ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট অগাস্ট ১৯, ২০১৮

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ৬ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ২৩ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১

পরিবেশ, রাজশাহী বগুড়ায় তীব্র গরমে মানুষ ও প্রাণিকুলের প্রাণ হয়ে উঠেছে অষ্ঠাগত

বগুড়ায় তীব্র গরমে মানুষ ও প্রাণিকুলের প্রাণ হয়ে উঠেছে অষ্ঠাগত

গোলাম রব্বানী শিপন, নিরাপদনিউজ : বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে আবহাওয়ার চেহারা বদলে গেছে। নীল আকাশে টগবগে রোদ। প্রতিমুহূর্তে পরিবর্তন হচ্ছে ভেপসা গরম। সময়ের সাথে সাথে বাড়তে শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতি। কয়েক দিনের টানা গরমে কোথাও নেই গতিময় কাঙ্ক্ষিত প্রশান্তির ছোয়া। বৈদ্যুতিক পাখার বাতাস কোন কাজে আসছে না। যদিও একটু শরীর জিরানো যায় তারপরেও শুরু হয় বিদ্যুতের ভেল্কিবাজি। ভাদ্রের তালপাঁকা গরমে গ্রামের শিশু কিশোরেরাও কাহিল। তারা স্বস্তি পেতে শ্যালো মেশিনের পানি দ্বারা শরীর ভিজাচ্ছেন ও পানি পান করছেন। গতকাল থেকে আজও মাত্রাতিরিক্ত তাপমাত্রায় প্রাণীকুল অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। শহর কিংবা গ্রাম সবখানেই প্রখর রোদ আর তীব্র গরমের কারণে মানুষ ও প্রাণিকুলের প্রাণ হয়ে উঠেছে অষ্ঠাগত। কোথাও মিলছে না একটু স্বস্তি। চারদিক শুধুই খাঁ খাঁ রোদ। সাথে একটু হাওয়ার কারণে শরীরে আগুনের ছ্যাঁকা লাগার মত অবস্থা। বগুড়ায় প্রখর রোদ ও গরমে দুপুরে রাস্তায় লোকজনও কমে গেছে। বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলের খেটে খাওয়া মানুষরা বেশি সমস্যায় পড়েছেন। সকাল থেকে তাপদহের কারনে মাঠে কাজ করতে পারছেন না তারা। এদিকে বগুড়ার মহাস্থানে গরমের কারণে রিকশা, ভ্যান, অটোচালক ও দিন মুজুররা তাদের কাজের ফাঁকে খুঁজে বেড়াচ্ছেন একটু স্বস্থির জায়গা। গাছের ছাঁয়া বা কোনো ঠাণ্ডা জায়গা তারা বসার জন্য খুঁজছেন। আবার গরমের কারণে নানা বয়সীর মানুষ ভিড় করছেন ঠাণ্ডা পানি ও সরবতের দোকান গুলোতে। আবার অনেকেই গরমের ক্লান্তি দূর করতে দোকান থেকে ফ্রিজের বোতলজাত কমলপানীয় পান করছেন। কেউ বা স্যালাইন, রাসনা, চিনি, গুড় কিনে শরবত বানিয়ে পান করছেন। এতে বেড়েছে পানীয় শরবত জাতীয় পণ্যের কদর। তবে কয়েক দিনের তাপদহের পর আজ মিলেছে একটু স্বস্তিদায় বাতাস।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)