ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ১১ মিনিট ২২ সেকেন্ড

ঢাকা মঙ্গলবার, ১১ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ , গ্রীষ্মকাল, ৯ই শাবান, ১৪৩৯ হিজরী

জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস, নিসচা সংবাদ, লিড নিউজ ‘পহেলা বৈশাখ’ এখন বাঙ্গালীর সার্বজনীন উৎসবে পরিণত হয়েছে: ইলিয়াস কাঞ্চন

‘পহেলা বৈশাখ’ এখন বাঙ্গালীর সার্বজনীন উৎসবে পরিণত হয়েছে: ইলিয়াস কাঞ্চন

‘পহেলা বৈশাখ’ এখন বাঙ্গালীর সার্বজনীন উৎসবে পরিণত হয়েছে

এস এম আজাদ হোসেন, ১৫ এপ্রিল, ২০১৭, নিরাপদনিউজ : পহেলা বৈশাখে পুরনো বছরের সব গ্লানি, অপ্রাপ্তি আর বেদনা ভুলে  নতুন আনন্দে ভাসে গোটা জাতি। পহেলা বৈশাখ। বাঙালির প্রাণের উৎসব। একটি নতুন দিন, একটি নতুন বছরের শুভ সূচনা। শুভ নববর্ষ। স্বাগত ১৪২৪।

চৈত্রের রুদ্র দিনের পরিসমাপ্তি শেষে  বাংলার ঘরে ঘরে নতুন বছরকে স্বাগত জানাচ্ছে সব বয়সের মানুষ। বাঙালির জীবনের সবচেয়ে আনন্দের দিন এই পহেলা বৈশাখ। নতুন আলোর কিরণ শুধু প্রকৃতিকে নয়, রঞ্জিত করে নতুনরূপে সাজিয়ে যাবে প্রত্যেক বাঙালির হৃদয়কেও।

হাজার বছরের ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায়  বাঙালি হারিয়ে গেছে বাঁধভাঙা উল্লাসে। উৎসব, আনন্দ আর উচ্ছাসে ভরে গেছে বাংলার মাঠ-ঘাট-প্রান্তর। নতুন দিনের সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে পুরনো সব জরা গ্লানিকে মুছে ফেলে সকলে গেয়ে উঠেছে নতুন দিনের গান।

১৪২৩-এর আনন্দ-বেদনা, হাসি-কান্নার হিসাব চুকিয়ে নতুন করে পথচলা শুরু হলো। জাতি-ধর্ম-বর্ণ-গোত্র নির্বিশেষে সার্বজনীন উৎসবে নববর্ষ উদযাপনে একসঙ্গে গাইছে সবাই ‘এসো হে বৈশাখ এসো এসো’। গ্রাম থেকে শহর, গলি থেকে রাজপথ, আঁকা-বাঁকা মেঠো পথ থেকে অফুরান প্রকৃতি- সবখানেই দোল দিচ্ছে বৈশাখী উন্মাদনা। মুড়ি মুড়কি, মণ্ডা মিঠাইয়ের সঙ্গে নাচে-গানে, ঢাকে-ঢোলে, শোভাযাত্রায় পুরো জাতি বরণ করছে নতুন বছরকে।

এরই ধারাবাহিকতায় নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) প্রতি বছরের ন্যায় এবারো আয়োজন করেছিল ‘বৈশাখী মিলন মেলার। সংগঠনের কেন্দ্রীয় কার্যালয় ৭০, কাকরাইলে বিকেল ৫টায় বসেছিল নিসচা পরিবারের জাকজমক মিলন মেলা।

চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনের ডাকে জড়ো হয়েছিল সঙ্গঠনের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।বিভিন্ন প্রকারের  ফল ও মিষ্টির সমাহার দিয়ে সাজানো নিসচার এই আয়োজন উদ্বোধন করেন চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন।দেশবাসীকে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি বলেন’ পহেলা বৈশাখ’ এখন বাঙ্গালীর সার্বজনীন উৎসবে পরিণিত হয়েছে।

তিনি বলেন, বাংলা নববর্ষের এই বর্ণিল উদযাপন মানুষের মাঝে অনাবিল আনন্দ, উৎসাহ-উদ্দীপনা আর সম্প্রীতির বার্তা নিয়ে আসে।

‘আমাদের বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও স্বকীয়তা আজ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে স্বীকৃত। পহেলা বৈশাখের মঙ্গল শোভাযাত্রা ২০১৬ সালে জাতিসংঘের ইউনেস্কোর সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের স্বীকৃতি পেয়েছে, যা বাঙালি হিসেবে বিশ্বের বুকে আমাদের মর্যাদাকে বাড়িয়ে দিয়েছে।

তিনি দেশে ও দেশের বাইরে সকল বাঙ্গালীকে নিরাপদে পথ চলার আহবান জানান। এই সুন্দর আয়োজন সু-সম্পন্ন করায় তিনি কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আজাদ হোসেনকে  ধন্যবাদ প্রদান করেন এবং যারা অনুষ্ঠানে সহযোগিতা করেছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন মহাসচিব শামীম আলম দীপেন,ভাইস চেয়ারম্যান সৈয়দ এহসান উল হক কামাল, যুগ্ম-মহাসচিব লায়ন গনি মিয়া বাবুল,সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আজাদ হোসেনসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।


কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন ভাইস চেয়ারম্যান রফিকুজ্জামান,যুগ্ম-মহাসচিব বেলায়েত হোসেন খান নান্টু,অর্থ সম্পাদক নাসিম রুমি,সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহমান,দুর্ঘটনা অনুসন্ধান ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক এ কে এম ওবায়দুর রহমান স্বস্ত্রীক,সহ-দপ্তর সম্পাদক সাবিনা ইয়াসমিন,সহ-প্রচার সম্পাদক আব্দুল গফুর সাগর,কার্যকরি সদস্য সুরাইয়া রহমান মনি,সাধারণ সদস্য ও সভাপতি নন্দিগ্রাম উপজেলা তৌফিক আহসান, ড,আব্দুল হক ও তার পরিবার,ফারদিন,হুমায়ুন হিমু,সাকিব,এম,ও,এফ আর সাগরসহ আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)