ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ১৬ মিনিট ৫২ সেকেন্ড

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ৭ ভাদ্র, ১৪২৬ , শরৎকাল, ২০ জিলহজ্জ, ১৪৪০

জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস, লিড নিউজ জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে নিসচার মাসব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা

জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে নিসচার মাসব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা

এ কে এম ওবায়দুর রহমান,নিরাপদনিউজ : আগামী ২২ অক্টোবর জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে মাসব্যাপী নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)। সরকারিভাবে দিবসটি পালনের পাশাপাশি এসব কর্মসূচি পালন করবে স্বেচ্ছাসেবী এ সংগঠনটি। জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস ও মরহুমা জাহানারা কাঞ্চনের ২৫তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) –এর প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন মাসব্যাপী এসব কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন।

এ সময় তিনি বলেন, ২০১৭ সালের ৫ জুন সরকার ২২ অক্টোবরকে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। এ বছর দ্বিতীয় বারের মতো দেশব্যাপী সরকারিভাবে ২২ অক্টোবর জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস হিসেবে পালিত হবে। তিনি বলেন, সাম্প্রতিককালে সড়ক দুর্ঘটনারোধে দেশব্যাপী গণজাগরণ ও কোমলমতি শিক্ষার্থীদের আন্দোলন সবার বিবেককে নাড়িয়ে দিয়েছে। সরকারও বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। সড়ক দুর্ঘটনামুক্ত বাংলাদেশ গড়ার ক্ষেত্রে আমরা আশাবাদী, যার প্রেক্ষিতে এবারের ২২ অক্টোবর ভিন্ন মাত্রায় ও ভিন্ন আয়োজনে পালনের জন্য নানা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। সরকারের পাশাপাশি নিসচাও দেশব্যাপী ১২০টি শাখা সংগঠনের মাধ্যমে মাসব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করবে। যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, সৌদি আরবসহ বিদেশে নিসচার শাখা সংগঠনগুলোও একই কর্মসূচি পালন করবে।

নিরাপদ সড়ক চাই-এর কর্মসূচি

১. দুই অক্টোবর পর্যন্ত নিসচার উদ্যোগে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন স্কুল ও কলেজে সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ক সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন এবং রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে পথচারী ও চালকদের মাঝে সড়ক নিরাপত্তার বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বিশেষ ক্যাম্পেইন পরিচালনা।

২. আট থেকে ১১ অক্টোবর পর্যন্ত টাঙ্গাইল, বগুড়া, জয়পুরহাট, নরসিংদী ও কুমিল্লার প্রাইমারি টিসার্চ ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে (পিটিআই)  প্রশিক্ষণরত শিক্ষকদের মাঝে সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ক বিশেষ কর্মশালা পরিচালনা।

৩. ১২ অক্টোবর সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ক বিভিন্ন দিক তুলে ধরে নিসচার প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চনের বক্তব্য ফেসবুক ও ইউটিউবের মাধ্যমে ‘লাইভ’ প্রচার।

৪. ১৩ অক্টোবর নিসচার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জমায়েত ও

৫. ১৪ অক্টোবর জাতীয় প্রেস ক্লাবে নিসচা কর্তৃক বিনা ফিতে প্রশিক্ষিত লাইসেন্সধারী চালকদের মাঝে সনদ বিতরণ ও পরবর্তী চালক প্রশিক্ষণ কর্মসুচি ঘোষণা।

৫. ১৫ অক্টোবর মুন্সিগঞ্জের টঙ্গীবাড়ি উপজেলা নিসচা শাখা সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত বিভিন্ন যানবাহনের বিদ্যমান চালকদের দক্ষতা বৃদ্ধি ও সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা।

৬. ১৬ থেকে ১৯ অক্টোবর রাজধানীর তিনটি গুরুত্বপূর্ণ বাস টার্মিনাল-গাবতলী, মহাখালী, সায়েদাবাদ ও ফুলবাড়িয়ায় চালক ও যাত্রীদের মাঝে সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ক বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বিশেষ ক্যাম্পেইন পরিচালনা।

৭. ২০ অক্টোবর সংবাদ সম্মেলন।

৮. ২১ অক্টোবর র‍্যালী

৯. ২২ অক্টোবর সরকারিভাবে গৃহীত সব সব ধরনের কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ।

১০. ২৩ অক্টোবর বেলা ১১টায় মরহুমা জাহানারা কাঞ্চনের কবর জিয়ারত ও বিকেলে কেন্দ্রীয়সহ সব শাখা সংগঠনের উদ্যোগে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল।

