ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট এপ্রিল ২৮, ২০১৬

ঢাকা বুধবার, ৯ কার্তিক, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ২৪ সফর, ১৪৪১

জীবনযাপন মানসিক ভারসাম্যহীন ‘অন্তর’ এর পর এবার ‘আদুরী’র পাশে দাড়ালেন ব্যাংকার শামীম

মানসিক ভারসাম্যহীন ‘অন্তর’ এর পর এবার ‘আদুরী’র পাশে দাড়ালেন ব্যাংকার শামীম

মানসিক ভারসাম্যহীন ‘অন্তর’ এর পর এবার ‘আদুরী’র পাশে দাড়ালেন ব্যাংকার শামীম

মানসিক ভারসাম্যহীন ‘অন্তর’ এর পর এবার ‘আদুরী’র পাশে দাড়ালেন ব্যাংকার শামীম

২৮ এপ্রিল, ২০১৬, নিরাপদনিউজ :  মানসিক ভারসাম্যহীন অবস্থায় রাস্তা থেকে উঠিয়ে এনে চিকিৎসা ও সেবার মাধ্যমে সুস্থ করে পরিবারের কাছে হস্তান্তরকারী ঢাকাস্থ যমুনা ব্যাংকের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার শামীম আহমেদ এবার আরেকটি অসহায় মেয়ের পাশে দাড়ালেন।

শামীম আহমেদ তার কর্মস্থলে আসা যাওয়ার পথে গত বছর ১৭ আগষ্ট ঢাকার পল্টন মোড়ে রাস্তার পাশে ছেঁড়া কাপড়ে জড়ানো মানসিক ভারসাম্যহীন অবস্থায় মেয়েটিকে দেখতে পেয়ে কিছু টাকা ও খাবার কিনে দেন। পরদিন অফিসের সহকর্মী ব্যাংকার আলী সাব্বিরের সাথে পরামর্শ করে মেয়েটিকে চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ করার পরিবেশ তৈরি করতে পল্টন মডেল থানা সহ জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট হাসপাতালে যোগাযোগ করেন।

এরপর ০৭/১১/১৫ ইং তারিখে পল্টন থানা পুলিশের সহায়তায় মেয়েটিকে শেরেবাংলা নগর জাতীয় মানসিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তিকালে মেয়েটির পরিচয় জানা না থাকায় শামীম আহমেদ তার নাম রাখেন ‘আদুরী’।

হাসপাতালে সার্বক্ষণিক দেখাশুনা ও সেবাকর্মের জন্য জরিনা বেগম নামক এক মহিলাকে বেতনে নিয়োজিত করেন। ডাক্তারদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টা ও সেবা শুশ্র“ষায় মেয়েটি অনেকটা সুস্থ হয়ে উঠার পর জরিনা বেগমের ঢাকাস্থ আদাবরের বাড়ীতে রাখা হয়। এক সময় তার মুখ থেকে কিছু শব্দ বের হলে সে কথার সুত্র ধরে শামীম আহমেদ ফেসবুকে এবং আদুরীর ছবি সম্বলিত পোষ্টারিং এর মাধ্যমে তার পরিবারকে খ্্ুঁজে বের করে। পরবর্তীতে শামীম আহমেদ ও তার বন্ধুরা মেয়েটির গ্রামের বাড়ীতে গিয়ে তার পরিবারের সদস্যদের কাছে জবার নিখোঁজ হওয়ার ঘটনা জানতে পেরে হৃদয় বিগলিত হয়ে অশ্র“সিক্ত হন তারা। মেয়েটির প্রকৃত নাম জবা।

নোয়াখালী জেলার মাইজদী উপজেলার লক্ষীনারায়নপুরে তাদের বাড়ী। তার বাবা আলাউদ্দিন একজন রিক্সা চালক ও মা গৃহিনী। আজ থেকে প্রায় ০৬ ছয় বছর আগে বাড়ী থেকে সে অজানার উদ্দেশ্যে বেরিয়ে যায়। অনাহার অর্ধাহার, উদভ্রান্ত পদচারনা ও মানুষের অবহেলায় মেয়েটি ক্রমান্বয়ে নিজের ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে । ওদিকে জবার পরিবার অনেক খোঁজাখুঁজি করে তাকে না পেয়ে তার ভাগ্যকে ছেড়ে দেয় বিধাতার হাতে। ভাগ্য বিড়ম্বিত সেই জবাকে মানসিক ভারসাম্যহীন অবস্থায় রাস্তায় দেখে তাকে উদ্ধারপূর্বক সুচিকিৎসার মাধ্যমে ভাল করার পদক্ষেপ গ্রহণ করেন ব্যাংকার শামীম ও তার বন্ধুরা।

