ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ৫৬ মিনিট ৮ সেকেন্ড

ঢাকা শনিবার, ৭ আশ্বিন, ১৪২৬ , শরৎকাল, ২২ মুহাররম, ১৪৪১

ক্রিকেট, লিড নিউজ মর্যাদার লড়াইয়ে আজ মুখোমুখি হচ্ছে ভারত ও পাকিস্তান

মর্যাদার লড়াইয়ে আজ মুখোমুখি হচ্ছে ভারত ও পাকিস্তান

নিরাপদ নিউজ: এবারের বিশ্বকাপে মর্যাদার লড়াইয়ে আজ মুখোমুখি হচ্ছে ভারত ও পাকিস্তান। বিশ্বকাপ বা ক্রিকেটের যে কোনো আসরে সবচেয়ে মর্যাদাকর লড়াই ভারত ও পাকিস্তান ম্যাচ। দ্বিপাক্ষিক সিরিজ তাদের সর্বশেষ সাক্ষাৎ ২০১২ তে। শুধুমাত্র বৈশ্বিক টুর্নামেন্টগুলোতে মাঝেমধ্যে তাদের দেখা হয়। আর সেই যুদ্ধে আজ মুখোমুখি হচ্ছে বিশ্ব ক্রিকেটের এই দুই চির প্রতিদ্বন্দ্বী। দ্বাদশ বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ২২তম ম্যাচ এটি।
ওল্ড ট্রাফোর্ডের ম্যানচেষ্টারে আজকের ম্যাচের দিন বৃষ্টির প্রবল সম্ভাবনা আছে। আবহাওয়া পূর্বাভাস তেমনই বলছে। তবে বৃষ্টির কারণে আজকের ম্যানচেস্টারে অনুষ্ঠিতব্য ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ যদি পরিত্যক্ত হয়ে যায় তাহলে শুধু দর্শক নয়, বিজ্ঞাপনদাতাদের গুণতে হবে বিশাল অংকের ক্ষতি। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, আজকের ম্যাচ পরিত্যক্ত হলে প্রায় ১৩৮ কোটি রুপি ক্ষতি হবে বিজ্ঞাপনদাতাদের! (বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৬৬.৪৭ কোটি টাকা) লোকসান গুণতে হবে স্টার স্পোর্টস এবং তাদের বিজ্ঞাপনদাতা প্রতিষ্ঠান কোকাকোলা, উবার, ওয়ানপ্লাস ও এমআরএফ টায়ারের। বৃষ্টি নিয়ে তাই সবচেয়ে বেশি দুশ্চিন্তায় আছেন তারাই।
ধারণা করা হচ্ছে, বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি দেখা হবে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ। এই ম্যাচের জন্য তাই বিজ্ঞাপনের দামও বেড়ে গেছে। অন্য যে কোনো সময়ে যখন প্রতি সেকেন্ডে দুই লাখ রুপির আশেপাশে রাখা হয়, ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে সেই দাম আড়াই লাখ রুপিও ছাড়াচ্ছে। সব মিলিয়ে ম্যাচের সময় প্রায় ৫৫০০ সেকেন্ডের বিজ্ঞাপন দেখানোর কথা স্টার স্পোর্টস চ্যানেলের। বিজ্ঞাপনের মূল্য এত চড়া হলেও বিজ্ঞাপনদাতারা ইতিমধ্যেই নিজেদের বিজ্ঞাপন বুকিং দিয়ে রেখেছেন। বৃষ্টির কারণে এই বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত চারটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়েছে। অনেক দিন যাবতই এই ম্যাচ নিয়ে অনেক জল্পনা-কল্পনা চলছে।
বিশেষ করে গেল ১৪ ফেব্রুয়ারি জম্মু-কাশ্মীরের রাজধানী শ্রীনগর থেকে ২০ কিলোমিটার দূরের জেলা পুলওয়ামাতে জঙ্গি হামলায় ভারতের ৪০ জন জওয়ানের মৃত্যু ঘটে। এতে উত্তপ্ত হয়ে উঠে ভারত-পাকিস্তানের রাজনীতি। এরপর ভারতে অনেকেই আসন্ন বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ না খেলতে দলের প্রতি আহ্বান জানান। আবার অনেকে মনে করেন, শুধু-শুধু পাকিস্তানকে ছেড়ে দেয়ার কোন কারণই নেই। মাঠের যুদ্ধে চির প্রতিদ্ব›দ্বীদের হারের লজ্জা দিতে হবে। এ সব কারণে গত কয়েক মাসের উত্তেজনায় এবারের ভারত-পাকিস্তান লড়াই হয়ে উঠেছে অনেক বেশি মর্যাদাকর। সেই মর্যাদাকর লড়াইয়ে কে জিতে সেটিই কাল নির্ধারন হবে ম্যানচেষ্টারের ওল্ড ট্রাফোর্ডে। ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় দুপুর সাড়ে ৩টায়।
এমনিতেই ভারত-পাকিস্তানের রাজনীতি সব সময়ই উত্তেজনাকর থাকে। এমনকি খেলাধুলায়ও কোন সম্পর্ক না রাখার দাবিও ওঠে দুই দেশের তরফ থেকেই।। অবশ্য দেখা সাক্ষাৎ হয় কেবল ক্রিকেট মাঠেই। কোন টুর্নামেন্ট হলেই ২২ গজে মুখোমুখি হতে হয় ক্রিকেটের দুই চির প্রতিদ্ব›দ্বীকে। ২০১২ সালের পর নিজেরা কোন দ্বিপক্ষীয় সিরিজেও মুখোমুখি হয় না।