১১. ২৪ থেকে ৩১ অক্টোবর সারা দেশব্যাপী নিসচার ১২০টি শাখা সংগঠনের উদ্যোগে দেশব্যাপী বিভিন্ন স্কুল-কলেজের (ন্যুনতম পাঁচশ) শিক্ষার্থীদের মাঝে ও জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের বাস টার্মিনালে চালক ও যাত্রীদের মাঝে সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ক বিশেষ ক্যাম্পেইন পরিচালনা।

১২. ৩১ অক্টোবর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিশেষ জমায়েত ও নিসচা প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চনের মাসব্যাপী পালিত কর্মসুচির ওপর বিশেষ বক্তব্য প্রদান ও কর্মসূচির সমাপ্তি ঘোষণা।

 

কর্মসূচি ঘোষণার সময় ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, নিরাপদ সড়ক চাই ১৭ কোটি মানুষের প্রাণের দাবিতে পরিণত হয়েছে আমাদের শ্রমের বিনিময়ে। আমাদের গঠনমূলক ও কার্যকর কর্মসূচি- জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে দেশের সর্বত্র সভা, সমাবেশ ও র‍্যালি, বিদ্যমান চালকদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে প্রশিক্ষণ কর্মশালা পরিচালনা, দেশের সব বাস টার্মিনালে চালক ও যাত্রীদের মাঝে সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন, শিক্ষার্থীদের সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ে প্রশিক্ষিত করে তোলা, অভিভাবকদের মাঝে সড়ক নিরাপত্তার বিভিন্ন দিক তুলে ধরা, তৃণমূল পর্যায় থেকে আগামী প্রজন্মকে সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ে দক্ষ করে গড়ে তুলতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের (পিটিআই-এর মাধ্যমে) প্রশিক্ষণ প্রদান ও সংবাদ মাধ্যমের লেখনিতে আজ টেকনাফ থেকে তেতুলিয়ায় সমস্বরে আওয়াজ উঠেছে ‘নিরাপদ সড়ক চাই’। আমরা দাবি করতে পারি এটি আমাদের ২৫ বছরের আন্দোলন ও সংগ্রামের অর্জন।

 

এ সময় তিনি গত তিন বছরে সড়ক দুর্ঘটনার পরিসংখ্যান তুলে ধরেন। ২০১৬ সালেসড়ক দুর্ঘটনার পরিমাণ ছিল ২৩৪৭টি ও নিহতের সংখ্যা ছিল ৫০০৩ জন। ২০১৭ সালে সড়ক দুর্ঘটনার হার বেড়ে যাওয়ায় হতাহতের সংখ্যা বেড়ে যায়। তখন দুর্ঘটনার পরিমাণ বেড়ে হয় ৩৩৪৯। এতে আহত হয় ৭৯০৮ জন এবং নিহত হয় ৫৬৪৫ জন।

 

২০১৬ সালে মোটরসাইকেলের সংখ্যা ছিল ৭ লাখ যা এখন  বেড়ে  হয়েছে ২২ লাখ। অপ্রাপ্ত বয়স্ক কিশোর মোটরসাইকেল চালকরা অতিরিক্ত গতিতে মোটরসাইকেল চালানোর কারণে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়ক দুর্ঘটনা বেড়েই চলেছে। তাছাড়া অদক্ষ চালক (শুধুমাত্র বাস-ট্রাকই নয় এখানে অদক্ষ চালক বলতে সিএনজিচালিত যানবাহন, মোটরসাইকেল, ইজিবাইক, ভটভটি, নসিমন, করিমন ইত্যাদি চালক) ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন, মালিকের অব্যবস্থাপনা, মনিটরিংয়ের অভাব, দূর্বল ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা, জনগণের অসচেতনতা, অনিয়ন্ত্রিত গতি, রাস্তা নির্মাণে ক্রটি, রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাব, আইন ও যথাযথ প্রয়োগের অভাবের চিত্র উঠে এসেছে।