নোয়াখালীতে নিখোঁজের সাত বছর পর ভারসাম্যহীন কিশোরীকে ফিরে পেলো তার স্বজনরা। সম্পূর্ণ সুস্থ অবস্থায় আদরের সন্তান জবাকে কাছে পেয়ে বাবা-মা ও স্বজনরা আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন। এসময় আবেগ ঘন পরিবেশে উপস্থিত অনেকেই নিজের অজান্তে কেঁদে ফেলেন।

শনবিার ৯ এপ্রলি, ২০১৬ ,বলো সাড়ে ১১টার দকিে নোয়াখালী বআিরডবিি মলিনায়তনে যমুনা ব্যাংকরে সনিয়ির এক্সকিউিটভি অফসিার শামীম আহমদে ও সহর্কমীরা আনুষ্ঠানকি ভাবে আদরীকে তার পরবিাররে কাছে হস্তান্তর করনে। এসময় নোয়াখালী পৌর ময়ের মো: হারুনুর রশদি আজাদ, নোয়াখালী পৌর বণকি সমতিরি সভাপতি সাইফুদ্দনি সোহান সহ অনুষ্ঠানে অনকেইে উপস্থতি ছলিনে।

aduri
অনুষ্ঠানে এসে নোয়াখালী পৌরসভার মেয়র হারুনুর রশিদ আজাদ আবেগ আপ্লুত হয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন। তিনি বলেন, আমাদের সমাজে এখনো ভালো মানুষ আছেন। বিশেষ করে ব্যাংকার শামীম আহম্মেদ, তার সহকর্মীরা ও পরিবারের সদস্যরা এভাবে এগিয়ে না আসলে কখনো জবাকে তার পরিবারের সদস্যা খুঁজে পেতেন না। তিনি এখন থেকে জবার ভোরণ পোষণসহ যাবতীয় খরচের দায়িত্ব নেন।

মানুষের বিপুল ভালবাসায় সিক্ত ঢাকাস্থ যমুনা ব্যাংক এর সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার শামীম আহমেদ এক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, “আমার মানবিক বিবেক বোধ থেকে মানসিক ভারসাম্যহীন এই মেয়েটিকে জীবনের মূল স্রোতে ফিরিয়ে আনতে আমার বন্ধুদের নিয়ে কিঞ্চিত চেষ্টা করেছি এ কারণে যে, আমাদের কাজটি দেখে মানুষেরা যেন উদ্ধুদ্ধ ও অনুপ্রানিত হয়ে রাস্তাঘাটে কোন পাগল বা মানসিক ভারসাম্যহীন লোককে অনাদর-অবহেলা না করে তাদের প্রতি মানবিক আচরণ প্রদর্শন করেন”।

উলে¬খ্য, শামীম আহমেদ গত বছর নভেম্ভর মাসে অফিসের সহকর্মীদের সাথে বান্দরবান জেলার থানচিতে ঘুরতে গিয়ে গাছের নিচে বসে থাকা মানসিক ভারসাম্যহীন একটি মেয়ে দেখতে পেয়ে পরবর্তীতে তার সহকর্মী বন্ধু আলী সাব্বির ও হাসান ফরহাদ আজাদের সহযোগিতায় মেয়েটিকে ঢাকায় নিয়ে শেরেবাংলা নগর জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনষ্টিটিউট হাসপাতালে ‘অন্তর’ নাম রেখে ভর্তি করান। অনেকদিন পরে মেয়েটির মুখের কথা ফোটে। আর সেই কথার সুত্র ধরেই ফেসবুকে যোগাযোগের মাধ্যমে মেয়েটির ঠিকানা মিলে ।

মেয়েটির নাম শিউলি রানী সরকার। প্রায় ৫ বছর ধরে বাড়ী থেকে সে নিখোঁজ ছিল। শামীম আহমেদ ও তার বন্ধুদের অক্লান্ত ভালবাসায় তিন সন্তানের জননী শিউলী রানী সরকারকে সুস্থ করে তার গ্রামের বাড়ী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার দাউরিয়া গ্রামে স্বামী ও পরিজনের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করা হয়। মানবিক এ ঘটনাটি নান্দনিক উপস্থাপক হানিফ সংকেত তার জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান “ইত্যাদি” তে গত ১১/০৯/২০১৫ইং তারিখে একটি সচিত্র প্রতিবেদন প্রচার করে।

(www.youtube.com/watch?v=3RAGO_V0o7w&sns=fb) ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সন্তান শামীম আহমেদ ব্যাংকের একজন ব্যস্ততম কর্মকর্তা হয়েও মানুষ ও মানবতার প্রতি তিনি যে বিরল ভালবাসার স্বাক্ষর রেখেছেন সেটা আমাদেরকে মানবিক মহৎ কাজে উদ্বুদ্ধ ও অনুপ্রাণিত হতে সহায়তা করবে নিঃসন্দেহে।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)