এর আগে ২০০৭ সালে সর্বশেষ হয়ে দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলেছিলো দু’দল। দুটি সিরিজই ছিলো ভারতের মাটিতে। আর ভারত সর্বশেষ পাকিস্তান সফর করেছিলো ২০০৬ সালে। তাই এই চিত্রই বলে দিচ্ছে কি অবস্থায় রয়েছে ভারত-পাকিস্তানের সর্ম্পক। সেই সর্ম্পক এখন আরও বেশি গরম পুলওয়ামার ঘটনায়। তারপরও শেষ পর্যন্ত ২২ গজে মুখোমুখি হতে যাচ্ছে ভারত-পাকিস্তান। ২২ গজের লড়াইয়ে নামলে অতীতের কোন ঘটনাই মাথায় থাকে না ক্রিকেটারদের। তবে মনের মধ্যে বিদ্বেষ যে থাকবে না, তা কিন্তু নয়। সেই বিদ্বেষ থেকেই এবার ম্যাচ জয়ের সর্বাত্মক চেষ্টা করবে উভয় দলই। আর বিশ্বকাপের মত মঞ্চে জয় ছাড়া অন্য কিছু ভাবারই উপায় নেই কোন দলেরই। তাই তো পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচকে অন্য লড়াইয়ের চেয়ে বেশ আলাদা ভাবছেন ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি। পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলতে নামলেই সেরাটা বের হয়ে আসে বলে জানালেন টিম ইন্ডিয়ার অধিনায়ক, পাকিস্তানের ম্যাচ আমাদের মধ্যে থেকে সেরাটা বের করে আনে। ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ বহু বছর ধরে দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বীতামূলক হয়ে আসছে। বিশ্ব জুড়ে এই লড়াই নিয়ে আগ্রহ থাকে অনেক বেশি। এই রকম ম্যাচে খেলার সুযোগ পাওয়াটা একটা সম্মানের ব্যাপার। এই ম্যাচ আমাদের সবার ভিতরের সেরাটা বের করে আনে। বিশ্বকাপের সূচি হবার পর থেকে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের দিকে চোখ ক্রিকেটপ্রেমিদের। তাই আইসিসি অনলাইনে টিকিট ছাড়ার দু’দিনের মধ্যেই তা শেষ হয়ে যায়। এই ম্যাচকে সামনে রেখে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, টিভিতে শুরু হয়ে গেছে বিজ্ঞাপন যুদ্ধ। তবে এসব উত্তেজনার আঁচ নিতে চান না ভারতের অধিনায়ক কোহলি। মানসিকভাবে নিজেদের প্রস্তুত করে মাঠের খেলায় মনোযোগি হতে মরিয়া ভারত দলপতি, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, মিডিয়া বা অন্য কোথাও কি হলো এসবের দিকে আমি তাকাই না, এসব নিয়ে ভাবিওনা। মানসিকভাবে এই ম্যাচের জন্য আমরা যে তৈরি, সেটা জানি। এখন কাজটা হবে, মাঠে নেমে পরিকল্পনাগুলো ঠিক মতো কাজে লাগানো। পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে শতভাগ নির্ভর থাকতে পারছেন না ভারত অধিনায়ক কোহলি। কারণ তার দলের অন্যতম সেরা অস্ত্র ওপেনার শিখর ধাওয়ানকে ছাড়াই খেলতে হবে ভারতকে। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সেঞ্চুরির ইনিংস খেলার পথে হাতে চোট পান ধাওয়ান। এই বাঁ-হাতি ওপেনারকে না পাওয়াটা কোহলির জন্য ধাক্কাই বটে। ধাওয়ানের ইনজুরি নিয়ে কোহলি বলেন, দুসপ্তাহ হাতে প্লাস্টার করা থাকবে ধাওয়ানের। প্লাস্টার খোলার পরই বুঝা যাবে হাতের কি অবস্থা। আশা করব, বিশ্বকাপের পরের দিকে, সেমিফাইনাল পর্ব থেকে সুস্থ হয়ে উঠবে সে। শিখর সুস্থ হয়ে খেলার জন্য উদগ্রীব হয়ে আছে। আমরা তাকে দলের সঙ্গে রেখে দিতে চাই। ভারতের মত পাকিস্তানও ম্যানচেষ্টারের ম্যাচ নিয়ে খুব বেশি অস্থির। এটাই স্বাভাবিক ব্যাপার।
