আপডেট জুলাই ১৭, ২০১৯

ঢাকা শনিবার, ৩ ভাদ্র, ১৪২৬ , শরৎকাল, ১৬ জিলহজ্জ, ১৪৪০

রাজশাহী জিপিএ-৫ না পাওয়ায় বগুড়ায় ফ্যানের সঙ্গে ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করলেন ছাত্রী!

জিপিএ-৫ না পাওয়ায় বগুড়ায় ফ্যানের সঙ্গে ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করলেন ছাত্রী!

নিরাপদনিউজ: এইচএসসি পরীক্ষায় ৪.৯৬ পায় মোছা: তামিমা ইসলাম ফেনি (১৮) । তার প্রত্যাশা ছিল জিপিএ ৫। কিন্তু কাঙ্খিত ফল না পাওয়ায় ফ্যানের সঙ্গে ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করেছে সে! ঘটনাটি ঘটেছে বগুড়া জেলার ঠনঠনিয়া তেতুলতলা এলাকায়।আজ দুপুর ১.৪০মিনিটে ঠনঠনিয়া তেতুলতলা এলাকায় মোহসিন আলীর ডা: ভিলার বাসায় এ ঘটনাটি ঘটে। নিহত ছাত্রী এ বাসায় ভাড়া থাকেন।

জানা গেছে, গত ২মাস আগে মেয়েকে মেডিকেলে ভর্তি করানোর জন্য কোচিং করাতে এই বাসা ভাড়া নেয়া হয়। তামিমা ইসলাম ফেনি  রংপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ থেকে এবার এইচএসসি পরীক্ষা দেয়। আজ এইচএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট প্রকাশ হবার পর জিপিএ ৪.৯৬ পায় তামিমা ইসলাম ফেনি ।

তামিমা ইসলাম ফেনি এর ধারণা ছিল সে এ প্লাস পাবে। তার চেয়ে কম মেধাবী অনেকে ছাত্রীই এ প্লাস পেয়েছে বলে ফেনির মন খুবই খারাপ ছিল। বারবার সে একই কথা বলছিল। এবং বিষয়টি তিনি মেনে নিতে পারছিলোনা। সে তার মায়ের সাথে বাসায় কান্নাকাটি করেন ও বারবার বলেন এজীবন আমি আর রাখবো না।

কান্নাকাটির এপর্যায়ে সে তার রুমে প্রবেশ করে এবং দরজা ভেতর থেকে বন্ধ করে দেয়। তারপর সাথে সাথে ফ্যানের সঙ্গে ফাঁস নেয় তামিমা ইসলাম ফেনি । ঘটনাটির সঙ্গে সঙ্গে মেয়েটির মা চিৎকার দিলে বাসা ওয়ালা এবং বাড়ির আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে এসে ঘরের দরজা ভেঙ্গে ফেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আমরা ঘটনাটি জানার সাথে সাথে বাড়িতে যাই এবং দরজা ভাঙ্গি এরপর দেখি মেয়েটি ফ্যানের সাথে ঝুলে আছে। এরপর বগুড়া সদর থানায় ফোন দিয়ে ওসিকে অবগত করে তার অনুমতিতে মেয়েটিকে ফ্যান থেকে নেমে মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বগুড়া সদর থানার এসআই খোরশেদ আলম জানান, বিকালে খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে বগুড়া শজিমেক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার ময়নাতদন্ত হবে। রিপোর্টটি লেখা পর্যন্ত সদর থানায় অপমৃত্যু মামলার প্রস্তুতি চলছিল বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য,তামিমা ইসলাম ফেনি নওগাঁর রানীনগর উপজেলার ক্ষুদ্রবেলঘড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা ফরিদুল ইসলামের মেয়ে। তিনি রংপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের আবাসিক ছাত্রী ছিলেন। গত ২০১৭ সালে এসএসসিতে জিপিএ ৫ পান তামিমা। এরপর তিনি ডাক্তারি পড়ার স্বপ্ন দেখেন। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দেয়ার পর মেডিকেল কোচিং করতে বগুড়ায় আসেন। মায়ের সঙ্গে শহরের ঠনঠনিয়া তেঁতুলতলায় মহসিন আলীর বাসা ‘ডাক্তার ভিলা’ ভাড়া নেন।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)