আপডেট জুলাই ১২, ২০১৯

ঢাকা শুক্রবার, ৬ আশ্বিন, ১৪২৬ , শরৎকাল, ২০ মুহাররম, ১৪৪১

শোক সংবাদ চট্টগ্রামের কৃতিসন্তান নাট্যজন শান্তনু বিশ্বাস আর নেই

চট্টগ্রামের কৃতিসন্তান নাট্যজন শান্তনু বিশ্বাস আর নেই

শফিক আহমেদ সাজীব,নিরাপদ নিউজ: নাট্যকার, নাট্য নির্দেশক, সংগীত শিল্পী, গীতিকার, নাট্য অভিনেতা শান্তনু বিশ্বাস (৬৯) আর নেই। ১২ জুলাই ২০১৯ শুক্রবার বিকাল ৪টার দিকে ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ ‌করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই কন্যাসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। চট্টগ্রাম শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম বাবু জানান, মঙ্গলবার অসুস্থ হওয়ার পর তাকে নগরের একটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টায় ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তিনি মারা যান। শান্তনু বিশ্বাস মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তীকালে থিয়েটারের সঙ্গে যুক্ত হয়ে নাটক লেখা, অভিনয় ও নির্দেশনা শুরু করেন। ১৯৭৬ সালের দিকে কয়েকজন নাট্যকর্মী সহ অঙ্গন থিয়েটার গড়ে তোলেন। ‘কালো গোলাপের দেশ’ তাঁর লেখা প্রথম নাটক। এর আগে তিনি ‘অঙ্গন’ এবং ‘গণায়ন’-এ অভিনয় করে সারাদেশে একজন শক্তিমান অভিনেতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন। তিনি নাটকের নির্দেশনা আবহও তৈরি করেন তৃতীয় নাটক ‘নবজন্ম’-তে। মুক্তিযুদ্ধের ওপর ভিন্ন আঙ্গিকে লেখা তার নাটক ‘ইনফরমার’ ব্যাপক দর্শকপ্রিয়তা পায়। শান্তনু বিশ্বাস বিশ্ব নাট্যের অনেক নাটক অনুবাদ করেছেন, রূপান্তরও করেছেন, কিশোর নাট্য রচনা করেছেন। কবি মনিরুল মনিরের খড়িমাটি থেকে ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে প্রকাশিত হয় শান্তনু বিশ্বাসের গানের বই ‘গানের কবিতা- খোলাপিঠ’। শান্তনু বিশ্বাস সঙ্গীতের সংগঠকও। এ বিষয়ে তিনি গবেষণা করেছেন, প্রবন্ধও লিখেছেন। শান্তনু বিশ্বাস নিজের রচনা, নির্দেশনা ও অভিনয় নিয়ে সবশেষ মঞ্চে ওঠেন ২৮ জুন, ‘নির্ভার’ নাটক মঞ্চায়নকালে। শান্তনু বিশ্বাসের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন চট্টগ্রামের নাট্যাঙ্গণের কলাকুশলীরা।

চট্টগ্রামে আনা হবে শান্তনু বিশ্বাসের মরদেহ

সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের সুবিধার্থে নাট্যজন ও শিল্পী শান্তনু বিশ্বাসের (৬৯) মরদেহে শনিবার ১৩ জুলাই ২০১৯ শনিবার বেলা ১১টায় চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে রাখা হবে। এরপর বিকেল চারটায় নগরের এমএম আলী সড়কের চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমি মুক্তমঞ্চে নেওয়া হবে। শিল্পীর পরিবারের বরাত দিয়ে এসব বিষয় নিশ্চিত করেছেন গল্পকার জিন্নাহ চৌধুরী। শুক্রবার বিকাল ৪টার দিকে ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ ‌করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই কন্যাসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)