ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট মে ১৬, ২০১৯

ঢাকা রবিবার, ১৩ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ , গ্রীষ্মকাল, ২১ রমযান, ১৪৪০

কৃষি, রংপুর ধানের বাম্পার ফলন হলেও ন্যায্যমূল্য নির্ধারণ না করায় হতাশায় কৃষক

ধানের বাম্পার ফলন হলেও ন্যায্যমূল্য নির্ধারণ না করায় হতাশায় কৃষক

নিরাপদ নিউজ: ধানের বাম্পার ফলন হলেও ন্যায্যমূল্য নির্ধারণ না করায় হতাশায় রংপুরের কৃষকরা। এ পরিস্থিতি থেকে কৃষকদের বাঁচাতে সরকারি কোনো উদ্যোগ ছাড়াই রংপুরে শুরু হয়েছে ধান ও চাল সংগ্রহ অভিযান কার্যক্রম। সরকারি ঘোষণা অনুযায়ী ২৫ এপ্রিল থেকে সারাদেশে ধান চাল সংগ্রহ অভিযান শুরু হলেও রংপুরে ১৮দিন পর এই কার্যক্রম হলো।

মঙ্গলবার (১৪ মে) বেলা ২টায় রংপুর সদর উপজেলা খাদ্য গুদামে এই সংগ্রহ অভিযান কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক (কারিগরিক) জাকির হোসেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, রংপুর সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক রইচ উদ্দিন সরকার, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক তৌহিদুর রহমান টুটুল, জেলা মিল মালিক সমিতির সভাপতি হাসান আলী মিয়া, সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম, সদর উপজেলা চাউলকল মালিক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলতাফ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সামছুল আলম বাবু প্রমুখ।

এবার রংপুরে ধান ও চাল সংগ্রহ অভিযান দেরিতে শুরু হলেও বিপাকে পড়েছেন খাদ্য বিভাগ। শুধুমাত্র চাল সংগ্রহের মধ্যে এই অভিযানের আনুষ্ঠানিকতা হয়েছে। কৃষকদের তালিকা হাতে না পাওয়ায় ধান সংগ্রহ শুরু করা হচ্ছে না বলে জানান সদর উপজেলা খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আরেফীন।

তিনি জানান, ‘সরকার নির্ধারিত দরেই রংপুর সদরে চাল সংগ্রহ করা হচ্ছে। কৃষকদের তালিকা পাওয়ার পর ধানও সংগ্রহ করা হবে। এবার ৩৬ টাকা দরে সদর উপজেলার কৃষকদের কাছ থেকে ৪ হাজার ৬৮৪ মেট্রিক টন চাল, ৩৫ টাকা কেজি দরে ১৯১ মেট্রিক টন আতপ চাল এবং ২৬ টাকা কেজি ৪৮০ মেট্রিক টন ধান ক্রয় করা হবে।’

অন্যদিকে সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক রইচ উদ্দিন সরকার জানান, ‘এবার রংপুর জেলার কাউনিয়া, গঙ্গাচড়া, তারাগঞ্জ, বদরগঞ্জ, পীরগঞ্জ, মিঠাপুকুর, পীরগাছা ও রংপুর সদর উপজেলায় ২৫ হাজার ১৯০ মেট্রিক টন চাল ও ৩ হাজার ৯৯৮ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ করা হবে। এছাড়াও আতপ চাল সংগ্রহ করা হবে ৭২৬ মেট্রিক টন। সংগ্রহ অভিযানের লক্ষ্যে জেলা খাদ্য বিভাগ ৮৯৪ জন ডিলারের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে।’

রইচ উদ্দিন সরকার বলেন, ‘রংপুর সদর উপজেলায় ধান সংগ্রহ করা হবে ৪৮০ মেট্রিক টন ও ৪ হাজার ৬৮৪ মেট্রিক টন চাল। বদরগঞ্জ উপজেলায় ৫২৩ মেট্রিক টন ধান ও ২ হাজার ১৩৫ মেট্রিক টন চাল, মিঠাপুকুর উপজেলায় ১ হাজার ৩৮ মেট্রিক টন ধান, ৫ হাজার ১৮৫ মেট্রিক টন চাল।
পীরগঞ্জ উপজেলায় ৬৯১ মেট্রিক টন ধান ও ৫ হাজার ৩৯১ মেট্রিক টন চাল, তারাগঞ্জ উপজেলায় ২৪৫ মেট্রিক টন ধান ও ২ হাজার ৩৭৯ মেট্রিক টন চাল সংগ্রহ করা হবে। এছাড়া গঙ্গাচড়া থেকে ৩৪৩ মেট্রিক টন ধান ও ১ হাজার ২৯৪ মেট্রিক টন চাল, কাউনিয়ায় ২৩৩ মেট্রিক টন ধান ও ১ হাজার ৪ মেট্রিক টন চাল এবং পীরগাছা উপজেলা হতে ৪ হাজার ৮৪৫ মেট্রিক টন ধান ও ২ হাজার ২১৮ মেট্রিক টন চাল সংগ্রহ করা হবে।’

কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, এ বছর রংপুর বিভাগে ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২০ লাখ ৮৮ হাজার ১০৮ মেট্রিক টন। এরমধ্যে ৩০-৩৫ ভাগ ধান ইতোমধ্যে কর্তন করা হয়েছে। ধানের বাজারমূল্য কম হওয়ায় এবার মূলধন হারানোর শঙ্কায় রয়েছেন কৃষক।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)