আপডেট ২০ মিনিট ২৭ সেকেন্ড

ঢাকা শনিবার, ৩ ভাদ্র, ১৪২৬ , শরৎকাল, ১৬ জিলহজ্জ, ১৪৪০

রাজশাহী, সড়ক সংবাদ বড়াইগ্রামে অনিয়মের অভিযোগে ব্রিজ নির্মাণ কাজ বন্ধ

বড়াইগ্রামে অনিয়মের অভিযোগে ব্রিজ নির্মাণ কাজ বন্ধ

বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি,নিরাপদ নিউজ: নাটোরের বড়াইগ্রাম পৌরসভার প্রাণকেন্দ্রে বড়াল নদীতে ব্রিজ নির্মাণকাজ বন্ধ করে দিয়েছে স্থানীয়রা। এ কারণে গত এক সপ্তাহ যাবৎ ব্রিজের কাজ বন্ধ রয়েছে।  পৌরসভা সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ ইং সালের জুন মাসে বড়াল নদীতে ৫৮ লাখ ১৯ হাজার ৯৭২ টাকা ব্যায় বরাদ্দে ১২ মিটার দীর্ঘ একটি ব্রিজ নির্মাণের টেন্ডার হয়। ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে বনপাড়া বাজারের ঠিকাদার মিজানুর রহমান কাজটির বরাদ্দ পান। কিন্তু দীর্ঘদিন পর তার কাছ থেকে কিনে নিয়ে সাব কন্ট্রাক্টর ইউসুফ আলী ২০১৮ সালের শেষের দিকে এসে ব্রিজ নির্মাণ কাজ শুরু করেন। কিন্তু নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে স্থানীয়রা গত মঙ্গলবার ব্রিজের নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেয়। ফলে বর্তমানে ব্রিজটির নির্মাণ কাজ একেবারে বন্ধ রয়েছে।
মঙ্গলবার সরেজমিনে গেলে স্থানীয়রা জানান, শিডিউল অনুযায়ী ব্রিজের ৬০ ফুট গভীর পাইলিং করার কথা থাকলেও ৩৫-৪০ ফুটের বেশি করা হয়নি। ব্রিজের দুই প্রান্তে ৯টি করে পাইলিং করার কথা থাকলেও পূর্বপাশে ৮টি পাইলিং করতে দেখা গেছে। পাইলিং ও খাঁচা নির্মাণে ২০ মিলি রডের পরিবর্তে ১৬ মিলি এবং ১৬ মিলি রডের জায়গায় ১২ মিলি রড ব্যবহার করা হচ্ছে। এ সময় সেখানে উপস্থিত সাব কন্ট্রাক্টর ইউসুফ আলীর কাছে ব্রিজ নির্মাণের শিডিউল দেখতে চাইলে তিনি তা দেখাতে পারেননি। এমতাবস্থায় অত্যন্ত ধীর গতিতে কাজ করায় এ বছরও ব্রিজ নির্মাণ সম্পন্ন না হওয়ার আশঙ্কায় রয়েছেন স্থানীয়রা।
ব্রিজের নির্মাণ কাজের অনিয়ম তুলে ধরে পৌর ছাত্রলীগ সভাপতি মেহেদী হাসান তুহিন বলেন, পৌরসদরে অবস্থিত একটি ব্রিজ নির্মাণে যে কি সীমাহীন অনিয়ম-দুর্নীতি হচ্ছে তা না দেখলে বলে বোঝানো যাবে না। এ কারণে স্থানীয় লোকজনের চাওয়াকে গুরুত্ব দিয়ে শিডিউল অনুযায়ী মানসম্মত কাজের দাবীতে ব্রিজ নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।
সাব কন্ট্রাক্টর ইউসুফ আলী জানান, কাজটির বরাদ্দ যিনি পেয়েছিলেন, তার কাছ থেকে তিন হাত বদল হয়ে আমি কিনেছি। এ অবস্থায় শিডিউল মোতাবেক কাজ করা আমার পক্ষে কিভাবে সম্ভব। আর একাধিক হাত বদল হওয়ার কারণে আমি শিডিউলই পাইনি।
বড়াইগ্রাম পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আকরামুজ্জামান জানান, আমার জানামতে কাজ সঠিকভাবেই হচ্ছে। আমরা ঠিকাদারের কাছ থেকে কাজ বুঝে নেব।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)