নিরাপদ সড়কের এক বছরের কার্যক্রম তুলে ধরে তিনি এলন, ২০১৭ সালের ২২ অক্টোবর থেকে ২০১৮ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত গত প্রায় এক বছরে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) জনসচেতনতা তৈরিতে যেসব কার্যক্রম গ্রহণ করেছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, ঢাকাসহ দেশব্যাপী র‍্যালি, মানববন্ধন, সেমিনার, চালক প্রশিক্ষণ, শিক্ষার্থী প্রশিক্ষণ, দেশের বিভিন্ন জেলায় পিটিআইয়ের মাধ্যমে শিক্ষকদের প্রশিক্ষ, যাত্রী-পথচারী সমাবেশ, জাতিসংঘ ঘোষিত রোড সেফটি সপ্তাহ পালন, গোলটেবিল বৈঠক ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় এ সংক্রান্ত অসংখ্য টকশোতে অংশগ্রহণ। এছাড়া নিসচার বিভিন্ন শাখা কমিটির যোগ্য সদস্যদের প্রশিক্ষণ প্রদান করে তাদেরকে দক্ষ প্রশিক্ষক হিসেবে তৈরি করা হয়েছে এবং তারা নিজ নিজ এলাকায় স্কুল- কলেজসহ চালক, যাত্রী, পথচারিদের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধির কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। নিসচার প্রশিক্ষকরা সারাদেশে বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি উদ্যোগে আয়োজিত সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করেছেন ।

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ নিয়ে আমাদের ভূমিকা আপনাদের অজানা নয়। এই আইন প্রণয়নে আমাদের পক্ষ থেকে ছোট বড় মিলিয়ে একাধিক সংশোধনী দেয়া হয়েছিল। বিশেষ করে আইনটির শিরোনাম ‘সড়ক পরিবহন ও সড়ক নিরাপত্তা আইন ২০১৮’, সড়ক দুর্ঘটনায় শাস্তির মেয়াদ দশ বছর করা, অবৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং লাইসেন্সবিহীন ও ফিটনেসবিহীন গাড়ি চালিয়ে দুর্ঘটনা ঘটালে এবং তাতে কারো মৃত্যু হলে ৩০২ ধারায় মামলার সুপারিশ উল্লেখযোগ্য। তবে আইনটি পাস হওয়ার পর আমাদের পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, আমাদের চাওয়ার প্রায় ৮০ ভাগই বর্তমান আইনে এসেছে। এ কথা অনস্বীকার্য যে, আমরা ছাড়াও সড়কে আরও স্টেক হোল্ডার রয়েছে। নিসচা মনে করে, পর্যায়ক্রমে সরকার এ আইন আরও যুগোপযোগী করে গড়ে তুলবে। আমি সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ প্রণয়নে সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি এজন্য যে দীর্ঘদিনের জঞ্জাল পরিষ্কার করার উদ্যোগ নিয়েছে এই সরকার। বিশেষ করে এ আইন প্রয়োগে সব মহলের আন্তরিকতা, মনিটরিং ও মেনে চলার মধ্য দিয়ে সর্বস্তরে নিয়ম প্রতিষ্ঠিত হবে বলে আশা করি।

সাংবাদিকদের উদ্দেশে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, বাংলাদেশে বহু দিবস পালিত হয় কিন্তু ২২ অক্টোবর জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস সে রকম দিবস নয়। এটির মাধ্যমে আমরা শুধু একদিনে দিবসটি পালন করবো না বরং সারা বছর আমরা বিভিন্ন কার্যক্রমের মাধ্যমে চালক, মালিক, পথচারি, যাত্রী, স্কুল-কলেজের শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী, শ্রমজীবী, পেশাজীবীসহ সর্বস্তরের জনগণের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক কর্মকাণ্ড অব্যাহত রাখবো এবং দেশবাসীকে সচেতন করার মাধ্যমে দেশকে সড়ক দুর্ঘটনার মহামারি থেকে উদ্ধার করবো।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন, নিসচা’র কেন্দ্রিয় মহাসচিব ও প্রধান প্রশিক্ষক সৈয়দ এহসান উল হক কামাল, নিসচা’র কেন্দ্রিয় যুগ্ম মহাসচিব ও জাতীয় নিরাপদ সড়ক চাই দিবস পালন কমিটির আহবায়ক লিটন এরশাদ, সংবাদ সম্মেলন পাঠ করেন নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) –এর প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। কোরআন তেলোয়াত করেন নাসিম রুমি। পবিত্র তর্জমা করেন কার্যনির্বাহী সদস্য ফিরোজ আলম মিলন , পরিচালনা করেন, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আজাদ, শোক প্রস্তাব উপস্থাপন করেন জহিরুল ইসলাম মিশু। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নিসচার কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব বেলায়েত হোসেন, প্রচার সম্পাদক এ কে এম ওবায়দুর রহমান, সহ-প্রচার সম্পাদক সাফায়েত সাকিব, কার্যনির্বাহী সদস্য নাহিদ মিয়া প্রমুখ।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)