতের সিকিউরিটিজ ও এক্সচেঞ্জ বোর্ডের একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে, যা কমিশনের সক্ষমতা বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখবে। এছাড়া পুঁজিবাজারের সার্বিক উন্নয়ন ও সংস্কারের জন্য এডিবির সহায়তায় একটি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। পুঁজিবাজার আর্থিক খাতের একটি স্তম্ভ হিসেবে বিকশিত হবার জন্য প্রস্তুত।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)