ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট আগস্ট ১৭, ২০১৯

ঢাকা রবিবার, ৮ আশ্বিন, ১৪২৬ , শরৎকাল, ২২ মুহাররম, ১৪৪১

ক্রিকেট, লিড নিউজ টাইগারদের হেড কোচ কে হচ্ছেন?

টাইগারদের হেড কোচ কে হচ্ছেন?

নিরাপদ নিউজ: কোচ পাওয়ার ক্ষেত্রে মূল সমস্যা হচ্ছে বিশ্বব্যাপী টি-২০ লিগগুলো। সেখানে অল্প সময়ে অর্থ বেশি। বিশ্বের তারকা ক্রিকেটাররা যেমন অপেক্ষায় থাকেন ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) খেলতে। তেমনই অর্থের জন্য দলগুলোকে কোচিং করাতে চান তারকা কোচরা। অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপজয়ী কোচ টম মুডি বিপিএলে রংপুর রাইডার্সকে কোচিং করান। কিন্তু টাইগারদের হেড কোচ হতে আগ্রহী নন।

মিকি আর্থারকে বরখাস্ত করার পর কোচ হিসেবে মাইক হেসনকে চেয়েছিল পাকিস্তান। কিন্তু নিরাপত্তার অজুহাতে নিউজল্যান্ডের সবচেয়ে সফল কোচ আগ্রহী হননি পাকিস্তান যেতে। সরফরাজ খানদের কোচ হওয়ার প্রস্তাবে রাজি না হলেও হেসন সাক্ষাৎকার দিয়েছেন ভারতে। এতে করে ব্ল্যাক ক্যাপসদের সাবেক কোচকে নিয়ে আশা একটু কমে এসেছিল বিসিবির। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড পুর্নরায় রবি শাস্ত্রীর ওপর আস্থা রাখায় বিসিবি এখন আশাবাদী হেসনের বিষয়ে।

তারপরও বিসিবি গত এক সপ্তাহ বেশ কয়েকজনের সঙ্গে আলাপ করেছে। আলাপ-আলোচনা শেষে এ সপ্তাহেই কোচ নিয়োগ অধ্যায়ে যতি টানতে চাইছে ক্রিকেট বোর্ড। রবিবার টাইগারদের কন্ডিশনিং ক্যাম্প শুরু। তার আগে হেড কোচের নিয়োগ দেখে চমকে উঠতে পারেন ক্রিকেটপ্রেমীরা! যদি কোনো কারণে হেসনকে মিস করে বিসিবি, তাহলে পাকিস্তানের সাবেক দুই কোচ মিকি আর্থার ও গ্রান্ট ফ্লাওয়ার, অস্ট্রেলিয়ার টম মুডি, ওয়েস্ট ইন্ডিজের ফিল সিমন্স এবং শ্রীলঙ্কার চন্ডিকা হাতুরাসিংহের যে কাউকে দেখা যাবে সাকিব, মুশফিক, তামিমদের দায়িত্ব নিতে। কোচ নিয়োগ আগামী দুই-একদিনের মধ্যে হবে বলে জানিয়েছেন বিসিবি পরিচালক ও মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস, ‘আগামী দুই-একদিনের মধ্যে কোচ নিয়োগ দেবে বিসিবি।’

হাতুরাসিংহ বিদায় নেন ২০১৭ সালের অক্টোবরে। এরপর টাইগারদের দায়িত্ব তুলে দেওয়া হয় ১১ টেস্ট ও ৯ ওয়ানডে খেলা ব্রিটিশ ভদ্রলোক স্টিভ রোডসের হাতে। তার কোচিংয়ে দুবাইয়ে এশিয়া কাপের ফাইনাল এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-২০ সিরিজ জিতে টাইগাররা। কিন্তু বিশ্বকাপে আশানুরূপ ফল করতে পারেনি। এ ছাড়া বোর্ড কর্তাদের সঙ্গে তার বোঝাবুঝিটাও খুব ভালো ছিল না। তাই বিশ্বকাপ শেষে দুই পক্ষের আলোচনা শেষে বিদায় নেন রোডস। এরপরই বিসিবি হন্যে হয়ে খুঁজতে থাকে কোচ। সাক্ষাৎকার নেয় দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক কোচ রাসেল ক্রেইগ ডোমিঙ্গোর। এরপর ঈদের আগে সাক্ষাৎকার নেওয়ার কথা ছিল হেসনের। অজানা কারণে তিনি আসেননি। অবশ্য তিন দিন আগে হেসন টেলিকনফারেন্স করেছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের সঙ্গে। ১৪ আগস্ট বিসিবি সভাপতি টেলিকনফারেন্সে আলাপ করেছেন পাকিস্তানের সাবেক মিকি আর্থার ও গ্রান্ট ফ্লাওয়ারের সঙ্গে। অবশ্য গ্রান্টের সম্ভাবনা কম। যদিও জিম্বাবুয়ান ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যানটি পাঁচ বছর পাকিস্তানের ব্যাটিং কোচ ছিলেন। আর্থারের সঙ্গে আলোচনা করে সন্তুষ্ট বিসিবি সভাপতি, এমনটাই জানিয়েছেন বিসিবির একজন পরিচালক। তিনিই যে কোচ হচ্ছেন, তা বলতে অপারগতা জানিয়েছেন।

বিসিবি যোগাযোগ করেছে খুলনা টাইটান্সের শ্রীলঙ্কান কোচ মাহেলা জয়াবর্ধনের সঙ্গেও। তবে জাতীয় দলের দায়িত্ব নিতে লঙ্কান লিজেন্ডারি ক্রিকেটার নাকি খুব আগ্রহ দেখাননি। অবশ্য মাহেলার বিষয়ে আগ্রহী পাকিস্তানও। ওয়াসিম আকরাম তার নাম প্রস্তাব করেছে পিসিবিকে।

কোচ পাওয়ার ক্ষেত্রে মূল সমস্যা বিশ্বব্যাপী টি-২০ লিগগুলো। সেখানে অল্প সময়ে অর্থ বেশি। বিশ্বের তারকা ক্রিকেটাররা যেমন অপেক্ষায় থাকেন ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) খেলতে। তেমনই অর্থের জন্য দলগুলোকে কোচিং করাতে চান তারকা কোচরাও। অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপজয়ী কোচ টম মুডি বিপিএলে রংপুর রাইডার্সকে কোচিং করান। কিন্তু টাইগারদের হেড কোচ হতে আগ্রহী নন। তারপরও বিসিবি এবার তার সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। যদি বিরাট কোহলিদের কোচ হতে না পারেন, তাহলে শেষ মুহূর্তে সাকিব, মুশফিকদের কোচ হলে অবাক হওয়ার কিছু নেই।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে ক্রিকেট লড়াইয়ে নামার আগে আগামীকাল শুরু হচ্ছে টাইগারদের কন্ডিশন ক্যাম্প। সেখানে থাকছেন না মাশরাফি বিন মর্তুজা। তবে ক্যাম্প শুরুর দিনই টাইগারদের হেড কোচ নিয়োগের চূড়ান্ত ঘোষণা দিতে পারে বিসিবি। এখন শুধুই অপেক্ষা।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)