ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ৯ মিনিট ০ সেকেন্ড

ঢাকা বুধবার, ৫ পৌষ, ১৪২৫ , শীতকাল, ১১ রবিউস-সানি, ১৪৪০

চট্টগ্রাম চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে পিইসি পরীক্ষা কেন্দ্রে কিশোরী মায়ের সন্তান প্রসব!

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে পিইসি পরীক্ষা কেন্দ্রে কিশোরী মায়ের সন্তান প্রসব!

শফিক আহমেদ সাজীব,নিরাপদনিউজ : চট্টগ্রামের বাঁশখালী প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা (পিইসি) চলাকালে কেন্দ্রে মধ্যে সন্তান জন্ম দিয়েছে এক কিশোরী মা। রবিবার সকাল সাড়ে ১০টায় গণিত পরীক্ষা চলাবস্থায় বাঁশখালী সরকারি মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে। পরীক্ষা চলাকালে তার পেটের ব্যথা শুরু হলে তাকে পরীক্ষার হল থেকে পাশের রুমে নেওয়া হয়। খবর পেয়ে শিক্ষকরা বাঁশখালী হাসপাতালে খবর দিলে কর্তব্যরত নার্সিং ইনচার্জ শাহানা আক্তার ওই ছাত্রীর সন্তান প্রসব করান। ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বাঁশখালী হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডের ইনচার্জ নাহিদা আক্তার জানান, সন্তান ও মাকে স্কুল থেকে হাসপাতালে আনা হয়েছে। সন্তান প্রসবকারী কিশোরী ছাত্রীটি নাম ফাতেমা বেগম (১৩), সে পুর্ব জলদী ভিলেজার পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রী এবং বাঁশখালী পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের জনৈক নুরুল আলমের কন্যা। ঘটনার বিবরনে জানাগেছে, সকাল ১০ টায় কেন্দ্রে পরীক্ষা শুরু হওয়ার কিছুক্ষন পর ওই কিশোরী ছাত্রীটির পেটের ব্যাথা শুরু হয়। এসময় পরীক্ষার হল থেকে তাকে পাশের রুমে নিয়ে যাওয়া হয়, সেখানে তার প্রসব যন্ত্রনা তীব্র হলে কেন্দ্রে দায়িত্বরত শিক্ষকরা জরুরী ভিত্তিতে বাঁশখালী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে খবর পাঠায়। নার্সিং ইনচার্জ শাহানা আক্তার কেন্দ্রে গিয়ে নিরাপদে সন্তান প্রসব করায়।

পরে নার্স শতাব্দী তালুকদারদের মাধ্যমে নবজাতকসহ কিশোরী মাকে বাঁশখালী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হাসপাতালে নেয়া হয়। বাঁশখালী হাসপাতালের গাইনী ওয়ার্ডের ইনচার্জ নাহিদা আক্তার জানান, বিকেল পর্যন্ত তাদের কোন আত্বীয়-স্বজন হাসপাতালে আসে নি। তবে মেয়েটির সাথে কথা বলে জানা যায়, বাড়ীর পার্শ্ববর্তী যুবক জনৈক নেজাম উদ্দিনের সাথে ফাতেমা বেগমের সম্পর্ক আছে। ঘটনাটি নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে কিশোরী মা ও তার নবজাতক সন্তান সুস্থ্য রয়েছে বলে জানান হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামাল উদ্দিন জানান, নিজাম উদ্দিন নামে ভিকটিমের দূরসম্পর্কের এক চাচা তার সহযোগীদের নিয়ে ১০ মাস আগে ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে।পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করেছে বলে জানান ওসি। কিন্তু বিষয়টি ওই কিশোরী কাউকে জানায়নি। শারীরিক পরিবর্তন দেখে পরিবারের সদস্যরা ভেবেছিল, তার টিউমার হয়েছিল।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)