সংবাদ শিরোনাম

১৪ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং

00:00:00 শুক্রবার, ১লা পৌষ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ , শীতকাল, ২৭শে রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী
জাতীয়, লিড নিউজ ‘দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ থেকে কখনো দরিদ্রতা যাবে না’

‘দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ থেকে কখনো দরিদ্রতা যাবে না’

পোস্ট করেছেন: মোবারক হোসেন | প্রকাশিত হয়েছে: ডিসেম্বর ৭, ২০১৭ , ৭:৫৬ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জাতীয়,লিড নিউজ

প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী – ফাইল ফটো

০৭ ডিসেম্বর ২০১৭, নিরাপদ নিউজ : প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভী বলেছেন, যে দেশে দুর্নীতি থাকে সে দেশ থেকে কখনও দরিদ্রতা যাবে না। দুর্নীতি সরাতে হলে মিডিয়াকে কাজ করার সুযোগ দিতে হবে।

বৃহস্পতিবার ধানমন্ডিতে টিআইবির মেঘমালা কনফারেন্স রুমে ‘অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা পুরস্কার ২০১৭’প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

টিআইবির ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য ও সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার ড. এ টি এম শামসুল হুদার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে টিআইবির বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সদস্য এম হাফিজউদ্দিন খান, নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান এবং উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. সুমাইয়া খায়ের উপস্থিত ছিলেন।

দুর্নীতি বিরোধী আন্দোলনে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা বিষয়ক সংলাপে বাংলাদেশে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার চ্যালেঞ্জ ও সম্ভাবনার ওপর অনুষ্ঠিত সংলাপে বক্তব্য রাখেন দৈনিক সমকালের নির্বাহী সম্পাদক মুস্তাফিজ শফি, বাংলাভিশনের বার্তা সম্পাদক শারমীন রিনভী এবং দৈনিক প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ইফতেখার মাহমুদ।

গওহর রিজভী বলেন, ‘গণমাধ্যমকে হস্তক্ষেপ করার কোনো নির্দেশনা সরকারের পক্ষ থেকে কাউকে দেয়া হয়নি। কেউ যদি গণমাধ্যমকে হস্তক্ষেপ করে থাকে, সেটা তার নিজ স্বার্থে করছে এবং এর দায়িত্ব তার নিজের।’

সরকারের কোনো একটি সুনির্দিষ্ট বিভাগ, অধিপ্তর বা এজেন্সির মাধ্যমে সংঘঠিত দুর্নীতির অভিযোগে পুরো সরকারের সমালোচনা করা উচিৎ নয় উল্লেখ করে ড. গওহর রিজভী অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা বিকাশের জন্য সাংবাদিকদের প্রশিক্ষণের গুরুত্বের কথা তুলে ধরেন।

ড. এ টি এম শামসুল হুদা বলেন, সমাজের অংসঙ্গতি ও দুর্নীতি তুলে এনে দেশের সেবা করা যায়। কারণ অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় দেশের ও সমাজের উপকার হয়। বর্তমান সমাজে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা রিস্কবিহীন নয়। এখানে ঠিক করতে হবে কিভাবে সারভাইব করা যায়। এর মধ্য থেকেই অনুসন্ধানী সাংবাদিকরা আরও বেশি বেশি ভালো প্রতিবেদন তৈরিতে কাজ করবে।

অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার জন্য এবার টিআইবির পুরস্কার পেয়েছেন ৯ সাংবাদিক। পুরস্কারপ্রাপ্তরা হলেন- প্রিন্ট মিডিয়া স্থানীয় ক্যাটাগরিতে দৈনিক পূর্বাচলের খুলনার স্টাফ রিপোর্টার এইচ এম আলাউদ্দিন, জাতীয় ক্যাটাগরিতে প্রথম আলো পত্রিকার সাভারের স্টাফ রিপোর্টার অরূপ রায়। ইলেকট্রনিক মিডিয়া ক্যাটাগরিতে মাছরাঙা টেলিভিশনের সাংবাদিক বদরুদ্দোজা বাবু ও ক্যামেরা পারসন হিসেবে একই টেলিভিশনের সিনিয়র ক্যামেরা পারসন মেহেদী হাসান সোহাগ পুরস্কার পেয়েছেন।

ইলেকট্রনিক মিডিয়া প্রামাণ্য অনুষ্ঠান ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পেয়েছেন ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার মো. সবুজ মাহমুদ, ক্যামেরা পারসন রাকিবুল হাসান ও গোলাম কিবরিয়া, ক্যামেরা পারসন মহসীন মুকুল, কাজী মোহাম্মাদ ইসমাইল, গোলাম কিবরিয়া। একই ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পেয়েছেন যমুনা টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার (বর্তমানে চ্যানেল ২৪-এ কর্মরত) মো. জাহিদ মামর ইসলাম সাদ ও যমুনা টেলিভিশনের ক্যামেরা পারসন তানভীর মিজান।
বিজয়ী সাংবাদিকদের পুরস্কার হিসেবে ১ লাখ টাকা, ক্রেস্ট ও সম্মাননা পত্র দেয়া হয়। পুরস্কারের জন্য বিবেচিত টিভি প্রতিবেদনে ক্যামেরাপারসনের বিশেষ ভূমিকার জন্য তাদেরকে পুরস্কার হিসেবে ৫০ হাজার টাকা, ক্রেস্ট ও সম্মাননা পত্র দেয়া হয়। বাসস

Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Digg thisShare on Tumblr0Email this to someonePin on Pinterest0Print this page

comments

Bangla Converter | Career | About Us