অতীত থেকে যা হয়ে আসছে, বর্তমানেও তেমনটাই হচ্ছে। তবে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে নামার আগে নিজেদের আরও ভালোভাবে প্রস্তুত করার প্রত্যয় ব্যক্ত করলেন পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। আগের ম্যাচে ফিল্ডিং-এর ভুলে অস্ট্রেলিয়ার কাছে ম্যাচ হারে পাকিস্তান। ভারতের বিপক্ষে ভুল না করার ব্যাপারে বেশ সর্তক পাকিস্তানের দলপতি সরফরাজ, আগের ম্যাচে প্রচুর ভুল করেছি আমরা। সবচেয়ে বেশি ভুল ছিলো আমাদের ফিল্ডিংয়ে। অনেক মিস সাথে ক্যাচ ড্রপ। দেখে মনেই হচ্ছিল না আমরা আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলছি। তাও বিশ্বকাপে। ভারতের বিপক্ষে খেলতে নামার আগে ফিল্ডিংয়ে আমাদের আরও উন্নতি করা প্রয়োজন।
অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ থেকে মাত্র একটি অর্জনই ছিলো পাকিস্তানের। আর তা’ হল, পেসার মোহাম্মদ আমিরের দুর্দান্ত বোলিং। ১০ ওভারে মাত্র ৩০ রান দিয়ে ৫ উইকেট শিকার করেছেন এই পেসার। এছাড়া দলের আর কোন খেলোয়াড়ই পারফরমেন্সে ছিটেফটাও দেখাতে পারেননি। তাই ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের আগে আমিরের বোলিং নৈপুন্যে স্বস্তির নিঃশ্বাস নিতে পারছেন সরফরাজ, ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের আগে বল হাতে দুর্দান্ত পারফরমেন্স করেছে আমির। ৩০ রানে ৫ উইকেট প্রশংসা করার মত। বল সুইং করতে শুরু করলে তার থেকে ভয়ংকর বোলার খুব কমই রয়েছে। তার উপর চাপ সৃষ্টি করা অনেক কঠিন। উইকেট থেকে সাহায্য পেতে শুরু করলে আমিরকে খেলাই কঠিন। আশা করবো ভারতের বিপক্ষে আমির ভালো কিছু করবে। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডের ভেন্যুতে গতকালও অনুশীলন করে পাকিস্তান ও ভারত।
ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে উত্তেজনায় আছেন দুদলের সাবেক খেলোয়াড়রাও। ১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপ জয়ী ভারতীয় দলের অধিনায়ক কপিল দেব পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে নিজ দেশকেই এগিয়ে রাখছেন। তিনি বলেন, আমাদের সময়ে পাকিস্তান দলটি ছিলো অনেক বেশি ভালো ও শক্তিশালী। আজকের এই পাকিস্তান দল সম্পর্কে বলতে পারি, দশবার ম্যাচ হলে ভারত সাতবার জিতবে। বর্তমানে পাকিস্তানের চেয়ে ভারত অবশ্যই অনেক ভাল দল। তবে ম্যাচের দিন যারা ভালো খেলবে তারাই জিতবে। পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক শহিদ আফ্রিদিও নিজ দেশের জয়ের ব্যাপারে আশাবাদি। তবে দলের ফিল্ডিং নিয়ে বেশ চিন্তিত তিনি। বর্তমান অধিনায়ক সরফরাজের সুরে আফ্রিদি বলেন, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে খুবই বাজে ফিল্ডিং করেছে পাকিস্তান। ফিল্ডিং খারাপ হলে ম্যাচে লড়াই করা কঠিন হয়ে যায়। তবে আশা করছি, ভারতের বিপক্ষে নিজেদের শতভাগ প্রস্তুত করেই মাঠে নামবে পাকিস্তান। ফিল্ডিং-এ অন্য এক পাকিস্তানকে দেখবো বলে আশা করি। তবে ম্যাচ নিয়ে যেভাবেই পরিকল্পনা করুক ভারত-পাকিস্তান, আর মাঠের বাইরে নিজেদের ঢঙে যেভাবেই উত্তেজনা বাড়িয়ে তুলুক ক্রিকেটপ্রেমীরা তাতে কিন্তু সব আয়োজনকে ভেস্তে দিতে পারে বেরসিক বৃষ্টি। ম্যানচেষ্টারে ম্যাচের দিন বৃষ্টির প্রবল সম্ভাবনা আছে। আবহাওয়া পূর্বাভাস তেমনই বলছে। তবে বৃষ্টির এই লীলাখেলা নিয়ে এখনই ভাবছে না দুদল। নিজেদের প্রস্তুতিতেই সবচেয়ে বেশি নজর তাদের। তাই দেখা যাক, আজকের ম্যাচে কার জয় হয়- ভারত, পাকিস্তান নাকি বৃষ্টির। উল্লেখ্য, ভারত পাকিস্তান ম্যাচ দেখতে মুখিয়ে থাকে গোটা ক্রিকেট বিশ্ব। ক্রিকেট সমর্থকদের মত তাই বিজ্ঞাপনদাতারাও এখন একই প্রার্থনা করছেন নিশ্চয়ই। আজকে যেন অন্তত খেলাটা হয়!

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)