আপডেট জানুয়ারি ১, ২০১৯

ঢাকা মঙ্গলবার, ৫ আষাঢ়, ১৪২৬ , বর্ষাকাল, ১৪ শাওয়াল, ১৪৪০

শিল্প-সংস্কৃতি বিনোদন সালতামামি: বছরজুড়েই ছিল নাটকের মঞ্চায়ন

বিনোদন সালতামামি: বছরজুড়েই ছিল নাটকের মঞ্চায়ন

নিরাপদনিউজ : টিভি নাটক-চলচ্চিত্রের মতো হিসাবনিকাশ হচ্ছে এবারের মঞ্চ নাটক নিয়েও।  আজ শুরু হল নতুন বছর। দেশে বরাবরই মঞ্চ নাটকের একটা ঐতিহ্য রয়েছে। এ বছরের শুরু থেকেই বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে একের পর এক নতুন প্রযোজনা নিয়ে মঞ্চ মাতিয়েছে নাট্য দলগুলো। প্রতিদিন এ একাডেমির ঢাকার তিনটি মঞ্চে তিনটি নাটক মঞ্চায়ন করা হয়েছে। সারা দেশে প্রায় পাঁচ শতাধিক নাট্য সংগঠন নাট্যচর্চার সঙ্গে যুক্ত। এই নাট্যদলগুলোও বিভিন্ন উৎসব উদযাপন উপলক্ষে নাটক মঞ্চায়ন করেছে চলতি বছরের প্রায় পুরোটাজুড়ে।

এ ছাড়া বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনভুক্ত এবং ফেডারেশনের বাইরে ৫০-৬০টি দল আছে, যারা নিয়মিত নাটকের কাজ করে গেছে সারা বছর। দেশের বাইরেও আমাদের নাটক এ বছর ব্যাপক সমাদর পেয়েছে। মেঠোপথ থিয়েটার ‘অতঃপর মাধো’ নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার সিউলে অনুষ্ঠিত কোরিয়া ইন্টারন্যাশনাল ডুও পারফর্মিং আর্টস ফেস্টিভ্যালে (১৮তম কিডপাফ) স্পেশাল পারফরম্যান্স বুক অব অনারে সম্মানিত হয়েছে। স্বপ্নদল ‘ত্রিংশ শতাব্দী’ নাটক নিয়ে জাপানে প্রদর্শনী করেছে। নাগরিক এবং নটনন্দন যথাক্রমে ‘ওপেন কাপল’ এবং ‘নারী ও রাক্ষুসী’ নাটক নিয়ে যুক্তরাজ্যের নাট্যোৎসবে অংশ নিয়ে প্রশংসিত হয়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন দল তাদের নাটক নিয়ে প্রায়ই ভারতের নানা উৎসবে অংশ নিয়েছে। এদিকে নাগরিকের ‘গ্যালিলিও’ নাটকের মধ্য দিয়ে আলী যাকের ও আসাদুজ্জামান নূর আবার মঞ্চে অভিনয়ে ফিরেছেন। চলতি বছর এটি ছিল মঞ্চের জন্য দারুণ সুসংবাদ। বলা যায়, এ বছরের সবচেয়ে আলোচিত মঞ্চনাটক এটি। এ ছাড়া দেশনাটকের ‘নিত্যপুরাণ’, আরণ্যকের ‘ইবলিশ’ নতুনভাবে মঞ্চে আসার পর এসব নাটকের প্রতি দর্শকের দারুণ আগ্রহ পরিলক্ষিত হয়। মঞ্চ নাটকে এবার নারীরাও বেশ এগিয়ে ছিল। নারীর ক্ষমতায়নের এ যুগে আমাদের মঞ্চের নারীরাও পিছিয়ে নেই। এ বছর সারা যাকের দারিও ফো ও ফ্রাঙ্কা রামের ‘ওপেন কাপল’, শিমুল ইউসুফ সেলিম আল দীনের ‘পুত্র’, নায়লা আজাদ নূপুর ডাব্লিউ বি প্রিসলির ‘অ্যান ইনস্পেক্টর কলস’ .নাটকের নির্দেশনা দিয়েছেন।  ২০১৮ সালে মঞ্চে আসা আরো কিছু নাটক হলো- বাতিঘরের ‘র্যাডক্লিফ লাইন’, লোক নাট্যদলের (বনানী) ‘ঠিকানা’, নাট্যম রেপার্টরির ‘ডিয়ার লায়ার’, ঢাকা পদাতিকের ‘ট্রায়াল অব সূর্য সেন’, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক বিভাগের ‘ম্যাকবেথ’, নাট্যধারার ‘চার্লি’, ঢাকা থিয়েটার মঞ্চের ‘বহিপীর’, নটনন্দনের ‘নারী ও রাক্ষুসী’, বরিশালের শব্দাবলির ‘বৈশাখিনী’ প্রভৃতি। এ ছাড়াও রয়েছে ভিন্ন আঙ্গিকের দুটি নাটক স্পেস অ্যান্ড অ্যাক্টিং রিসার্চ সেন্টারের ‘দুই আগন্তুক ও করবী ফুল’ এবং বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির ‘মহাস্থান’।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)