ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট জুন ১৮, ২০১৫

ঢাকা রবিবার, ৭ শ্রাবণ, ১৪২৬ , বর্ষাকাল, ১৮ জিলক্বদ, ১৪৪০

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন, বিলিভ ইট অর নট গবেষণায় ভয়ানক তথ্যঃ শতকরা ৬০ জনের টুথব্রাশেই থাকে মল!

গবেষণায় ভয়ানক তথ্যঃ শতকরা ৬০ জনের টুথব্রাশেই থাকে মল!

 হ্যাঁ, ঠিকই পড়ছেন। সম্প্রতি ক্যুইনিপিয়াক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায় এমন ভয়ানক তথ্যই উঠে এসেছে


হ্যাঁ, ঠিকই পড়ছেন। সম্প্রতি ক্যুইনিপিয়াক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায় এমন ভয়ানক তথ্যই উঠে এসেছে

১৮ জুন ২০১৫, নিরাপদ নিউজ : সকালে ঘুম থেকে উঠেই যে সব গুরুত্বপূর্ণ জিনিসের প্রতি আগে খেয়াল করেন তার মধ্যে সবার উপরেই থাকে টুথব্রাশ। অফিস যাওয়ার তাড়ায় হোক বা ছুটির দিনে ঘুম চোখে, পেস্ট লাগিয়ে ব্রাশ করাটা তো নিত্যকর্তব্য। কিন্তু যে ব্রাশ দিয়ে দাঁত মাজছেন তাতে মল নেই তো? দেখে খুঁজে না পেলেও শতকরা ৬০ জন লোকের ব্রাশেই এই বস্তুর উপস্থিতি লক্ষ্য করা গিয়েছে।

হ্যাঁ, ঠিকই পড়ছেন। সম্প্রতি ক্যুইনিপিয়াক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায় এমন ভয়ানক তথ্যই উঠে এসেছে। সেখানে দেখা গিয়েছে, প্রতিদিন ব্রাশ করার সময় মুখে জমে থাকা খাবারের কণা এবং মুখগহ্বরের মাইক্রোস্ক্র্যাপ জমা হয় ব্রাশের ব্রিসিলের গোড়ায়। যা জমে জমে ক্রমে বিষ্ঠারই অন্যরূপ হয়ে ওঠে। এর থেকে যে জীবাণু জন্ম নেয় তা মলে থাকে। স্ট্যাফিলোকোকাস অরেসাস, হার্পিসের মতো জীবাণু কখন যে আপনার ব্রাশে বাসা বাঁধছে তা নিজেও জানতে পারছেন না। গবেষণায় আরও জানা গিয়েছে, এই জীবাণু থেকে হেপাটাইটিসের মতো রোগও হতে পারে।
অনেকে টুথব্রাশে ক্যাপও ব্যবহার করেন। তবে তাতে লাভের লাভ বিশেষ হয় না। জীবাণুদের আটকাতে তা কোনও কাজেই আসে না। অধ্যাপক লরেন অ্যালবার জানাচ্ছেন, ‘যারা ব্রাশে ক্যাপ ব্যবহার করেন তারা জানতেও পারছেন না যে এতে ব্রাশে জীবাণুদের স্বর্গরাজ্য তৈরি হয়। কারণ এতে দীর্ঘক্ষণ ব্রিসিল ভিজে থাকে।

দ্বিতীয়বার ব্যবহার করার মধ্যে ব্রিসিল ভালো করে শুকিয়ে নেওয়া খুব প্রয়োজন।’ তিনি আরও জানান, মাস খানেক অন্তর ব্রাশ পাল্টে নেওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ। ব্রাশ করার পরে তা ভালো করে ধুয়ে নেওয়াও খুব জরুরি। সপ্তাহে অন্তত এক বার খানিকটা জলে একটু মাউথওয়াশ দিয়ে ব্রাশ ডুবিয়ে রাখুন। এতে নীচে জমে থাকা ময়লা অনেকটা পরিষ্কার হবে। উপরন্তু মাউথওয়াশের অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল পদার্থ জীবাণুদের নষ্ট করতে সাহায্য করে।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)