ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট জুন ৯, ২০১৯

ঢাকা রবিবার, ৩ আষাঢ়, ১৪২৬ , বর্ষাকাল, ১৩ শাওয়াল, ১৪৪০

রাজশাহী জমে উঠেছে বগুড়ায় উপ-নির্বাচনের প্রচারণা

জমে উঠেছে বগুড়ায় উপ-নির্বাচনের প্রচারণা

নিরাপদ নিউজ: ঈদের ছুটি শেষ না হতেই বগুড়ায় মাঠে নেমেছেন প্রার্থীরা। তারা এখন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। নিজেদের অবস্থান তুলে ধরে আগামীর উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি তাদের মুখে। সদর উপজেলার উন্নয়ন এগিয়ে নিতে চান প্রার্থীরা। নানাভাবে ভোটারদের পক্ষে নিতে তারা কাজ করছেন। ঈদের ছুটিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন স্থানে ডিজিটাল ব্যানার টাঙিয়ে শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন প্রার্থীরা।

আগামী ২৪ জুন বগুড়া সদর আসনের উপ-নির্বাচন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই আসন থেকে বিজয়ী বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শপথ না নেয়ায় তার আসনটি শূন্য হয়। পরে নির্বাচন কমিশন ২৪ জুন তারিখ নির্ধারণ করে তফসিল ঘোষণা করেন।

উপ-নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টি, স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ ৭ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত টি জামান নিকেতা, বিএনপির জিএম সিরাজ, জাতীয় পার্টির নুরুল ইসলাম ওমর, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মনসুর রহমান, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের রফিকুল ইসলাম, স্বতন্ত্র প্রার্থী সৈয়দ কবির আহম্মেদ মিঠু ও মো. মিনহাজ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচনে ৭ জন প্রার্থী থাকলেও আনুষ্ঠানিক প্রচারে রয়েছেন প্রধান তিন দলের প্রার্থী। এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী কবির আহমেদ মিঠু লিফলেট নিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন সীমিত আকারে।

বিএনপি বর্জন করায় ২০১৪ সালে এ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম ওমর নির্বাচিত হন। পরে তিনি জাতীয় সংসদের হুইপ ও বিরোধী দলীয় চিফ হুইপের দায়িত্ব পালন করেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনিই মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে মির্জা ফখরুলের কাছে পরাজিত হন। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী না থাকলেও এবারে উপ-নির্বাচনে প্রার্থী দিয়েছে আওয়ামী লীগ।

এদিকে ঈদের ছুটির রেশ না কাটতেই শুক্রবার থেকেই প্রতীক নিয়ে মাঠে নেমেছেন প্রার্থীরা। আওয়ামী লীগ প্রার্থী টি জামান নিকেতা শুক্রবার দিনব্যাপী নৌকা মার্কায় ভোট চেয়ে গণসংযোগ শেষে সন্ধ্যায় শহরের সাতমাথায় বাংলার মুখের ঈদ আনন্দ উৎসবে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন। শনিবারও বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগ, মতবিনিময় শেষে বিকেলে দলীয় কার্যালয়ে নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক সুলতান মাহমুদ খান রনি জানিয়েছেন, নেতাকর্মীরা সদর উপজেলা ও শহরের বিভিন্ন স্থানে নৌকার পক্ষে কাজ করছেন। সদর উপজেলাবাসী উন্নয়নের স্বার্থেই এবার নৌকার পক্ষে রায় দেবেন।

বিএনপি প্রার্থীর পক্ষে সাবেক এমপি হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু শহরের ১২নং ওয়ার্ডে, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আজগর হেনা ইউনিয়নগুলোতে নির্বাচনী সভা ও গণসংযোগ করছেন। ফাঁপের, নুনগোলা, গোকুল, শাখারিয়াসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন ও শহরের বিভিন্ন স্থানে ধানের শীষে ভোট চেয়ে তারা গণসংযোগ করেন।

বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য আলী আজগর হেনা জানান, বগুড়া বিএনপির ঘাঁটি। সদর আসনে বগুড়াবাসী বিগত সময়ের মতো এবারও বিপুল ভোটে ধানের শীষের প্রার্থীকে বিজয়ী করবে।

সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান এইচএম ইকবাল জানান, বগুড়া সদর আসনে উপ-নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী নুরুল ইসলাম ওমর শনিবার বগুড়া শহরের ৬নং ওয়ার্ডের নাটাইপাড়া, বৌ বাজার, কৈপাড়াসহ বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগ ও মতবিনিময় করেন। এর আগে সকালে শহরের ২০নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে লাঙ্গল মার্কায় ভোট চেয়ে গণসংযোগ করেন।

তিন প্রধান দলের প্রার্থীরা মাঠে নামলেও অন্য প্রার্থীদের তেমন চোখে পড়ছে না। স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ কবির আহম্মেদ মিঠু বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের সঙ্গে মতবিনিময়সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয় রয়েছেন। তবে অন্য প্রার্থীরা মাঠে নেই।

অপরদিকে নৌকা-লাঙ্গল একসাথে নির্বাচনে থাকায় মহাজোটের তৃণমূলের সমর্থকরা অনেকটা বিভ্রান্ত হয়ে পড়ছেন। যেকোনো এক প্রার্থী থাকলে মহাজোটের পক্ষে ভোটের মাঠে সুবিধা হবে বলে অনেকেই অভিমত দিয়েছেন।

তবে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জেলা বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে যে বিরোধ ছিল সেটির অবসান হয়েছে। বিক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা এখন দলের স্বার্থে একসঙ্গে কাজ করার ঘোষণা দিয়েছেন। অন্যদিকে প্রচারণার প্রথম দিনেই বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার ঘটনা রাজনৈতিক অঙ্গনে অনেকটা নেতিবাচক প্রভাব ফেললেও ঈদের প্রধান জামাতে নৌকা এবং ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থীর কোলাকুলি করা জটিলতার অবসান ইঙ্গিত করে বলে জানিয়েছে দুইদলের একাধিক নেতাকর্মী।

অন্যদিকে তিন সপ্তাহ ধরে তালাবদ্ধ থাকার পর বগুড়া জেলা বিএনপি অফিসের তালা খোলা হয়েছে। ঈদের পরদিন বৃহস্পতিবার বগুড়া জেলা বিএনপির নবগঠিত আহ্বায়ক কমিটির বিরুদ্ধে যে নেতারা অফিস তালাবদ্ধ করে রেখেছিলেন তারা নিজেরাই অফিসের তালা খুলে দিয়ে কোলাকুলির মাধ্যমে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন। এতে আবারও সরগরম হয়ে উঠেছে জেলা বিএনপি অফিস। সেইসঙ্গে আসন্ন বগুড়া সদর আসনের উপ-নির্বাচনে দলের প্রার্থী এবং বগুড়া জেলা বিএনপির আহ্বায়ক জিএম সিরাজের পক্ষে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার ঘোষণা দিয়েছেন নেতাকর্মীরা।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)