আপডেট ৪৪ সেকেন্ড

ঢাকা শনিবার, ১২ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ , গ্রীষ্মকাল, ১০ রমযান, ১৪৩৯

জানতে হবে মানতে হবে, লিড নিউজ রাস্তা পারাপারে আপনি কতটা সচেতন? সচেতন হোন নিরাপদ থাকুন…

রাস্তা পারাপারে আপনি কতটা সচেতন? সচেতন হোন নিরাপদ থাকুন…

সচেতন হোন নিরাপদ থাকুন…

ফারজানা ইয়াসমিন, নিরাপদ নিউজ :  রবিন, বিধবা মায়ের যক্ষেরধন। সবে শিক্ষাজীবন শেষ একটি মাল্টি ন্যাশনাল কম্পানিতে উচ্চপদে চাকরি পেয়েছে। এবার হয়তো ঘুচে যাবে সব অভাব অনটন। আজ তার চাকরিতে প্রথম দিন। খুবই তাড়াহুড়া করে আগে আগে অফিসে যাওয়ার জন্য ব্যস্ত হয়ে গেছে সে। কে জানতো এই তাড়াহুড়াই তার জীবনের কাল হবে? অফিসে যাওয়ার পথে রাস্তা পার হতে গিয়ে বাসের ধাক্কায় মুখ থুবড়ে পড়ল রবিন।

পৃথিবী ছেড়ে চলে গেল রবিন। কেউ কি বলতে পারবেন, ওই অসহায় বিধবা বৃদ্ধ মায়ের কি হবে? জানি পড়ে হয়তো আপনাদের খারাপ লাগছে কিন্তু এটাই বাস্তবতা। তাই আসুন জেনে নেওয়া যাক সামান্য সতর্কতা ও সাবধানতার ফলে কিভাবে রাস্তা পারাপারে নিজেকে নিরাপদ রাখা যায়।

১. রাস্তা পারাপারে সবসময় ভালভাবে ডানে বামে দেখে পারাপার হতে হবে।
২. রাস্তা পারাপারে অহেতুক তাড়াহুড়া করা যাবে না।
৩. কানে হেডফোন ও মোবাইলে কথা বলা অবস্থায় রাস্তা পার হতে বিরত থাকুন।
৪. রোড ডিভাইডার অথবা রোড আইল্যান্ডের ওপর দিয়ে রাস্তা পারাপার হতে বিরত থাকুন।
৫. সর্বদা ফুটপাত দিয়ে চলাচল করুন।
৬. সংযোগ সড়কের গাড়ির গতিবিধি লক্ষ করে রাস্তা পার হোন।
৭. বয়োঃবৃদ্ধ, শারীরিক প্রতিবন্ধী ও পক্ষাঘাতগ্রস্ত ব্যক্তি রাস্তা পারাপারে চাইলে ট্রাফিক পুলিশের সহায়তা নিতে পারেন।
৮. রাস্তা পারাপারের সময় ছোট বাচ্চা ও বৃদ্ধদের হাত ধরে পারাপার করতে হবে। কোনো অবস্থায় তাদের হাত ছাড়া যাবে না। ছোট ছেলেমেয়েদের নিয়ে রাস্তায় হাঁটার সময় গাড়ি যে দিকে চলাচল করে তার উল্টোদিকে তাদেরকে হাতে ধরে হাঁটুন।
৯. প্রত্যেককে দেশের প্রচলিত ট্রাফিক সিগন্যাল সম্পর্কে অল্প বিস্তর ধারণা রাখতে হবে।
১০. গাড়ির চালককে সব সময় গাড়ির গতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। বিশেষ করে যখন ট্রাফিক সিগন্যাল অতিক্রম করবে তখন গতি সীমিত রেখে চলা ভালো।
১১. রাস্তা পারাপারে সর্বদা জেব্রা ক্রসিং ব্যবহার করুন।
১২. ব্যস্ত সময় অর্থাৎ অফিস ও স্কুল টাইমে রাস্তা পারাপারে তাড়াহুড়া করবেন না।
১৩. যেখানে রাস্তা পারাপারে ফুটওভার ব্রিজ আছে সেখানে ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহার করুন।
১৪. দৌড় দিয়ে রাস্তা পারাপার হওয়া থেকে বিরত থাকুন।
১৫. যানবাহন আসছে কিনা তা দেখে, সোজাসুজি রাস্তা পার হওয়া নিরাপদ।
১৬. সবাইকেই ঘরে ফিরতে হবে, কাজে যেতে হবে তাই প্রতিযোগিতা করে গাড়ি বা মোটরসাইকেল চালানো থেকে বিরত থাকুন।

মনে রাখবেন জীবন একটাই। আপনার এই অমূল্য জীবনের সাথে জড়িয়ে আছে পরিবারের অন্য সকলের ভালো ও নিরাপদে থাকার বিষয়। আপনি কি কখনও ভেবেছেন, আপনার কিছু হলে পরিবারের কি হবে? মনে রাখবেন একটি দুর্ঘটনা সারা জীবনের কান্না। সুতরাং সচেতন হোন নিরাপদ থাকুন আপনি ও আপনার পরিবার।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)