আপডেট ২৩ মিনিট ১৪ সেকেন্ড

ঢাকা মঙ্গলবার, ৬ ভাদ্র, ১৪২৬ , শরৎকাল, ১৯ জিলহজ্জ, ১৪৪০

চট্টগ্রাম, ফ্যাশন চট্টগ্রাম রেডিসনে ক্ষুদে মডেলদের মনমাতানো বৈশাখী ফ্যাশন

চট্টগ্রাম রেডিসনে ক্ষুদে মডেলদের মনমাতানো বৈশাখী ফ্যাশন

চট্টগ্রাম রেডিসনে ক্ষুদে মডেলদের মনমাতানো বৈশাখী ফ্যাশন

শফিক আহমেদ সাজীব, ০৯ এপ্রিল ২০১৭, নিরাপদ নিউজ :  বয়স চার বছর ছুঁইছুঁই। নাকে নোলক, মাথায় টিকলি, গলায় গহনা, হাতে চুরি, খোপায় বেলিফুলের মালা, আলতা পায়ে ঘুঘুর। মুখে ছিল লাজুক হাসি। লাল বেনারশি শাড়ি পড়ে বসে আছে বিয়ের পিঁড়িতে। ‘লীলাবালি লীলাবালি’ গানের তালে নৃত্যশৈলীর ফাঁকে বর আসল পালকি চড়ে। ভুলেনি হাঁড়ি পুরিয়ে মিঠাই আনতেও। বর-কনেকে নিয়ে চলছে সঙ্গী-সাথীদের নাচ-কুনসুটি। এটি ছিল শিশুদের পরিবেশনা। ঠিক বড়দের মতো। নাচ, গান ফ্যাশন কিউতে দাগ কাটে দর্শক-হৃদয়ে। গতকাল বৈশাখী পোশাকে শিশুরা নানাভাবে মেলে ধরল নিজেদের। বয়স বড়জোড় ৪-১০ বছর। বৈশাখের আগেই বৈশাখী পোশাকের ঢালি নিয়ে জমকালো এই আয়োজনে ছিল চট্টলকুঁড়ি স্কুলে ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা। ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের কলকাকলিতে পাঁচতারকা হোটেল রেডিসন ব্লু চিটাগাং বে ভিউর মোহনা বলরুম আলোকিত হয়ে উঠে। অনুষ্ঠানে শিশু-কিশোরদের ফ্যাশন এন্ড লাইফ স্টাইল ম্যাগাজিন ‘চট্টলকুঁড়ির’ মোড়ক উন্মোচন করা হয়। দেশের বিখ্যাত ডিজাইনার ও ফ্যাশন হাউসের পোশাকে মডেল হয়েছে শিশুরা। পোশাক প্রদর্শনে শৈল্পিকতা ছিল। এলো বৈশাখ বৈশাখ গানে আলো ঝলমলে বৈশাখী পোশাক পরে ৯ জনের একদল দেবদূত। বয়স আর কত। কারো ৫, কারো বা ৭-৮ বছর। বর্ণিল পোশাকে কিউ পরিবেশন করে শিশুরা। তারা ধীর লয়ে, কখনো দ্রুতলয়ে নিউ লুক দিল। মেলে ধরল নিজেদের। ঠিক বড়দের মতো। মুখরিত জীবনের চলার পথে গানে কিউ করল তাও শিশুরা। তাদের হাতে হাতপাখা, পোশাকে নববর্ষের আবাহন। এসো রমনার বটমূলে প্রাণ খুলে গাই বৈশাখ বৈশাখ গানে কিউ করল আরেক দল শিশু। দেশের শীর্ষ স্থানীয় ১১টি ফ্যাশন হাউসের রঙিন বৈশাখী পোশাক প্রদর্শন করেছে ক্ষুদে মডেলরা। কারও কাঁধে উত্তরীয়, কারও হাতে হাতপাখা কিংবা ফুলের সাঁজি। লাল, সাদা, হলুদসহ বর্ণিল আলোকচ্ছ্বটায় প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে পুরো আয়োজন। আলো ঝলমল মঞ্চে নানা ভঙ্গিতে শিশুদের কিউ হৃদয় জয় করেছে। চারু চট্টগ্রাম, অঞ্জনস, শৈল্পিক, সাদাকালো, মুনমুনস, রওশনস, বিশ্বরঙ, আড়ং, শৈশব, স্বদেশপল্লীসহ নামকরা ফ্যাশন হাউসে কিউ মুগ্ধ করেছে দর্শকদের। ‘মাওলা কে বানাইল রে হাছন’ গানে নৃত্য পরিবেশন করে বৈঞ্চব-বৈঞ্চবী। বাউল পোশাকে নৃত্যের সাথে ছিল ক্ষুদে মডেলদের কিউ। আড়ংয়ের পোশাকে ব্যতিক্রমী কিউ দর্শকদের মুগ্ধ করে। অনুষ্ঠানে ‘চট্টলকুঁড়ি’র বৈশাখী ফ্যাশন সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন করে শিশুরা। এসময় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক আজাদীর ব্যবস্থাপনা সম্পাদক ওয়াহিদ মালিক, এলভিয়ন গ্রুপের চেয়ারম্যান রাইসুল উদ্দিন সৈকত, এএনজেড প্রপার্টিজের সিইও তানভীর শাহরিয়ার রিমন, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মোস্তাফিজুর রহমান, এন মোহাম্মদ গ্রুপের মঞ্জুরুল হক, এশিয়ান টেলিভিশনের চট্টগ্রাম প্রধান ফেরদৌস শিপন, সাংবাদিক ড. সৈয়দ আবদুল ওয়াজেদ, আল রাহমান, মিঠুন চৌধুরী, মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন, বিশ্বজিৎ পাল, এস প্রকাশ পাল, রুমন ভট্টাচার্য্য প্রমুখ। বক্তারা বলেন, বাঙালির ঐতিহ্য পহেলা বৈশাখ। বৈশাখের রঙে শিশুদের মন রাঙাতে এ ফ্যাশন শো। এভাবে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। একইভাবে পরিবেশকেও এগিয়ে নিতে হবে আমাদের। উপস্থিত ছিলেন বিজিসি টাস্ট্রের ডিজিএম আ ফ ম মোদাচ্ছের আলী, ভারটেক্স ইনটেরিয়র ফার্ম’র সিইও মো. সায়েম চৌধুরী, অর্কিড বিউটি পার্লারের কর্ণধার ইভা রকরেক, চট্টলকুঁড়ির নির্বাহী প্রধান মানসী দাশ তালুকদার, রাজিবুল হক চৌধুরী, রিয়াজুল হক চৌধুরী, সাজ্জাদ হোসেন চৌধুরী প্রমুখ। আবৃত্তিকার অরুণ ভদ্রের সঞ্চালনায় এ পর্বে সভাপতিত্ব করেন চট্টলকুঁড়ির সম্পাদক সাজ্জাদ বিন খালেদ সুমন। আলমগীর হোসেন আলোর কোরিওগ্রাফিতে ফ্যাশন কিউতে অংশ নেয় ক্ষুদে মডেল আদিত্য, মুনতাহা, আলভি, রুহান, ইউহান, রোশান, রোহান, রুদবাহ, লেলিনা, আফরা, মুসকান, মাসরুর, আইনান, ইউহান, ফাইজা, অফসরা, তামান্না, বিনিতা, ইফরা, জাওয়াদ, ফামিন, দিলশান, নুয়ান, নুজহাত, আরিশা, আইতা, দিশা, তাজরী। কিউ ছাড়াও নৃত্য শিক্ষক রিয়াংকা ও রবিউলের পরিচালনায় শিক্ষার্থীদের নৃত্য ছিল নজরকাড়া। দলীয়-একক গান ও আবৃত্তি পরিবেশন করে চট্টলকুঁড়ির শিক্ষার্থীরা। চিত্রগ্রহণে ছিলেন মিজান উর রহমান, রাহাত বিন সাব্বির, তূর্য হাসান। মেকাপে অর্কিড বিউটি পার্লার ও অর্ক। ভিডিওগ্রাফিতে ছিল ল্যান্স প্লাস।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)