ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ৩৯ সেকেন্ড

ঢাকা শনিবার, ২৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ১৬ রবিউস-সানি, ১৪৪১

মিডিয়া ফটোসাংবাদিক লুৎফর রহমানের ১২তম মৃত্যুবার্ষিকী কাল

ফটোসাংবাদিক লুৎফর রহমানের ১২তম মৃত্যুবার্ষিকী কাল

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি, নিরাপদ নিউজ: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রিয়ভাজন ও প্রিয় ফটো সাংবাদিক লুৎফর রহমানের ১২তম মৃত্যুবার্ষিকী ১১ অক্টোবর ২০১৯ (শুক্রবার)। দীর্ঘ ৪৫ বছরের কর্মময় জীবনে প্রয়াত লুৎফর রহমান ১৯৫৪’-এর যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনী প্রচারণা, ৭০-এর নির্বাচন এবং ১৯৭১ সালের ৭ মার্চের ভাষণসহ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের অসংখ্য দুর্লভ ছবি তুলেছেন। স্বাধীনতা পরবর্তী বাংলাদেশের রাজনীতি ও রাষ্ট্রীয় প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ আনুষ্ঠানিকতা ও ঘরোয়া মুহূর্তের বহুমূল্যবান ছবি তাঁর ক্যামেরায় ধারণ করেছেন। যা আজকালের সাক্ষী; ইতিহাসের দৃশ্যপট হিসেবে প্রজন্ম প্রজন্মান্তরে ছড়িয়ে পড়ছে, পড়বে।
১৯৭২ সালে বাংলাদেশ সরকার প্রবর্তিত ৫ ও ১০ টাকার নোটে ব্যবহৃত বঙ্গবন্ধুর ছবিটিও তাঁরই তোলা। এজন্য তিনি পুরস্কৃত হয়েছেন। বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক সম্প্রতি প্রতিষ্ঠিত মিরপুরস্থ ‘টাকাজাদুঘর’-এর ১ নং হলে সংরক্ষিত আছে ফটোগ্রাফার লুৎফর রহমানের তোলা বঙ্গবন্ধুর ছবি সম্বলিত ৫ ও ১০ টাকার নোট দুটো। জাতিরপিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের “অসমাপ্ত আত্মজীবনী” বইটিতে বঙ্গবন্ধুর প্রিয় আলোকচিত্র শিল্পী মরহুম লুৎফর রহমানের তোলা বঙ্গবন্ধু ও হোসেন সোহরাওয়ার্দীর রাজশাহী সফরের এক দুর্লভ আলোকচিত্র ছাপানো হয়েছে। এছাড়াও তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান ও শহীদ সোহরাওয়াদীর ১৯৫৪ সালে রাজশাহীতে নৌকা দিয়ে পদ্মা নদী পাড়ি দেয়ার এক দুর্লভ ছবি তোলেন যা জাতির পিতার ৪০তম শাহাদাৎ বার্ষিকীতে জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় গত ১৩ আগষ্ট ২০১৫ তারিখে “চিত্র গাঁথায় শোক গাঁথা” শীর্ষক প্রদর্শনীতে প্রদর্শীত হয় এবং ছবিটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকৃষ্ট করে।
বঙ্গবন্ধু তাঁর এই একান্ত প্রিয় ভাজন ফটোসাংবাদিককে একটি ক্যামেরা উপহার দিয়েছিলেন। বাংলাদেশের রাজনীতির আর্কাইভ হিসেবে খ্যাত ‘প্রতিচ্ছবি’ ফটোগ্রাফার্স লুৎফর রহমানের নিজস্ব উদ্যোগ। যা বর্তমানে তাঁর একমাত্র পুত্র বাংলাদেশ বেতারের আলোকচিত্র শিল্পী মোস্তাফিজুর রহমান মিন্ট ু‘প্রতিচ্ছবি ফটোগ্রাফার্স’-এর তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হচ্ছে। প্রয়াত আলোকচিত্রী বাংলাদেশ বেতারের আলোকচিত্রী (নিজস্ব শিল্পী) হিসেবে চাকরি করতেন। জাতীয় বেতার ভবনের দোতালায় কেন্দ্রী বার্তা সংস্তার করিডোরে তাঁর তোলা স্বাধীনতা যুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুর বিভিন্ন ছবি টাঙ্গানো আছে।
লুৎফর রহমানের তোলা বহু দুর্লভ আলোকচিত্র ‘চিরঞ্জীব শেখ মুজিব’, ‘বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতির মহানায়ক’, ‘বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ’ সহ মূল্যবান বহু দালিলিক গ্রন্থে মুদ্রিত হয়েছে। আলোকচিত্রী লুৎফরের পেশা জীবনের ওপর তার সুযোগ্য সন্তান মোস্তাফিজুর রহমান মিন্ট ুসম্পাদনা করেছেন ‘জীবনের প্রতিচ্ছবি’ নামের একটি গ্রন্থ। যাতে মুদ্রিত হয়েছে খ্যাতিমান লেখকদের মূল্যবান প্রবন্ধ নিবন্ধসহ স্মৃতিচারণমূলক লেখা।
কালের সাক্ষী ফটোগ্রাফার লুৎফর রহমান ব্যক্তিগত জীবনে ছিলেন সদালাপী ও পরোপকারী। প্রখ্যাত ফটোগ্রাফার ২০০৬ সালের ১১ অক্টোবর ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তিনি এক পুত্র ও তিন কন্যা সন্তান রেখে যান। তার সহধর্মিনী ও দু’কন্যা বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী। মরহুমের আত্মার শান্তি কামনায় আগামীকাল ১১ অক্টোবর (শুক্রবার) ঢাকার মহাখালী ওয়ারলেস গেটের সন্নিকটবর্তী তাঁর নিজ বাসভবন এক দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। মরহুমের সহকর্মী, শুভাকাঙ্খী ও নিকটাত্মীয় ছাড়াও সমাজের বিশিষ্টজন উপস্থিত থাকবেন বলে আশা করছেন মরহুমের শোকার্ত পরিবার।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)