আপডেট নভেম্বর ৪, ২০১৮

ঢাকা মঙ্গলবার, ৪ আষাঢ়, ১৪২৬ , বর্ষাকাল, ১৪ শাওয়াল, ১৪৪০

মতামত ‘ডাকাত এর কবলে পড়েছিলাম, পুলিশ ত্রাণকর্তা হিসেবে না এলে হয়তো…’

‘ডাকাত এর কবলে পড়েছিলাম, পুলিশ ত্রাণকর্তা হিসেবে না এলে হয়তো…’

এস এম আজাদ হোসেন,নিরাপদনিউজ:  ২ নভেম্বর ২০১৩। রাত ১০,১৫। বাসে উঠে বসলাম।খুলনা থেকে ঢাকা ফিরছি। জার্নি পথে আমার ঘুম হয়না, যদিও অনেকে নাক ডেকে ঘুমায়। রাত ১,৩২। হঠাৎ বাসটি জোরে ব্রেক কষে দাঁড়ালো । প্রথমে ভাবলাম হয়তো ঘাটে এসে গেছে, পরক্ষণেই ভুল ভাঙলো। দেখলাম গাড়ির ডান পাশে ৩/৪ জন। পরনের লুঙ্গি কাছা দেয়া। উদোম শরীর। হাতে অস্ত্র আর টর্চ লাইট। আমাদের সামনে একটি ট্রাক গরু বোঝাই। তার সামনে গাছ ফেলে বেরিগেড দেয়া। এটা ফরিদপুরের মাইজকান্দি।ডাকাত দল ধমকের স্বরে ড্রাইভারকে গাড়ির স্টার্ট ও হেড লাইট বন্ধ করতে হুকুম দিল। ড্রাইভার তাই করলো। সাথে জানালা-দরজা বন্ধ করে দিল। যার যা আছে লুকিয়ে ফেলতে বলল। 


সামনের দিক থেকেও কোন গাড়ি আসছে না,এবার বুঝুন অবস্থা কি দাঁড়ায়! সেই ১৯৮৪ সাল থেকে এই পথে নিয়মিত যাতায়াত করি। বিশেষ করে রাতের বেলায়। অনেক শুনেছি ডাকাতি’ র কথা, কখনো চোখে পড়েনি। আজ নিজেই ডাকাতে’র মুখোমুখি। কিন্তু আমার কেন যানি একটুও ভয় করেনি।কেন করেনি? হয়তো ডাকাত পছন্দ হয়নি। ডাকাত বলতে এতদিন যেমন ভেবেছি, বইয়ে পড়েছি মনে হয় এদের দেখে তেমন লাগেনি তাই ভয় পাইনি। রবীন্দ্রনাথের ‘বীর পুরুষ ‘ কবিতার ডাকাত দলের অবয়ব সেই ছোট বেলা থেকে মনের ভেতর এঁকে রেখেছি। এরা তার ধারে কাছেও না।আমাদের বাস ড্রাইভারের ভাষায় এরা ‘ জাউলা’ টাইপের ।


দেখলাম সামনের ট্রাকের ডান পাশের গ্লাস ভেঙ্গে ফেলল ডাকাত দল। দু’জন ঢুকে গেল ভেতরে। এরপর আমাদের বাস।বাসের অনেকেই যারা জেগে আছে তারা দোয়া দরূদ পড়ছে। মহিলারা খুব ভয় পেয়েছে। তারপর আমাদের পেছনে যেসব গাড়ি আছে। মিনিট তিনেক গেছে। হঠাৎ পেছনের দিক থেকে পুলিশের হুইসেল এর শব্দ। শব্দ শুনেই ড্রাইভার মনে বহুগুণ সাহস পেয়ে গাড়ির হেড লাইট জ্বালিয়ে দিয়েছে। দেখলাম ডাকাতেরা চোখের পলকে গায়েব। ততক্ষণে পুলিশ আমাদের বাসের সামনে। ওদের মনেও ভয়। ড্রাইভার বলছে ওই ঝোপ জঙ্গলের ভেতর দেখেন…।

দ্রুত পুলিশ বেরিগেড সরিয়ে দিল আমাদের ড্রাইভারও দিল টান।২০০ গজ সামনে এসে দেখলাম অনেক বাস ট্রাক লাইট অফ করে অন্ধকারে চুপচাপ দাঁড়িয়ে । তারমানে ওরা আগে থেকে টের পেয়েই দাঁড়িয়ে ছিল। এতক্ষণ কেন বিপরীত দিক থেকে গাড়ি আসেনি তার কারণ বুঝতে পারলাম। মিনিট পাঁচেকের মধ্যে ঘটে যাওয়া এই ঘটনা বেশ রোমাঞ্চকরই ছিলো। পুলিশ ত্রাণকর্তা হিসেবে না এলে হয়তো সুস্থ্য নাও থাকতে পারতাম।

 -সাংগঠনিক সম্পাদক,নিসচা কেন্দ্রীয় কমিটি

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)