আপডেট ৩৩ সেকেন্ড

ঢাকা শনিবার, ১০ চৈত্র, ১৪২৫ , বসন্তকাল, ১৬ রজব, ১৪৪০

রাজশাহী, সড়ক সংবাদ পুলিশ-প্রশাসনের উদাসীনতায় রাণীনগরে দাপিয়ে চলছে শতাধিক মাটিবাহী ট্রাক্টর!

পুলিশ-প্রশাসনের উদাসীনতায় রাণীনগরে দাপিয়ে চলছে শতাধিক মাটিবাহী ট্রাক্টর!

সাইদুজ্জামান সাগর,নিরাপদ নিউজ: নওগাঁর রাণীনগরে চলতি ইট কাটার মৌসুমে কৃষি জমি হতে মাটি কেটে সড়ক পথে বিভিন্ন ইট ভাটায় চুক্তি ভিত্তিক মাটি পৌছে দেওয়ার জন্য রাণীনগর-আত্রাই সড়কসহ উপজেলার অভ্যন্তরীন সড়কে দিন রাত ২৪ ঘন্টা অবাধে দাপিয়ে চলছে শতাধিক মাটিবাহী ট্রাক্টর। অধিকাংশ ট্রাক্টর চালকরা বেপরোয়া গতিতে চালানোর কারণে মাঝে মধ্যে ঘটেই চলেছে ছোট-বড় দূর্ঘটনা। ট্রাক্টরের ধাক্কায় গত দুই বছরে স্কুল ছাত্রসহ বেশ কয়েক জন নিহত হলেও তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় শুধুমাত্র ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার কে কিছু টাকা দিয়ে মিমাংসার প্রবণতা দিনদিন বৃদ্ধি পাওয়ায় ট্রাক্টর চালক ও মালিকরা আইনের প্রতি তোয়াক্কা না করে বিরামহীন ভাবে অবৈধ ট্রাক্টর সড়ক পথে চালিয়ে যাচ্ছে। লাভজনক ব্যবসা হওয়ার কারণে একজনের দেখাদেখি আরেক জনও ট্রাক্টর ব্যবসার দিকে ঝুকে পড়ছে। অবৈধ ট্রাক্টরের বিরুদ্ধে পুলিশী ব্যবস্থা জোরদার করে নিরাপদে সড়কে চলাচলের ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

সম্প্রতি কিছুদিন আগেই রাণীনগর-আত্রাই সড়ক মেরামত এর কাজ সম্পূর্ণ করা হলেও অতিরিক্ত মাটি বোঝায় ট্রাক্টর চলাচলের কারণে এই সড়কটি আবারও খানা-খন্দ হতে শুরু হয়েছে। রাণীনগর সদরের উপজেলা বাসট্যান্ড, বিজয়ের মোড়, রেলগেট, উপজেলা প্রশাসনের সামনের সড়ক সহ বিভিন্ন শাখা সড়কে পিছু ছাড়ছে না যানজট আর ছোট-খাটো দুর্ঘটনা। এলাকার সাধারণ মানুষ বলছে, রাণীনগর থানাপুলিশ প্রায় প্রতিদিনই তাল্লশির নামে চেকপোষ্ট বসিয়ে বিভিন্ন যানবাহনের বৈধ কাগজপত্র না থাকলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হলেও পথচারিদের আতঙ্ক অবৈধ ট্রাক্টর চালক ও মালিকদের বিরুদ্ধে রহস্যজনক কারণে কিছুই করা ও বলা হয় না। এমনকি পুলিশের অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে অভিযানের ছোঁয়া ট্রাক্টর চালক-মালিকদের কাছে পৌছায় না। উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ চেকপোষ্ট বসিয়ে শুধুমাত্র মটরসাইকেল চালকদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে থাকে। সে ক্ষেত্রেও পুলিশের বিরুদ্ধে রয়েছে মটরসাইকেল চালকদের নানা হয়রানির অভিযোগ।

