ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ৯ মিনিট ২১ সেকেন্ড

ঢাকা শনিবার, ৪ কার্তিক, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ১৯ সফর, ১৪৪১

বহির্বিশ্ব, মানবাধিকার সংবাদ কল্পনার চেয়েও বিস্ময়কর বাস্তব!

কল্পনার চেয়েও বিস্ময়কর বাস্তব!

s38

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 
নিরাপদ নিউজঃ কল্পনা যে পথ মাড়াতে সাহস পায় না, বাস্তবতা সে পথে ঘোড়া দাবড়ায়। আমাদের বাস্তব জগতের ঘটনা কখনো কখনো আমাদের সবচেয়ে সৃজনশীল কল্পনার সীমাও ছাড়িয়ে যায়। এ ব্যাপারে ফিলিপ রথের একটি বিখ্যাত অভিযোগ আছে, ‘বাস্তবতা সব সময়ই আমাদের মেধার পরিসর ছাড়িয়ে যায়।’ অনেক ঔপন্যাসিকও হয়তো এরূপ ঘটনার অবতারণা করতে সাহস পাবেন না, পাছে তা অদ্ভুত বা অতিকাল্পনিক লাগে। আমার এ প্রত্যয়ের সর্বশেষ প্রমাণ হচ্ছে, ‘সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধে’ সিআইএর ব্যবহৃত নির্যাতন কৌশল নিয়ে সিনেটের প্রতিবেদন। হ্যাঁ, হলিউডি ছবিতে আমরা বল্গাহীন কল্পনার ফল্গুধারা ছুটতে দেখেছি। কিন্তু কখনোই ‘পায়ুপথে পানি ঢালা’র মতো কিছু নিশ্চয়ই দেখিনি। এটা আসলে মধ্যযুগীয় কৌশল, পায়ুপথে ধর্ষণ করার শামিল। এর ফলে অন্ত্র ফুলে যায়। আর পেটের ভেতরে প্রচণ্ড ব্যথা হয়। ২৪ শীর্ষক অনুষ্ঠানের দর্শকেরা হয়তো ওয়াটারবোর্ডিংয়ের দৃশ্য দেখে সহ্য করতে পারেন, কিন্তু একজনের ওপর যখন এক মাসে ১৮৩ বার তা প্রয়োগ করা হয়, তখন তা সহ্য করা খুবই দুরূহ। খুব কম টিভি প্রযোজকই এ দৃশ্য দেখানোর সাহস করবেন যে, বন্দীকে অমানুষিক নির্যাতনের ফলে তদন্তকারীর অঙ্গুলি হেলনে সে আবারও উঠে ওয়াটারবোর্ডিংয়ের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে। আমি এই অপরাধীদের বিচারের মুখোমুখি করতে চাই। ওদিকে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক অধিকার ইউনিয়নের প্রধান বারাক ওবামাকে অনুরোধ করেছেন, তিনি যেন এর সঙ্গে যুক্ত সবাইকে ক্ষমা করে দেন। ভাবখানা এমন যে এঁদের ক্ষমা পাওয়ার অন্তর্নিহিত অধিকার রয়েছে। তাঁদের যুক্তি হচ্ছে, এই ক্ষমা করা হলে অন্তত এটা প্রতিষ্ঠিত হবে যে অপরাধ হয়েছে। আর ভবিষ্যতে এর পুনরাবৃত্তি রোধে আইনি নজির স্থাপন সম্ভব হবে। কিন্তু আমার কথা হচ্ছে, এর বিচার হলে তা আরও জোরালো নজির স্থাপন করবে। এই প্রতিবেদন আমরা কীভাবে ধর্তব্যের মধ্যে নেব বা এর ফল কী হবে, এখন সেই প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। ভাষা ও সুভাষণের যে অনুভূতিশূন্যকরণের ক্ষমতা আছে, সেদিকে নজর দিতে হবে। খেয়াল করে দেখুন, সিআইএর পরিচালক বৃহস্পতিবার এই প্রতিবেদনের বিষয়ে যুক্তি খণ্ডন করতে গিয়ে কিন্তু নির্যাতন শব্দটা উচ্চারণ করেননি। এর বদলে তিনি বলেছেন, ‘জিজ্ঞাসাবাদের ব্যাপ্ত কৌশল’। ফলে, এটার সুফল-কুফল নিয়ে আলোচনা করা কোনো সমস্যা নয়। এই ভাষা তাঁর নিচের স্তরের কর্মচারীরাও আয়ত্ত করেছেন। তাঁরা বলেন, ‘মনোযোগ ধরা’ ও ‘শীতল প্রকোষ্ঠ’, কিন্তু বন্দীদের ধাক্কা মারা বা জমাট বাঁধা তাপমাত্রায় তাদের নগ্ন করে দাঁড় করিয়ে রাখার বিষয়ে কিছু বলেন না। ‘পায়ুপথে পানি সিঞ্চন’ এ শব্দবন্ধটিই একটি সুভাষণ। যেমন ‘নৃতাত্ত্বিক উৎখাত’ শব্দবন্ধটিও একটি সুভাষণ। আসলে বক্তা ও শ্রোতার মধ্যে একটি দূরত্ব সৃষ্টি করার জন্য এসব শব্দবন্ধ তৈরি করা হয়েছে।
ব্রিটেনে আমরা এখনো ২০০৩ সালের ইরাক দখলে আমাদের অংশগ্রহণবিষয়ক চিলকট তদন্তের ফলাফলের অপেক্ষায় আছি, যেটা ছিল নয়-এগারোর পরিণতি। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর আমাদের সময়ের সবচেয়ে প্রভাবশালী ঘটনাটি ঘটে, আজ প্রায় দেড় দশক পরও এর প্রভাব অনুভূত হচ্ছে। আমরা এখনো সেই দুটি ধ্বংসপ্রাপ্ত ভবনের ছায়ায় বসবাস করছি। প্রতিটি তদন্তেই দেখা যাচ্ছে, ইরাক দখল ও সামগ্রিকভাবে ‘সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধ’ কী সব মারাত্মক ভুলের জন্ম দিয়েছে। সিনেটের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নয়-এগারোর ঘটনায় ভীতসন্ত্রস্ত একটি সংস্থা যাদের জিজ্ঞাসাবাদে কোনো রকম অভিজ্ঞতা নেই, তারা এমন এক পন্থা অবলম্বন করেছিল, যা ইতিহাসের পাতায় শুধু অনৈতিকই নয়, অকার্যকর হিসেবেও চিহ্নিত হয়েছে। সহজভাবে বললে, নির্যাতনে কোনো কাজ হয় না। এতে কোনো ফল পাওয়া যায় না। মানুষ নির্যাতন এড়াতে ভুল তথ্য দিয়ে থাকে। এতে শত্রুপক্ষই লাভবান হয়। নির্যাতকের কাজে অসন্তুষ্ট হয়ে নির্যাতিতরা তার বিরুদ্ধে একত্র হয়। আবু গারাইব কারাগার কীভাবে মার্কিন দখলদারের বিরুদ্ধে ইরাকে প্রতিরোধ সৃষ্টি করেছিল, সেদিকে একবার খেয়াল করুন। (ইংরেজি থেকে সংক্ষেপিত অনুবাদ: প্রতীক বর্ধন; দ্য গার্ডিয়ান থেকে নেওয়া, জোনাথন ফ্রিডল্যান্ড: দ্য গার্ডিয়ানের নির্বাহী সম্পাদক। )
ছবি-এস-৩৮

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)