ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ২ মিনিট ১ সেকেন্ড

ঢাকা শনিবার, ৪ কার্তিক, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ১৯ সফর, ১৪৪১

চট্টগ্রাম চট্টগ্রাম নগরীর আবাহনী ক্লাবে ‘জুয়ার আসর বিরোধী’ অভিযানে হুইপ সামশুল হক চৌধুরীর ক্ষোভ

চট্টগ্রাম নগরীর আবাহনী ক্লাবে ‘জুয়ার আসর বিরোধী’ অভিযানে হুইপ সামশুল হক চৌধুরীর ক্ষোভ

শফিক আহমেদ সাজীব,নিরাপদ নিউজ: চট্টগ্রাম নগরীর হালিশহরে আবাহনী ক্লাবে ‘জুয়ার আসর বিরোধী’ অভিযানে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন জাতীয় সংসদের হুইপ সামশুল হক চৌধুরী। হুইপ ওই ক্লাবের মহাসচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। হুইপ বলেছেন, ‘অভিযানের কারণে তাদের ক্লাবের সম্মানহানি হয়েছে।

২২ সেপ্টেম্বর ২০২৯ রবিবার চট্টগ্রাম সার্কেট হাউজে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে অভিযানের বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানান চট্টগ্রামের পটিয়া থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য সামশুল হক চৌধুরী।

হুইপ সামশুল বলেন, ‘হঠাৎ করে আবাহনী ক্লাবে ঢুকে গেল। ৪-৫ ঘণ্টা ধরে অভিযান। টেলিভিশনগুলো স্ক্রল দিচ্ছে, লাইভ দিচ্ছে। মান-ইজ্জতের ব্যাপার। কিন্তু কিছুই পাওয়া গেল না। সেখানে জুয়া খেলা হয়, এমন কোনো প্রমাণ পাওয়া গেল না। তাহলে ইন্টারন্যাশনাল একটি ক্লাবের সম্মান নিয়ে এই টানাটানি কেন? এটা তো আমাদের অপমান লেগেছে। শুধু শুধু আমাদের বেইজ্জত করার অধিকার কে দিয়েছে?’

চট্টগ্রামে ক্রীড়াসংশ্লিষ্ট ক্লাবগুলোতে এই অভিযান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশের বরখেলাপ বলেও মনে করেন এই সংসদ সদস্য।

শামসুল বলেন, ‘ঢাকায় যে অভিযান হচ্ছে সেটা ঠিক আছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মাদকের গডফাদার, যারা ক্যাসিনো চালায় তাদের বিরুদ্ধে অভিযানের নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু চট্টগ্রামে কি কোনো ক্লাবে ক্যাসিনো খেলা হয়? যারা ক্লাবে বসে আড্ডা দেয়, তাস খেলে সেগুলোর বিরুদ্ধে অভিযান করতে কে নির্দেশ দিয়েছে? এসব ক্লাব থেকে ছোটখাট ফুটবল টিম, ক্রিকেট টিম, স্পোর্টস টিম পরিচালনা করা হয়। তাদের হ্যারাস করা হচ্ছে কেন? অভিযানের কারণে যদি খেলাধূলা বন্ধ হয়ে যায়, ছেলেপেলেরা যদি খেলতেও না পারে, তারা তো সন্ত্রাসী-ছিনতাইকারী হবে।

অভিযান পরিচালনাকারীদের প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘যারা ক্যাসিনো খেলে তাদের ধরেন। ক্লাবগুলো প্রিমিয়ার লীগে খেলে। তাদের ধরছেন কেন? যারা মাদকের ব্যবসা করে তাদের ধরেন। যারা জুয়ার ব্যবসা করে তাদের ধরেন। যারা ঘুষ খায় তাদের ধরেন। সেটা না করে আপনাদের ক্লাবে ঢোকার অর্ডার কে দিয়েছে?

শনিবার রাতে চট্টগ্রাম নগরীর পাঁচটি ক্লাবে অভিযান চালায় র‌্যাব ও পুলিশ। এর মধ্যে নগরীর আইস ফ্যাক্টরী রোডে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র (চট্টগ্রাম), হালিশহরে আবাহনী লিমিটেড এবং সদরঘাটে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবে র‌্যাব অভিযান চালায়।

নগরীর এস এ খালেদ রোডে ফ্রেন্ডস ক্লাব এবং আসরকার দিঘীর পাড়ে শতদল ক্লাবে কোতোয়ালী থানা পুলিশ অভিযান চালায়।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)