আপডেট ২ মিনিট ২৭ সেকেন্ড

ঢাকা মঙ্গলবার, ১ কার্তিক, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ১৬ সফর, ১৪৪১

অপরাধ বাংলাদেশ কারাগার – অনিয়ম: ব্রেকিং ফাইল

বাংলাদেশ কারাগার – অনিয়ম: ব্রেকিং ফাইল

সম্পাদকীয়

সম্পাদকীয়

ব্রেকিং ফাইল একটি কারা অপরাধ বলে বিবেচিত হয়ে থাকে। কোন বন্দী কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ব্যতিরেকে তার লক-আপ এলাকার বাইরে অন্য কোন এলাকায় যায় তাকেই বলা হয় ব্রেকিং ফাইল। ব্রেকিং ফাইলের জন্য ডান্ডা বেরী পরিয়ে দেয়ার বিধান রয়েছে। কোন ক্ষেত্রে ওয়ার্ড কেটে দেয়া হয়। জেল কোড অনুসারে কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ব্যতীত লক-আপ এলাকার বাইরে অন্য এলাকায় গেলে তাকে ব্রেকিং ফাইল বলা হলেও বর্তমান কালে লক-আপ এলাকায় দায়িত্ব প্রাপ্ত জমাদার কারারক্ষীদের টাকা না দিয়ে লক-আপ এলাকার বাইরে গেলে ব্রেকিং ফাইল হয়। প্রতিটি কেন্দ্রীয় কারাগারেই একই প্রথা টাকা দিলেই লক-আপ এলাকায় বাইরে যেতে কোন বাঁধা নিষেধ নেই। দায়িত্ব প্রাপ্ত জমাদার অনকে সময় কোন কোন বন্দীদের নিকট হতে সাপ্তাহিকভাবে বখশিস নামক উৎকোচ গ্রহণ করে থাকেন নিয়মিত ব্রেকিং ফাইল করার জন্য। যেহেতু রক্ষীগণ প্রতিদিন বদলী হয়ে যায় সেক্ষেত্রে রক্ষীগণ প্রতিদিন বন্দীদের ব্রেকিং ফাইলের জন্য ১০/২০ টাকা যা পান তাই নেয়। টাকা দিলে কোন বাঁধা নিসেধ নেই। তবে প্রতি গেটেই টাকা দিয়ে গেট পার হতে হয় তবে ফিরার পথে কোন টাকা দিতে হয় না। সেল এলাকায় বন্দীদের ব্রেকিং ফাইলের বিষয়টি হলো ইজ্জতের প্রশ্ন, হাসপাতাল এলাকার বন্দীদের ব্রেকিং ফাইল হলো মান সম্মানের অধিকার। খাতা খাতা এলাকায় ব্রেকিং ফাইল হলো হকারদের যত্রতত্র যাওয়ার মতো। হাসপাতাল এলাকায় বন্দীগণ যখন তার এলাকা হতে বেরিয়ে আসেন তখন বুক ফুলিয়ে মাথা উঁচু করে হেটে আসেন। হাতে বেশ কিছু কুচরা টাকা থাকে। হাঁটতে থাকেন। গেটের কাছে এলেই কারারক্ষী সালাম ঠুকে দিবে। ভি.আই.পি হাসপাতাল বন্দী বলে কথা। প্রতি গেটে ২০/- টাকা করে দিয়ে এগিয়ে যেতে থাকেন। কাজ শেষ করে ফিরে আসেন ভি.আই.পি মর্যাদায়। কোথায় গেলেন কেন গেলেন কি করলেন তা জিজ্ঞাসা করার কেউ নেই। জিজ্ঞাসা করা হয় যাদের টাকা নেই। তাদের তাকিয়ে তাকিয়ে দেখতে হয়, টাকা দিয়ে কিভাবে সাথের বন্দী প্রতিদিন সমগ্র জেল ঘুরে এসে বলবে এটাকে বলে জেলের সম্মান। যিনি টাকা দিতে পারেন না তার হয় মহা মুসিবত একদিকে ছোট হতে হয় সাথের বন্দীর কাছে টাকার অভাবে বাইরে যেতে পারেনা বলে অন্যদিকে জমাদার কারারক্ষীদের হাসি ঠাট্টার শিকার হতে হয়। নানারূপ বাজে কথা বলা হয় অসহায় বন্দীকে উদ্দেশ্য করে। কারণ সে টাকা দিয়ে ব্রেকিং করে না বলে জমাদার রক্ষীগণ টাকা পায় না। তাই যত খোভ সেই বন্দীর ওপর।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)