আপডেট ৩১ মিনিট ২১ সেকেন্ড

ঢাকা সোমবার, ৯ আশ্বিন, ১৪২৬ , শরৎকাল, ২৪ মুহাররম, ১৪৪১

সড়ক সংবাদ বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সার কদর বেড়েছে

বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সার কদর বেড়েছে

 বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা

বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা

আমিন, ২৫ মার্চ ২০১৫, নিরাপদ নিউজ: বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার বিভিন্ন সড়কে ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সার চলাচল বেড়েছে। ইতিপূর্বে স্কুটার, সিএনজি ও ভটভটির (নছিমন) পর এবার তিন চাকা বিশিষ্ট ব্যাটারি চালিত আকর্ষণীয় রং সংবলিত এই অটোরিক্সা বিভিন্ন শিক্ষিত যুবকসহ অনেকের কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দিয়েছে। ভাড়া কম, পরিবহন সুবিধা, পরিবেশ বান্ধব নিয়ন্ত্রিত গতি এবং চালকদের সদাচারণের কারণে এ বাহনটি স্বল্প সময়ে সর্বস্তরের যাত্রীদের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। সম্প্রতি দেশে রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে টানা অবরোধ ও হরতালে এই ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সার কদর আরও অনেকগুণ বেড়েছে। দুপচাঁচিয়া উপজেলায় একসময় রিক্সা ভ্যান ও টমটম (ঘোড়ার গাড়ি) এর প্রচলন ছিল ব্যাপক। সময়ের আবর্তে আধুনিকতার ছোঁয়ায় এলাকার রাস্তা ঘাটের উন্নয়নের সাথে সাথে যানবাহনেরও পরিবর্তন হয়। চালু হয় স্কুটার, সিএনজি ও ভটভটি। সম্প্রতি এসব যানবাহনের সাথে যোগ দিয়েছে সিএনজির মতো আকর্ষণীয় তিন চাকা বিশিষ্ট ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা স্থানীয় ভাষায় পরিচিত টমটম। ফলে এসব এলাকায় এখন স্কুটার, সিএনজি, ভটভটি, রিক্সা ও সাইকেল ভ্যানের পরিবর্তে অতি অল্প ভাড়ায় এসব যানবাহন ব্যাপক চলাচল করছে। এতে যেমন উপকৃত হচ্ছে এলাকাবাসী তেমনি উপকৃত হচ্ছে এসব পরিবহনের চালক ও মালিকরা। চায়নার তৈরি তিন চাকা বিশিষ্ট ৬সিট সংবলিত ব্যাটারির চার্জ উপযোগী এসব ছোট ছোট যানবাহনকে স্থানীয় ভাষায় বলে ব্যাটারি চালিত টমটম। পরিবহনটি ইচ্ছামত পাকা সড়ক দিয়ে প্রায় ৪০ থেকে ৪৫ কিলোমিটার গতিবেগে চলাচল করতে পারে। তবে এর সাধারণ গতিবেগ ঘন্টায় ২০ থেকে ২৫ কিলোমিটার। তেল, মবিল বা গ্যাস তোলার কোন ঝক্কি ঝামেলা না থাকায় চালকরা যানবাহনটি চালিয়ে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। এটির খরচও অত্যন্ত কম। একবার ব্যাটারিতে বৈদ্যুতিক চার্জ দিলে প্রায় ১২০ কিলোমিটার পর্যন্ত চলাচল করতে পারে। চার্জ ফুরিয়ে গেলে আবার প্রায় ২ ঘন্টা চার্জ দিলে পূর্ণ উদ্যোগে পুনরায় চলতে পারে। দুপচাঁচিয়া উপজেলার তালোড়া রেলঘুমটি এলাকার আব্দুল রশিদের পুত্র মামুন (৩১) জানান, অনেক চেষ্টা করে কোন চাকরি বা কাজ না পাওয়ায় অনেকটা হতাশ হয়ে পড়ি। দেশে কিছুদিন বেকার জীবন যাপনের পর ভটভটি ভাড়া নিয়ে দুপচাঁচিয়া তালোড়া সড়কে চলাচল শুরু করি।
যানবাহনটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় অনেক কষ্ট করে নওগাঁ জেলা শহর থেকে ১ লাখ ৫২ হাজার টাকার কিস্তিতে একটি ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা ক্রয় করে। প্রতিদিন উপজেলা ও তার আশপাশে এলাকার বিভিন্ন গ্রাম হাট ও বাজারে অনায়াসে যাতায়াত করে। এতে প্রতিদিন সে সর্বনিম্নে ৩শ থেকে প্রায় সাড়ে ৩শ টাকা আয় করেন। এমনি ভাবে দুপচাঁচিয়া উপজেলার গোবিন্দপুর ইউনিয়নে খিহালী দক্ষিণ পাড়ার নবীর উদ্দিন প্রামানিকের বিএ পাস পুত্র জাহাঙ্গীর আলম, উপজেলার তালোড়ার সরঞ্জাবাড়ি গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক, আব্দুল মজিদ প্রমুখ জানায়, ব্যাটারি চালিত চার্জ সম্পূর্ণ এই পরিবহনটি অত্যন্ত পরিচ্ছন্ন ও সুদৃশ্য। এছাড়াও অনেক বেকার যুবক ব্যাটারি চালিত এই অটোরিক্সা চালিয়ে আজ স্বাবলম্বী হয়েছে। তারা আরও জানান, সবদিকে সুবিধা থাকলেও এই এলাকায় পরিবহনটি নতুন। উপজেলায় ভটভটি স্কুটার ও সিএনজির স্ট্যান্ড থাকলেও জনপ্রিয় এই ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সাটি
নিয়মিত অল্প রাস্তা যাতায়াত করা ও রিজার্ভ চলাচল করলেও পরিবহনটির নির্দিষ্ট কোন স্ট্যান্ড নেই। ফলে তাদের অনেক ক্ষেত্রে যাত্রী ওঠানামা করতে বিড়ম্বনায় পড়তে হয়। প্রায় দু’মাসাধিকাল যাবৎ বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দল রাজপথ অবরোধসহ হরতাল করছে। এই সময়ে যান্ত্রিক চালিত সকল যানবাহন বন্ধ থাকলেও ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সাটি যথারীতি চলাচল করছে। তাদের ব্যাটারি চালক অটোরিক্সার কদর অনেক বেড়েছে। এ ক্ষেত্রে ২টি পয়সা বেশি আয়ের আশায় তারাও ঝুঁকি নিয়েই এই ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা চালিয়ে আসছে। দুপচাঁচিয়া-তালোড়া, তালোড়া-কুন্দগ্রাম, তালোড়া-আলতাফনগর এমনকি দুপচাঁচিয়া-বগুড়া সড়কেও এই ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা চলাচল করছে। কোন যানবাহন না থাকায় যাত্রীরা কিছুটা ভাড়া বেশি দিয়ে এই ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সায় যাত্রী হচ্ছে।
এ দিকে প্রতিদিন প্রতিনিয়ত এরা এদের সমগোত্রীয় যানবাহনের কোপানলে পড়ে এবং অন্যায়ভাবে তাদের টাকা পয়সাও দিতে হয়। টাকা পয়সা না দিলে মাঝে মধ্যেই এই সুন্দর ও মনলোভা পরিবহনটি আটকিয়ে দিয়ে ভাঙার হুমকিও প্রদান করা হয়। এলাকার বেকার যুবকের আত্মনির্ভরশীল হিসাবে গড়ে তুলতে ঋণ বা কিস্তির মাধ্যমে এই ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা ক্রয়ের সুবিধা পেত। এলাকার শত শত যুবক স্বাবলম্বী হওয়ার সুযোগ পেত। এ ব্যাপারে বেকার যুবকরা সরকারের
সুদৃষ্টি কামনা করেছে।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)