আপডেট ৮ মিনিট ২ সেকেন্ড

ঢাকা মঙ্গলবার, ২ শ্রাবণ, ১৪২৬ , বর্ষাকাল, ১৩ জিলক্বদ, ১৪৪০

চট্টগ্রাম গ্যাসের দাম বৃদ্ধির অজুহাতে কর্ণফুলীতে সিএনজি ভাড়া বৃদ্ধি ও ধর্মঘটে তীব্র অসন্তোষ

গ্যাসের দাম বৃদ্ধির অজুহাতে কর্ণফুলীতে সিএনজি ভাড়া বৃদ্ধি ও ধর্মঘটে তীব্র অসন্তোষ

মালেক রানা, নিরাপদ নিউজ: গত ৭ দিন ব্যাপী চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলায় বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী গ্যাস চালিত সিএনজি’র ড্রাইভার যাত্রীদের কাছ থেকে বেশি ভাড়া আদায় করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। যার ফলে সাধারণ মানুষের মধ্যে দেখা দিয়েছে তীব্র ক্ষোভ। সিএনজি গাড়ির মালিক ও চালক সমিতি এবং প্রশাসন সহ স্থানীয় জনগণের সাথে দফায় দফায় বৈঠক করলেও এখনো কোন সুরাহা আসেনি বলে জানা যায়। সর্বশেষ আজ দুপুরে কর্ণফুলী উপজেলায় এক যৌথ বৈঠক শেষে বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহার করে পুর্বের ভাড়া বহাল রাখার জন্য সমিতির সাধারণ সম্পাদক’কে নিদের্শ দেন কর্ণফুলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) সৈয়দ শামসুল তাবরীজ।

কিন্তু বৈঠক শেষে বিকালে বিভিন্ন স্টেশনে যাত্রী হয়রানি ও বেশি ভাড়া আদায় করায় সিএনজি ড্রাইভার ও যাত্রীদের মধ্যে কথা কাটাকাটি করতে দেখা যায়। বিক্ষুব্ধ যাত্রী উপজেলার চরপাথরঘাটার পুরাতন ব্রীজঘাট এলাকায় বাড়তি ভাড়া আদায়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেন।
সিএনজি ও গ্যাসের দাম বৃদ্ধির ঘোষণার পর যাত্রীদের কাছ থেকে ন্যূনতম ভাড়া আদায় না করে নিজেরাই নতুন ভাড়া নির্ধারণ করে।

এ নিয়ে গত কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন গন্তব্যের যাত্রীদের সঙ্গে সিএনজি পরিবহনের ড্রাইভারদের সাথে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়, এমনকি ছোটখাটো হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে। যার জেরে দুই দিন পূর্বে সিএনজি চালকরা বৃষ্টিতে কিছু সময়ের জন্য সিএনজি গাড়ি বন্ধ রাখে৷ এতে শিক্ষার্থী, কর্মজীবি মানুষ সহ সাধারণ জনগণ চরম ভোগান্তিতে পড়েন।

শ্রমিকদের দাবি, গ্যাসের দাম বাড়ায় জ্বালানি খরচ বেড়েছে। এ কারণে যাত্রীদের কাছ থেকে বেশি ভাড়া নিতে হচ্ছে। মালিকের সঙ্গে চুক্তিভিত্তিতে গাড়ি চালানোর কারণে বাড়তি ভাড়া না নিলে মালিককে গাড়ি ভাড়া, লাইন খরচ ও রাস্তা খরচ দিয়ে গাড়ি চালানো সম্ভব না।

এ পরিস্থিতির লাগাম দেয়া না গেলে পরিস্থিতি ভিন্ন রূপ নিতে পারে। এ নিয়ে যাত্রী ও গাড়ি চালকদের মধ্যে বড় ধরনের সংঘর্ষ ঘটতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন চাকুরীজীবি মনির আহমদ। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও বিভিন্ন স্টাটাস পরিলক্ষিত হচ্ছে।
এ বিষয়ে কর্ণফুলী থানা অটো রিক্সা ও অটো টেম্পু ফোর ষ্টোক শ্রমিক কল্যাণ বহুমূখী সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ সেলিম বলেন, ‘নতুন করে উপজেলায় সিএনজি পরিবহনের ভাড়া নির্ধারণের কোনো সিদ্ধান্ত না হলেও গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে ফিলিং স্টেশন গুলো ড্রাইভারদের কাছ থেকে গ্যাসের দাম বেশি নেওয়াতে ড্রাইভার ও একটু বেশি ভাড়া আদায় করাতে নৈরাজ্য শুরু হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসনে আজকের বৈঠকে ভাড়া না বাড়িয়ে ৭দিন যাবত পুর্বের ভাড়া বহাল রাখার জন্য নির্দেশ দিয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ইউএনও মহোদয় ডেকেছেন বলে আমি একা বৈঠকে গিয়েছিলাম। বৈঠকে সমিতির অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন না তাই ইউএনও মহোদয়কে আমি বলেছিলাম সমিতির বাকি সদস্যদের সাথে বসে এই বিষয়ে ড্রাইভারদেরকে অবহিত করবো।

এ প্রসঙ্গে কর্ণফুলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ শামসুল তাবরীজ বলেন, ‘যাত্রী হয়রানী না করতে ও অতিরিক্ত ভাড়া না নিয়ে পূর্বের ভাড়ায় সিএনজি চলতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে সংশ্লিষ্ট সমিতির নেতাদের। সাত দিন পর পরবর্তী বৈঠকে বসে পুনরায় সিদ্ধান্ত হবে বলে জানান তিনি। কিন্তু এই নিউজ লিখা পর্যন্ত সন্ধ্যা থেকে সিএনজি ড্রাইভাররা গাড়ি বন্ধ করে রেখে অবরোধ করছে। যার ফলে গার্মেন্টসকর্মী, ঘর ফেরত অন্যান্য পেশার লোকজন ও রোগীসহ সর্বস্হরের জনসাধারণের ভোগান্তি চরমে। সাধারণ জনগণের প্রত্যাশা স্হানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে দ্রুত সময়ে এই ভোগান্তির সমাপ্তি হবে।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)