আপডেট ৫০ সেকেন্ড

ঢাকা বুধবার, ৪ আশ্বিন, ১৪২৬ , শরৎকাল, ১৯ মুহাররম, ১৪৪১

সড়ক সংবাদ দুর্গম মহালছড়ির-নানিয়ারচর সীমান্তবর্তী রাস্তা নির্মাণ শুরু

দুর্গম মহালছড়ির-নানিয়ারচর সীমান্তবর্তী রাস্তা নির্মাণ শুরু

সোমবার সকালে রাস্তার কাজ সরেজমিনে দেখতে গেলেন মহালছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান বিমল কান্তি চাকমা ও নানিয়ারচর উপজেলা চেয়ারম্যান শক্তিমান চাকমা

সোমবার সকালে রাস্তার কাজ সরেজমিনে দেখতে গেলেন মহালছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান বিমল কান্তি চাকমা ও নানিয়ারচর উপজেলা চেয়ারম্যান শক্তিমান চাকমা

খাগড়াছড়ি, ৩০ মার্চ ২০১৫, নিরাপদনিউজ : খাগড়াছড়ির মহালছড়ি উপজেলার সীমান্তবর্তী অত্যন্ত দুর্গম ও যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন পাহাড়ি এলাকা নানিয়ারচর উপজেলাধীন সাবেক্ষ্যং ইউনিয়ন ও মুবাছড়ি ইউনিয়নের সকল ক্ষেত্রে সুবিধা বঞ্চিত দুই ইউনিয়নের জনসাধারণ যৌথভাবে এলাকাবাসীর অর্থায়নে মধ্য আদাম হইতে বড়পুল পাড়া পর্যন্ত প্রায় ১৬ কিলোমিটার রাস্তা বুলডোজার দিয়ে মাটি কাটার কাজ শুরু করেছে এলাকাবাসী। সোমবার সকালে সরেজমিনে দেখতে গেলেন, মহালছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান বিমল কান্তি চাকমা ও নানিয়ারচর উপজেলা চেয়ারম্যান শক্তিমান চাকমা। রাস্তাটি নির্মাণ কাজ শেষ হলে দুই ইউনিয়নের কমপক্ষে দেড় হাজার পরিবার যোগাযোগ ব্যবস্থার সুবিধা ভোগ করতে পারবে বলে জানান স্থানীয়রা। জনপ্রতিনিধিদের নিকট এলাকার অবকাঠামোগত উন্নয়নের দাবী জানান এলাকাবাসী।
অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন, নানিয়ারচর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রণ বিকাশ চাকমা, সাবেক্ষ্যং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সুপন চাকমা (সুশীল) ও মুবাছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান বাপ্পী খীসা, প্রাক্তন ইউপি চেয়ারম্যান প্রগতি চাকমা, সাবেক্ষ্যং ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের  সদস্য আদি শংকর চাকমা, এগারাল্যা ছড়া মৌজার হেডম্যান জ্ঞান বিলাস চাকমা, ইউপি সদস্য শ্যমল কান্তি চাকমা সমাজ সেবক নীল রঞ্জন চাকমা ও প্রদীপ ময় চাকমা ও এলাকার জনসাধারণ।
রাস্তার কাজ পরিদর্শন কালে এলাকাবাসীর উদ্যেগকে স্বাগত জানিয়ে নানিয়ারচর উপজেলা চেয়ারম্যান শক্তিমান চাকমা বলেন, এই এলাকাটি অত্যন্ত দুর্গম ও পাহাড়ি এলাকা হওয়ায় সরকারের অবকাঠামোগত উন্নয়নের ছোঁয়া এখনো এসে পৌঁছেনি। তবে, তিনি এলাকাবাসীর এ উদ্যেগ অত্যন্ত প্রশংসনীয় বলে মন্তব্য করেন। তিনি আরো বলেন, এ রাস্তাটির নির্মাণ কাজ শেষ হলে এলাকার জনসাধারণের স্বার্থে রাস্তা-ঘাট উন্নয়ন সহ অবকাঠামোগত উন্নয়নের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস প্রদান করেন।
এদিকে মহালছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান বিমল কান্তি চাকমা বলেন, দুর্গম পাহাড়ি এলাকার জনসাধারণ সকল ক্ষেত্রে সুবিধা বঞ্চিত হচ্ছে। বিশেষ করে স্কুল গামী ছেলে-মেয়েদের যাতায়াত ও কৃষিজীবীদের ক্ষেত্রে যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায়  উৎপাদিত ফসল বাজারজাত করতে পারেনা। মহালছড়ি উপজেলাধীন দুর্গম ও পাহাড়ি এলাকাগুলিতে অবকাঠামোগত উন্নয়ন হওয়া জরুরী। তিনি আরো বলেন, একইভাবে রাঁধামন বাজার (মধ্য আদাম) হইতে দেওয়ানছড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত রাস্তাটি সংষ্কারের জন্য সরকারের কাছে দাবী রাখবেন বলে জানান তিনি।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)