আপডেট ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮

ঢাকা রবিবার, ২৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ৯ রবিউস-সানি, ১৪৪১

রংপুর গাইবান্ধায় ভোটারদের আকৃষ্ট করতে প্রতিশ্রুতির ভান্ডার

গাইবান্ধায় ভোটারদের আকৃষ্ট করতে প্রতিশ্রুতির ভান্ডার

তোফায়েল হোসেন জাকির,নিরাপদ নিউজ : সম্প্রতি নির্বাচনী হওয়া বইতে শুরু করেছে। পৌষের শীত উপেক্ষা করে ভোটারদের মাঝে নানা প্রতিশ্রুতির ভান্ডার নিয়ে হাজির হচ্ছে প্রার্থীরা। বেটী-জামাই আদরে কুশল বিনিময়ে ভোটারদের আকৃষ্ট করতে বিভিন্ন ধরণের বুলি ছাড়ছেন প্রার্থীরা।

আসছে ৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচন। এ নির্বাচনের বিজয় ছিনিয়ে নিতে ইতোমধ্যে গাইবান্ধা জেলার ৫টি আসনের ৩৮ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ভোট প্রার্থনায় আশ্বাসের ফুলঝুড়ি নিয়ে নির্বাচনে লড়ছেন। সবমিলে নির্বাচনী উৎসবে ফুঁসে উঠেছে গাইবান্ধায়। জেলার হাট-বাজার, গ্রাম-গঞ্জের রাস্তার উপরে দুলছে প্রার্থীদের প্রতীকি পোষ্টার।

বিকট শব্দে চলছে মাইকিং। নিজেদের উন্নয়নের ভান্ডার জাহির করতে লিফলেট বিতরণসহ পথসভা, উঠান বৈঠক অব্যহত রেখেছেন প্রার্থীরা। এসময় ভোটারদের জীবন মানোন্নয়নে নানা আশ্বাস দিচ্ছেন প্রার্থীরা। সবমিলে ভোটারেরা এখন জামাই আদরে রয়েছে। নারী ও নতুন ভোটররা হয়েছে যেন সোনার হরিণ। নতুন ভোটারদের কদর বাড়ছে বলে একাধিক ভোটার জানান।

দিন যতই ঘনিয়ে আসছে প্রচার-প্রচারণা ততই সরব হয়ে উঠেছে। থেমে নেই প্রার্থীরা। কোমর বেধে বিরামহীন গতিতে চালিয়ে যাচ্ছেন গণসংযোগ। তাদের কর্মী-সমর্থক নিয়ে ভোরে সূর্য উঠার সাথে সাথেই বেড়িয়ে পড়ছেন ভোট প্রার্থনায়। দিন শেষে রাত পর্যন্ত ভোট ভিক্ষায় নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন।

এছাড়াও অনেক প্রার্থী একাধিক ফেসবুক একাউন্ট খুলে নিজেকে সৎ নির্ভীক হিসেবে জাহির করা সহ নানা ধরণের স্ট্যাটাস পোষ্ট করছেন।

এদিকে সাধারণ ভোটারদের অভিযোগ, নির্বাচন উপলক্ষে দলীয় নেতাকর্মীদের পকেট ভারী হলেও আমাদের কপালে এক কাপ চা পর্যন্ত জুটছে না। তাই ভোটারদের শ্লোগান- “কেউ খাবে কেউ খাবে না, তা হবে না তা হবে না”।

গাইবান্ধা জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান জানান, গাইবান্ধা জেলার ৫টি সংসদীয় আসনে মোট ভোটার ১৭ লাখ ৮৪ হাজার ৫৮৬ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৮ লাখ ৭০ হাজার ৯৬০ ও নারী ভোটার ৯ লাখ ১৩ হাজার ৬২৬ জন। নির্ধারণকৃত ৬০৫টি ভোট কেন্দ্রে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)