বেশি লাভের আশায় ট্রাক্টর মালিক পক্ষ স্বল্প বেতনে অপ্রাপ্ত বয়সের চালককে দিয়ে ট্রাক্টর চালানোর ফলে সড়কে চলাচলরত স্কুল গামী কমলমতি ছাত্র-ছাত্রী সহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ মাঝে মধ্যে ট্রাক্টরের চাপায় আহত ও নিহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়। তাদের পেশাগত কোন প্রশিক্ষণ না থাকায় ভ্যান চালক হেলপাররাই ট্রাক্টর মালিকদের ভরসা। যে চালক যত বেশি গতিতে গাড়ি চালিয়ে ইট ভাটায় বেশি মাটি পৌছে দিতে পারবে সেই চালককে মালিকরা বেশি পছন্দ করে। পাল্লা দিয়ে গাড়ি চালানোর কারণে বিকট শব্দে শব্দ দূষর্ণের কারণে শিশুদেরকে নিয়ে সড়কে হাটা-চলা করতে মারাত্মক ভাবে অসুবিধা হয়। এই রকম প্রতিযোগীতায় পৃষ্ট হচ্ছে সাধারণ মানুষ ও ছোট-খাটো যানবাহন।
অতিরিক্ত মাটি বহন করার কারণে সড়কে চলার পথে ঝাকুনি খেয়ে মাটি পড়ে যাওয়ার কারণে একটু বৃষ্টি হলেই পাকা সড়কগুলো চলাচলের অনুপযুগি হয়ে পড়ে। এছাড়াও রাণীনগর উপজেলায় অবাধে চলছে পাওয়ার ট্রেলার দিয়ে তৈরি অবৈধ ট্রলি গাড়ি। এক্ষেত্রেও মালিক পক্ষ অপ্রাপ্ত ছেলেদের দিয়ে মূল সড়কে চালিয়ে নেওয়া হচ্ছে। এই ধরণের গাড়ি গুলো উপজেলার ছ-মিলের জন্য বিভিন্ন এলাকা থেকে গাছের গুল ও কাঠ-খড়ি বহন করে। চালকদের বেপরোয়া চালানোর গতি এত বেশি হয় যে, মানুষ মারা গেলেও তাদের কিছু যায় আসে না! এ যেন মগের মল্লুক!

উল্লেখ্য, গত চার বছর ধরে হঠাৎ করে রাণীনগর উপজেলায় ফসলি জমির শ্রেণী পরিবর্তন না করে ভূমি আইন কে বৃদ্ধাঙ্গল দেখিয়ে ও জমির মালিকদের লোভনীয় অফারের ফাঁদে ফলে এক শ্রেণীর মাটি ব্যবসায়ী ও পুকুর খনন চক্র এই পর্যন্ত প্রায় আড়াই শতাধিক বিঘা ফসলি জমি পুকুরে পরিণিত করেছে। পুলিশ-প্রশাসনের উদাসীনতার কারণে রাণীনগর উপজেলায় ক্রমেই কমে যাচ্ছে আবাদি কৃষি জমি আর নষ্ট হচ্ছে ভাল পাকা সড়ক ও লেগেই আছে ছোট-বড় দূর্ঘটনা।

ট্রাক্টর মালিক সাইদুল ইসলাম জানান, আমাদের মালিক সমিতির আওতায় প্রায় শতাধিক ট্রাক্টর রয়েছে। অধিকাংশ ট্রাক্টরই মাটি ও বালু বহনের সাথে জরিত। প্রতি গাড়ি মাটি উপজেলার বিভিন্ন ইট ভাটায় ৭ শ’ টাকা হারে আমরা পৌছে দেই।

রাণীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ এএসএম সিদ্দিকুর রহমান জানান, ট্রাক্টর গুলো অবাধ চলাচলের কারণে সদরে এক দিকে যেমন সৃষ্টি হচ্ছে যানজটের অন্য দিকে ছোট-খাটো দুর্ঘটনা লেগেই আছে। শীঘ্রই অবৈধ এই যানবাহনের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: আল মামুন বলেন, সড়কে চলাচলের ক্ষেত্রে ট্রাক্টর গাড়ির কোন অনুমোদন নেই। খুব শীঘ্রই তালিকা করে এসব ট্রাক্টর চালক ও মালিকদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)