ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ১ মিনিট ৫ সেকেন্ড

ঢাকা বুধবার, ৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ২২ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১

নিসচা সংবাদ, রাজধানী সংবাদ রাজধানীর বিমানবন্ধর এলাকায় নিসচার মনিটরিং ক্যাম্পেইন পরিচালনা

রাজধানীর বিমানবন্ধর এলাকায় নিসচার মনিটরিং ক্যাম্পেইন পরিচালনা

নিরাপদনিউজ: গতকাল থেকে নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকর শুরু হয়েছে। ‘সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮’ কার্যকর উপলক্ষে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)র পক্ষ থেকে আইনটি মেনে চলার উপর জনগণকে সচেতন করতে, জানতে ও মানতে উদ্বুদ্ধকরণ ক্যাম্পেইন পরিচালনা করে আসছে। গত আক্টোবর মাস থেকে প্রায় প্রতিদিন নিসচার পক্ষ থেকে রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে নিসচা নেতৃবৃন্দরা এই আইন সম্পর্কে সকলকে অবগত করতে নানা রকমের ক্যাম্পেইন পরিচালনা করছে। আইনটি সম্পর্কে জনসাধারণ ও পরিবহন চালক-হেলপার বা পথচারীদের অধিকাংশই জানেন না।কোন অপরাধে কী শাস্তি-জরিমানা এ ব্যাপারে অধিকাংশই এখনো এক রকম অন্ধকারে রয়েছেন এজন্য প্রতিদিন বিভিন্ন ভাবে নানান কর্মসূচির মাধ্যমে জনগণকে সচেতন করতে নিসচার এই কার্যক্রম অব্যহত রয়েছে।

সেই সাথে গতকাল থেকে শুরু হওয়া আইনটি কতটা কার্যকর হচ্ছে তা দেখতে নিসচার পক্ষ থেকে মনিটরিং ক্যাম্পেইনও পরিচালনা হচ্ছে। আজ রাজধানীর বিমানবন্ধর এলাকায় মনিটরিং ক্যাম্পেইন পরিচালনা করেন নিসচার সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আযাদ হোসেন।

মনিটরিং শেষে নিরাপদ নিউজকে তিনি জানান, নতুন আইন কার্যকর হওয়ার আগে থেকে আমরা নিসচার পক্ষ থেকে কেন্দ্রীয়ভাবে এবং সারাদেশে শাখা সংগঠনের মাধ্যমে দেশের সকল জেলায় সাধারণ মানুষকে আইনটি সম্পর্কে অবগত করতে বিভিন্ন ধরনের ক্যাম্পেইন পরিচালনা করে আসছি। এছাড়াও গণমাধ্যম, ফেসবুকের মাধ্যমে কিছুটা ধারণা জনগণ ইতিমদ্ধে পেয়েছেন। সচেতন নাগরিক অনেকে নিজে থেকে বিস্তারিত জানতে চাচ্ছেন, নানা প্রশ্ন করেছেন। নতুন আইন ভঙ্গ করলে কি কি শাস্তির বিধান তা সম্পর্কে সকলে সচেতন হচ্ছেন। এরপরও আমরা মনে করি শতভাগ মানুষ এখনো আইনটি সম্পর্কে অবগত নয়। কিছুটা সময় লাগবে। আমরা নিসচার পক্ষ থেকে জনসাধারণকে আইন সম্পর্কে সচেতন করার কর্মসূচি অবহ্যত রেখেছি প্রতিদিন সারা দেশে আমাদের ক্যাম্পেইন পরিচালনা হবে।

আজ সকালে নিসচার সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আযাদ হোসেন প্রায় এক ঘন্টা দাড়িয়ে নিজে বিমানবন্ধর এলাকায় মনিটরিং ক্যাম্পেইন পরিচালনা করেন,তিনি সেখানে পর্যবেক্ষন করেন নতুন আইনটি যথাযথভাবে কার্যকর করা হচ্ছে কিনা। সেখানে থাকা অবস্থায় তিনি দেখেন কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশ ও সার্জেন্ট তারা তাদের কাজ যথাযথ ভাবে করছেন। লাইসেন্সবিহীন গাড়ি আটক করছেন। এসময় সেখানে দুটি গাড়ি আটক করা হয় একটি গাড়ি ৪০টি ও আরেবটি গাড়ি ২২টি মামলা নিয়ে সড়কে চলাচল করছে। ট্রাফিক পুলিশ সে দুটি গাড়ি আটক করেন এবং আইন অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করেন।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)