আপডেট অক্টোবর ৮, ২০১৭

ঢাকা সোমবার, ১ শ্রাবণ, ১৪২৫ , বর্ষাকাল, ১ জিলক্বদ, ১৪৩৯

বিনোদন কিছু ক্ষোভ রয়েছে যার কারণে এফডিসিতে আসা হয় না: এটিএম শামসুজ্জামান

কিছু ক্ষোভ রয়েছে যার কারণে এফডিসিতে আসা হয় না: এটিএম শামসুজ্জামান

এটিএম শামসুজ্জামান

০৮ অক্টোবর, ২০১৭, নিরাপদ নিউজ : গুণী অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান, দেশের বর্ষীয়াণ অভিনেতাদেরও একজন। সুদীর্ঘ অভিনয় জীবনে দর্শকপ্রিয় বহু ছবিতে অভিনয় করেছেন। পরিচালক, কাহিনিকার, চিত্রনাট্যকার, সংলাপ রচয়িতা হিসেবেও সুনাম কুড়িয়েছেন তিনি। কিন্তু ঘটনাটা বিস্ময়কর হলেও সত্য। তার প্রিয় এফডিসিতে সহশিল্পীর বিদায় জানাতে এখন শুধু এফডিসিতে আসতে হয়।

আর শিল্পী সমিতিতে দীর্ঘ ১৫ বছর পর পা রেখেছেন গত ৭ অক্টোবর। তাও একটি সিনেমায় শুটিং’কে কেন্দ্র করে। শাকিব খান-অপু বিশ্বাস জুটির ‘পাঙ্কু জামাই’ ছবিতে একটি চরিত্রে অভিনয় করছেন তিনি। তবে সর্বশেষ এফডিসিতে এসেছিলেন তাও মাস ছয়েক আগে। গতকাল যে সময় এফডিসি’তে আসেন তিনি সে সময় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির কার্যালয়ে ছিলেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান।

আর শুটিংয়ের বিরতিতে কার্যালয়ে নিয়ে আসেন জনপ্রিয় এ অভিনেতাকে। তখন শিল্পী সমিতির পারিপ্বার্শিক পরিবেশের প্রশংসা করেন তিনি। এটিএম বলেন,‘শিল্পী সমিতির পরিবেশ দেখে খুব ভালো লাগছে। আগে যা দেখেছি তার চেয়ে হাজার গুণ উন্নতি হয়েছে। আগামীর দিনগুলো এই সমিতি আরো ভালো কাজ করবে এটাই প্রত্যাশা করছি।’

এরপর সন্ধ্যার দিকে গিয়ে শিল্পী সমিতিতে তার দেখা মেলে। তিনি বলেন, ‘এখন যারা এখানে বসেন, তাদের অনেকেই আমার সম্পর্কে জানেন না। আমিও তাদের সম্পর্কে জানি না। তাই শুধু সালাম বিনিময় করার জন্য আর আসতে ইচ্ছে হয় না।’ গুণী এই অভিনেতাকে এখন আর সিনেমায় অভিনয়ে সেভাবে দেখা মেলে না। তবে নাটকে নিয়মিত অভিনয় করছেন। সন্ধ্যার পর এফডিসিতে শিল্পী সমিতির কার্যালয়ে বসে কথা হচ্ছিল জনপ্রিয় এ অভিনেতার সঙ্গে।‘অনেকদিন পরেই তো আজ এফডিসিতে আসলেন?’ আর বললেন, ‘কারও মৃত্যু হলে আসি এফডিসি’তে। আর এসে শিল্পী সমিতিতে বসে কথা বলব, যারা থাকেন তারা বেশিরভাগই আমার সম্পর্কে জানেন না। আমিও তাদের সম্পর্কে জানি না। শুধু জানে এই বৃদ্ধ লোকটা অভিনয় করতে জানে। তাদের সঙ্গে সালাম বিনিময় ছাড়া আর কোন কাজ আমার থাকে না। কাজেই যারা থাকেন তাদের সঙ্গে আমি কি আলাপ করব? চিনলে, জানলে-পরস্পর কথা বিনিময় হয়। কোন বিষয় নিয়ে আলাপ-আলোচনা হয়। এফডিসিতে আজ আসলাম তাও প্রায় ছয় মাস পর। আর আমার কিছু ক্ষোভ রয়েছে, যার কারণে নিয়মিত এফডিসি আসা হয় না।’

শিল্পী সমিতির কার্যালয়ে তখন সাধারণ সম্পাদকের চেয়ারে বসা ছিলেন সমিতির সাধারন সম্পাদক ও নায়ক জায়েদ খান। তাকে উদ্দেশ্য করেই তিনি বলেন, ‘এর আগেও অনেকে এ চেয়ারে বসেছে। আমি দেখেছি-এখানে সমিতিতে খাওয়া, দাওয়া করে গল্প করে পরচর্চা করে, পরনিন্দা করে। এগুলোতে শোনার জন্য আমার সময় নাই। আমি পরনিন্দা ও পরচর্চা করতে রাজি নই। যদি ভাল কিছু হয় তাহলে আমি আছি।’

এটিএম শামসুজ্জামানের চলচ্চিত্র জীবনের শুরু ১৯৬১ সালে পরিচালক উদয়ন চৌধুরীর ‘বিষকন্যা’ চলচ্চিত্রে সহকারী পরিচালক হিসেবে। প্রথম কাহিনি ও চিত্রনাট্যকার হিসেবে কাজ করেছেন ‘জলছবি’ ছবিতে। এ পর্যন্ত শতাধিক চিত্রনাট্য ও কাহিনি লিখেছেন।

প্রথম দিকে কৌতুক অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্র জীবন শুরু করেন তিনি। অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্র পর্দায় আগমন ১৯৬৫ সালের দিকে। ১৯৭৬ সালে চলচ্চিত্রকার আমজাদ হোসেনের ‘নয়নমণি’ ছবিতে খলনায়কের চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে আলোচনায় আসেন তিনি। এরপর থেকে সে ধারাবাহিকতা বজায় রেখেই কাজ করে চলছেন।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)