ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট অক্টোবর ২৩, ২০১৯

ঢাকা শনিবার, ৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ২৪ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১

জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস, নিসচা সংবাদ, লিড নিউজ নিরাপদ সড়কের দাবিতে প্রবাসের মাটিতে ইলিয়াস কাঞ্চনের নাতি/নাতনি

নিরাপদ সড়কের দাবিতে প্রবাসের মাটিতে ইলিয়াস কাঞ্চনের নাতি/নাতনি

নিরাপদনিউজ: গতকাল ২২অক্টোবর ছিলো জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস ২০১৯ এবং জাহানারা কাঞ্চনের ২৬তম মৃত্যুবার্ষিকী। সারাদেশে সরকারিভাবে ও নিসচা শাখার উদ্যোগে নানা কর্মসূচির মধ্যদিয়ে পালিত হয় দিবসটি। শুধু দেশে নয় বিদেশের মাটিতেও দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় উদযাপন করা হয়। ইলিয়াস কাঞ্চনের নেতৃত্বে গড়ে ওঠা নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলন যখন প্রতিটি ঘরে ঘরে প্রতিটি মানুষের মুখে মুখে তখন ইলিয়াস কাঞ্চনের তৃতীয় জেনারেশন ছেলে ও মেয়ের ঘরের নাতি নাতনিও চুপ করে বসে নেই। সকলের সাথে ইলিয়াস কাঞ্চনের ছোট্ট অবুঝ নাতি/নাতনিও আজ নিরাপদ সড়ক বাস্তবায়নে নিরাপদ সড়ক এর দাবিতে মাঠে।

প্রবাসের মাটিতে (যুক্তরাজ্য) ইলিয়াস কাঞ্চনের মেয়ে ইমার একমাত্র কন্যা আর্শিয়া মাহনাজ ইসলাম ও পুত্রর হাতে ‘পথ যেন হয় শান্তির, মৃত্যুর নয়’- স্লোগানের প্ল্যাকার্ড । পরনে নিরাপদ সড়ক চাই এর গেঞ্জী। চোখে মুখে প্রতিবাদি ভাষা। নানি মৃত্যুর মতো আর যেন কারো মৃত্যু না হয় সড়ক পথে তাই নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনে ছোট্ট অবুঝ কমল নিষ্পাপ শিশু দুটিও যেন হাল ধরেছে নানার সাথে। তারাও দায়িত্ব বুঝে নিয়েছে। সড়ক পথে আর কারো মৃত্যু নয়। নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করতে এই শিশু দুটি যেন মায়ের কোল থেকেই যুদ্ধে নেমেছে। নাতি নাতির এমন উচ্ছাস দেখে আশার আলো দেখতে পাচ্ছেন ইলিয়াস কাঞ্চন।

তিনি আর একা নন। তার যুদ্ধে আজ যুক্ত হয়েছে নিজের ঘরের পুচকে যোদ্ধারা। জনকল্যাণে নিবেদিত এই নায়ক নিজ হাতে নিসচা সৈনিক হিসেবে গড়ে তুলতে চান তার নাতি নাততিদের। আগামী দিনে যখন ইলিয়াস কাঞ্চন হয়তো বা থাকবেন না তখন যেন কেউ নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের জনকল্যানমুখি কার্যক্রম থেকে বঞ্চিত না হয়। থেমে না যায় ইলিয়াস কাঞ্চনের স্বপ্ন।

ইলিয়াস কাঞ্চন সকলের প্রতি আহবান জানান সড়ককে নিরাপদ রাখতে পরিবারের সকল সদস্যকে সচেতন করে গড়ে তুলুন, তাদের এই আন্দোলনের প্রতি আগ্রহী করুন, আন্দোলনে সম্পৃক্ত করুন। আমি বিশ্বাস করি প্রতিটি ঘরে ঘরে সকলের হাতে নাতি/নাতনির মত দাবি নিয়ে প্ল্যাকার্ড উঠে আসবে, আপনাদের প্রতি আহবান জানাবো পরবর্তী জেনারেশনকে সড়ক নিরাপদ আন্দোলনের জন্য তৈরি করুন- যে পথ বেয়েই একদিন সড়ক নিরাপদ হয়ে উঠবে।

গতকাল ‘জীবনের আগে জীবিকা নয়, সড়ক দুর্ঘটনা আর নয়’-এ প্রতিপাদ্য নিয়ে তৃতীয়বারের মতো সরকারিভাবে দিবসটি পালিত হয়। রাজধানীর ফার্মগেটের খামারবাড়ী কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে জাতীয় ‘নিরাপদ সড়ক দিবস-২০১৯’ উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে এ সময় সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি একাব্বর হোসেন, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন ফেডারেশনের কার্যকরী সভাপতি ও সাবেক নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান, সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্লাহ,নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) দীর্ঘ ২৬ বছর ধরে সড়ককে নিরাপদ করার লক্ষ্যে আন্দোলন করে আসছে। সড়ককে নিরাপদ করার আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় প্রতি বছর ২২ অক্টোবর জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত হয়। ২৬ বছর আগে চট্টগ্রামের অদূরে চন্দনাইশে বান্দরবানে স্বামী ইলিয়াস কাঞ্চনের কাছে যাবার পথে মর্মান্তিক এক সড়ক দুর্ঘটনায় জাহানারা কাঞ্চন নিহত হন। রেখে যান অবুঝ দুটি শিশু সন্তান জয় ও ইমাকে। ইলিয়াস কাঞ্চন সে সময় ছবির স্যুটিংয়ে বান্দরবান অবস্থান করছিলেন। স্ত্রীর অকাল মৃত্যুতে দু’টি অবুঝ সন্তানকে বুকে নিয়ে শোককে শক্তিতে রূপান্তরিত করে ইলিয়াস কাঞ্চন নেমে আসেন পথে। পথ যেন হয় শান্তির, মৃত্যুর নয়- এই শ্লোগান নিয়ে গড়ে তুলেন একটি সামাজিক আন্দোলন ‘নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)’। ২২ অক্টোবর জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস এবং মরহুমা জাহানারা কাঞ্চনের ২৬তম মৃত্যুবার্ষিকী, যাঁর অকাল মৃত্যুতে সড়ককে নিরাপদ করার এই সামাজিক আন্দোলনের জন্ম। ২০১৭ সালের ৫ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রী সভার বৈঠকে ২২ অক্টোবরকে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও অনুমোদন করা হয়। একই বছরের ২২ অক্টোবর বাংলাদেশে প্রথম জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত হয়। ‘জীবনের আগে জীবিকা নয়, সড়ক দুর্ঘটনা আর নয়’-এ প্রতিপাদ্য নিয়ে তৃতীয়বারের মতো দিবসটি এবার সারা দেশে পালিত হয়।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)