ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট মার্চ ২৪, ২০১৯

ঢাকা মঙ্গলবার, ১১ বৈশাখ, ১৪২৬ , গ্রীষ্মকাল, ১৮ শাবান, ১৪৪০

ভ্রমন ভারতের ঝাড়খন্ডের রাঁচিতে একাধিক জলপ্রপাত

ভারতের ঝাড়খন্ডের রাঁচিতে একাধিক জলপ্রপাত

 

নাসিম রুমি, ২৪ মার্চ ২০১৯, নিরাপদ নিউজ : ঝাড়খন্ডের রাঁচির শহরের মধ্যে ঝর্নাগুলো বেশ উত্তাল। ঝর্ণাগুলি উপভোগ করার বর্ষাকালিন উত্তম সময়। রাঁচি শহরের মধ্যেই তিনটি দৃষ্টি নন্দন জলপ্রপাত রয়েছে। ২০০৯ সালে আমি যখন প্রথম রাঁচি ভ্রমনে যাই তখন আমার সফর সঙ্গী ছিল বন্ধু জামিল। ২০১৩ সালে রাঁচি এবং ১৬০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত নেতারহাট ভ্রমন করি। পাহাড়ি উপত্যকা এবং লোধ জলপ্রপাত সত্যিই অসাধারন। আগামীতে নেতারহাটের ভ্রমন প্রতিবেদন রচিত করবো। ঝাড়খগেুর রাজধানী রাঁচিতে তিন দিন থেকে হুড্র্রুু, জোনা আর দশম জলপ্রপাত দেখে যেতে পারেন নেতারহাটে। রাঁচিতে দেখবার মতো আছে অনেক কিছু।

দশম জলপ্রপাতে সাংবাদিক, লেখক ও পর্যটক নাসিম রুমি

টেগোর হিলের অপর নাম মোরাবাদী পাহাড়। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের দাদা জ্যেতিরিন্দ্রনাথ ঠাকুর রাঁচি হিলের সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে এখানে একটি বাড়ি করেছিলেন। পাহাড়ের নীচেই রয়েছে রামকৃষ্ণ মিশনের আশ্রম। সুন্দর সুসজ্জিত একটি পার্ক রাঁচি রক গার্ডেন। এখানে পাথরে তৈরি কিভিন্ন শিল্পকর্ম, মূর্তি সাজানো আছে। কৃত্রিম জলপ্রপাতটি দেখতে ভালো লাগে। কাঁকে জলাধান। এখান থেকেই রাঁচি শহরে জল সরবরাহ করা হয়। জগন্নাথ মন্দির রাঁচি থেকে ৬কিলোমিটার দূরে পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের আদলে তৈরি জগন্নথ মন্দির। অনবন্য শিল্পকর্মে মন্দিরটি শোভিত।

রাচি শহরের এক অংশ

জৈবিক উদ্যান:
রাঁচি থেকে ১৫ কিলোমিটার দূরে ‘বিরসামুন্ড জৈবিক উদ্যান। এখানে আছে বিভিন্ন ভেষজ বৃক্ষ ছাড়াও দুম্প্রপ্য বহু গাছ।
হুড্রু জলপ্রপাত সুবর্ণরেখা নদীর জলে পুষ্ট এই জলপ্রপাতটি এবং তার পারিপার্শ্বিক প্রাকৃতিক দৃশ্য মনোমগ্ধকর।

৩২০ ফুট উঁচু থেকে নেমে এছেছে সুবর্ণরেখার জলধারা। দশম জলপ্রপাত হুড্রুর মতোই পর্যটকপ্রিয় দশম প্রপাত। কাঞ্চি নদীর জলে পুষ্ট জলপ্রপাতটি ১৪৪ ফুট উঁচু থেকে নেমে এসেছে।
জোনা প্রপাত :
রাঁচি থেকে ৪৫ কিলোমিটার দূরে অনবদ্য জোনা প্রপাত প্রায় শ,পাঁচেক সিঁড়ি দিয়ে নীচে নেমে এই প্রপাত দেখে যায়। সামনে টিলার ওপর রয়েছে একটি বৌদ্ধমন্দির।

রাচি শহর

কীভাবে যাবেন
হাওড়া থেকে রাঁচি যায় ১২০১৯ শতাব্দী এক্সপ্রেস (রবিবার বাদে), ১৮৬১৫ হাতিয়া ক্সপ্রেস, ১৮৬২৭ রাঁচি ক্সপ্রেস (রবি, সোম, মঙ্গল), ১৮৬১৭ রাঁচি ক্সপ্রেস (বৃহস্পতি , শুক্র, শনি) সময় লাগে আট ঘন্টা।

কোথায় থাকবেন
ঝাড়খন্ডের পর্যটনের হোটেল বিরসা বিহান ভাড়া ৬০০-১৮০০ টাকা। হোটেল রাঁচি অশোক ভাড়া ৪,০০০-৭০০০টাকা। ক্যাপিটাল হিল ভাড়া ৩,২০০-৩,৫০০টাকা। এমব্যাসি কলকাতা ৬০০-৯০০ টাকা ভাড়া ৫০০-৮০০ টাকা। হোটেল ল্যান্ডমার্ক ভাড়া ৩,৫০০-৬০০০ টাকা। হোটেল অজন্তা ভাড়া ৫০০ -৭০০ টাকা।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)