ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট এপ্রিল ১৪, ২০১৯

ঢাকা সোমবার, ৮ শ্রাবণ, ১৪২৬ , বর্ষাকাল, ১৯ জিলক্বদ, ১৪৪০

ঢাকা মঙ্গল শোভাযাত্রায় কি পেলো ধামরাইবাসী

মঙ্গল শোভাযাত্রায় কি পেলো ধামরাইবাসী

মোঃনাহিদ মিয়া (ধামরাই প্রতিনিধি),নিরাপদনিউজ : চিরন্তন বাঙলার উৎসবের রঙ ছড়িয়ে এলো পহেলা বৈশাখ। স্বাগত জানিয়ে বরণ করছে বাংলা নববর্ষ-১৪২৬। প্রকৃতির পরতে পরতে আজ নতুন সুর। কানে কানে ছড়িয়ে পড়েছে নতুন বার্তা। বাঙালির সার্বজনীন উৎসব আজ। বিশ্বজুড়ে বাঙালিরা আজ মেতে উঠেছে আনন্দে-উচ্ছ্বাসে। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে গাইছে-এসো, এসো, এসো হে বৈশাখ। তাপস নিঃশ্বাস বায়ে মুমূর্ষুরে দাও উড়ায়ে, বৎসরের আবর্জনা দূর হয়ে যাক। যাক পুরাতন স্মৃতি, যাক ভুলে-যাওয়া গীতি, অশ্রুবাষ্প সুদূরে মিলাক, মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা, অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা। ধর্ম-বর্ণ, শ্রেণি- পেশা নির্বিশেষে সব বয়সের মানুষ আজ একযোগে বৈশাখকে আহ্বান জানাচ্ছে। সব গ্লানি মুছে নবোদ্যমে শুরু হবে পথচলা।

আজ প্রভাতে পূর্বাকাশে লাল টকটকে সূর্যের কিরণছটার মধ্য দিয়ে যাত্রা শুরু করেছে নতুন বছর। উৎসবময় অনুভূতি সঙ্গী করে নিদ্রাভঙ্গ হয়েছে বাঙালির। বাঙালির সবচেয়ে বড় অসাম্প্রদায়িক উৎসব পহেলা বৈশাখ। এই উৎসবের ইতিহাস হিসেবে পাওয়া বিংশ শতাব্দীর শেষভাগে বাংলদেশের ঢাকা শহরে এটি প্রবর্তিত হয়। একবিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয় দশকে একটি ধর্মনিরপেক্ষ উৎসব হিসাবে সারাদেশে এটি ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। এই দিন কে কেন্দ্র করে সারাদেশে পালিত হচ্ছে ভিন্ন রকম সাজে। এমন উৎসবে মেতে উঠেছে ধামরাই উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে গঞ্জে। এর মধ্য ব্যাতিক্রম ভাবে পৌর শহর জুড়ে রয়েছে বৈশাখ উপলক্ষে ব্যাপক আয়োজন। ভোর ডাকা সকালে মিদূ সু-বাতাস নতুন দিগন্তের পথে পৌরবাসীর উদ্যোগে “মঙ্গল শোভাযাত্রায়” বিভিন্ন ধরনের প্রতীকী শিল্পকর্ম বহন করা হয়। এছাড়াও বাংলা সংস্কৃতির পরিচয়বাহী নানা প্রতীকী উপকর, বিভিন্ন রং-এর মুখোশ ও হাজার হাজার মানুষ জমায়েত হয়েছে।

এ শোভাযাত্রা আয়োজিত হওয়ায় ধামরাইয়ের নবতর সর্বজনীন সংস্কৃতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। রবিবার (১৪ এপ্রিল) সকাল ৮ টা থেকে পৌরবাসীর উদ্যোগে এই আয়োজন অনুষ্ঠিত হয়েছে ধামরাই সরকারি হার্ডিঞ্জ স্কুল ও কলেজের মাঠে। দিনব্যাপি চলছে নানা আয়োজন সকালে মঙ্গল শোভাযাত্রায় সকলের অংশগ্রহণ। পৌর এলাকার বিভিন্ন সড়কে পদক্ষিন করে স্কুলে জমায়েত হয়। পরে বৈশাখের অংশ হিসেবে পান্তা-ইলিশের আয়োজনে নিথর ছিল সেখানে। অনুষ্ঠানে কানায় কানায় পূর্ণ নতুন সাজে রমনীরা তেমনি রয়েছে শিশু,তরুণসহ বৃদ্ব। অনুষ্ঠানে স্থানীয় শিল্পীদের নিয়ে গানের আয়োজনের মধ্য দিয়ে ছোট নাটকের অংশ গ্রহণ ছিল বেশ চমৎকার। স্কুলের মাঠে বইছে মেলা, দু-পাশে বেশ কয়েকটি দোকানে সাজিয়েছে।

অনুষ্ঠানে পূর্ব পাশে বিশাল মঞ্জ। এ সময় মঙ্গল শোভাযাত্রা উপস্থিত ছিলেন ঢাকা-২০ আসন ধামরাইয়ের সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্বা বেনজীর আহমেদ (এমপি), পৌরমেয়র গোলাম কবির মোল্লা, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দীপক চন্দ্রসাহা, এডঃ আবুল কাশেম রতন, সুশীল সমাজের বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গসহ পৌরবাসী। এ দিকে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগেও মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে উপজেলা চত্বরে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কালামের নেতৃত্বে অংশ গ্রহন করে সকল কর্মক, কর্মচারীবৃন্দ। ধামরাই সরকারি হার্ডিঞ্জ স্কুল ও কলজে অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় অংশে বিকেল ৩ টায় দি একমি ল্যাবরেটরি লিঃএর অতিরিক্ত ব্যবস্থাপক জনাব হাসিবুর রহমান কাশেম এর উদ্বোধনীতে ঢাকা-২০ ধামরাইয়ের সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্বা বেনজীর আহমেদ কে গণসংবর্ধনা দেয়া হয়। পরবর্তী সময়ে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)