আপডেট ৩ মিনিট ৪৩ সেকেন্ড

ঢাকা রবিবার, ৮ আশ্বিন, ১৪২৬ , শরৎকাল, ২৩ মুহাররম, ১৪৪১

লাইফস্টাইল নারীর প্রয়োজন একটু বেশি নিদ্রা

নারীর প্রয়োজন একটু বেশি নিদ্রা

নিরাপদ নিউজ: সন্তানের স্কুল, স্বামীর অফিস সবকিছু রেডি করে দিয়ে নিজের কর্মক্ষেত্রের জন্য তৈরি হওয়া। আর কর্মজীবী নারী না হলেও সংসারের নানা হ্যাপা সামলাতেই তো চলে যায় সময়। ঘরের কাজেও চাপ কম নয়। সারা দিন নারীকে সেই চাপ বয়ে বেড়াতে হয়। নানা জটিলতা ও চাপের মধ্যে সেরিব্রাল কর্টেক্স চায় পর্যাপ্ত বিশ্রাম। কিন্তু একজন নারী তার সারা দিনের কর্মব্যস্ততার মধ্যে কতটুকু বিশ্রাম নেন? যতটুকু দরকার, ততটুকু কি তিনি ঘুমাতে পারেন?

মার্কিন এক গবেষণায় দেখা গেছে, রাতে গড়ে পুরুষ যতক্ষণ ঘুমান, নারীর প্রতি ঘণ্টায় তার থেকে ২০ মিনিট বেশি ঘুমানো প্রয়োজন। রাতের পরিপূর্ণ ঘুম পরদিন তাকে দেবে সতেজ ভাব আর ফুরফুরে অনুভূতি। আর দিনে যদি ক্লান্ত লাগে, তাহলেও আধ ঘণ্টা বা ১ ঘণ্টা ঘুমিয়ে সেই ক্লান্তিভাব দূর করে নিতে পারেন যে কেউ।

মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা গবেষণা করে তথ্য প্রকাশ করেন, রাতে পর্যাপ্ত ঘুম একজন নারীকে পরদিন ফুরফুরে মেজাজে রাখে। বিবাহিত জীবন থেকে শুরু করে ঘরের কাজও তিনি উপভোগ করেন।

প্রতিটি কাজ সম্পন্ন করতে পারেন সুশৃঙ্খলভাবে। ৯০০ নারীর ঘুমের ওপর গবেষণা করে দেখা যায়, যারা ১ ঘণ্টা বেশি ঘুমান, তারা অন্যদের চেয়ে কাজে বেশি মনোযোগী থাকেন এবং তাদের বার্ষিক আয়ও বেশি থাকে। কর্মক্ষেত্র এবং বাড়িতেও সবসময় উৎফুল্ল থাকেন তারা।

ঘরে-বাইরে সামাল দিতে গিয়ে মহিলারা ঘুমের জন্য সময় একটু কমই পান, এ কথা কি আদৌ সঠিক? নারীরা যদি পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করেন, গুছিয়ে পালন করেন নিজের দায়িত্ব, তাহলে প্রয়োজন অনুযায়ী ঘুমাতে পারবেন তিনি। কর্মজীবী কিংবা গৃহিণী নারীরা সবসময় নিজেদের রাখতে পারেন গোছানো ও পরিপাটি।

নিয়মিত যোগব্যায়াম, ব্যায়াম, ইতিবাচক চিন্তা আপনাকে রাখবে সুস্থ ও সাবলীল। শরণাপন্ন হতে পারেন স্পা কিংবা ফেসিয়ালের। যেতে পারেন জিমে। মাথায় রাখবেন নিজেকে সুস্থ ও সৃষ্টিশীল রাখতে যা করা প্রয়োজন, তা থেকে কখনই বঞ্চিত করবেন না নিজেকে।

সুখনিদ্রার পরামর্শ

– ঘুমাতে যাওয়া এবং ঘুম থেকে ওঠার সময় ঠিক রাখুন। প্রতিদিন একটা নির্দিষ্ট সময় মেনে চলুন। ছুটির দিনটিও যেন এ রুটিনের বাইরে না যায়।

– ঘুমাতে যাওয়ার আগে আপনি পড়তে পারেন পছন্দের বই। মৃদুস্বরে শুনতে পারেন কোনো গান। পান করুন এক কাপ গরম দুধ। এটি আপনার ঘুমে সহায়তা করবে।

– যে পোশাকটি পরে আপনি ঘুমাতে যাচ্ছেন, তা কি ঘুমানোর উপযোগী? রাতে ঘুমানোর সময় ঢিলেঢালা সুতির পোশাক পরুন।

– শোয়ার আগে অন্ধকার করে নিন ঘর। আলো নেভানো থাকলে পরিপূর্ণ ঘুমের নিশ্চয়তা পাবেন আপনি। আর নজর রাখেন কোনো শব্দের প্রবেশ যেন না হয় নিদ্রা ঘরে।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)