ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ৩ মিনিট ৬ সেকেন্ড

ঢাকা মঙ্গলবার, ৮ কার্তিক, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ২৩ সফর, ১৪৪১

রাজধানী সংবাদ শিক্ষার্থী আদনান হত্যার বিচার ও সড়ক নিরাপত্তাসহ ৫দফা দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

শিক্ষার্থী আদনান হত্যার বিচার ও সড়ক নিরাপত্তাসহ ৫দফা দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

নিরাপদ নিউজ:  আজ ৩০ শে অগাস্ট সকাল ১০ টায় বিমানবন্দর সড়কের শেওড়া বাস স্ট্যান্ড ( প্রস্তাবিত: আদনান চত্বরে ) বাসের চাকায় পিষ্ট করে সেন্ট যোসেফ কলেজের একাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থী আদনান তাসিনকে হত্যার ঘটনায় ঘাতক বাসচালককে আটক ও বিচারের দাবিসহ পাঁচ দফা সন্তান-স্বজনহারা অভিভাবক ফোরাম, নিরাপদ সড়ক আন্দোলন, আদনান তাসিন মঞ্চ ও জোয়ার সাহারা এলাকাবাসির উদ্যোগে “সড়কে শিক্ষার্থী আদনান তাসিন হত্যার বিচার ও সড়কে নিরাপত্তা সহ ৫দফা” দাবিতে মানববন্ধন ও শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে নিরাপদ সড়ক চাই এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনের প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তার পুত্র নিসচা আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মিরাজুল মঈন জয়:নিসচা সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আজাদ হোসেন, বিশিষ্ট রাজনৈতিবিদ আমানুল্লাহ সিকদার, আখন্দ সালমান সাদী- পায়রা নিউজ প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ও প্রকাশক, মোহাম্মদ সালাউদ্দিন ( অলি পাড়া – মিন্টু রোড সমিতি), স্থানিয় সমাজ সেবক তাহের আলি, সোনাইমুড়ি এলাকার বিশিষ্ট ব্যাক্তিত্ব ও মিরপুরের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী টিপু ভুইয়ান, আদনান তাসিন মঞ্চ এর যুগ্ম আহবায়ক আশিকুর রহমান, নিরাপদ সড়ক আন্দোলন (নিসআ) নেতৃবৃন্দ, নিহত আদনান তাসিনের বড় ভাই আদনান সামিন, আদনান তাসিনের পিতা আহসানুল্লাহ টুটুল, বাইং হাউসের মার্চেন্ডাইজার নজরুল ইসলাম সহ এলাকার সমাজসেবক নেতৃবৃন্দ, মানব্বন্ধন পরিচালনা করেন ইনজামুল হক নিরাপদ সড়ক আন্দোলন (নিসআ) ও সার্বিক তত্তাবধানে ছিলেন স্থানিয় সমাজসেবক বাবর এবং ইব্রাহীম।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, সড়কে সকল দুর্ঘটনার তাৎক্ষনিক তদন্ত করে সাজার বেবস্তা করতে হবে, তিনি বিকল্প বেপস্থা না করে ফুট ওভার ব্রিজ সরানোর তিব্র সমালোচনা করেন, তিনি আদনান তাসিনের হত্যাকারীকে অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানান এবং মেধাবী শিক্ষার্থী আদনানের স্মৃতি রক্ষার্থে সদ্য নির্মিত শেওড়া ফুটওভার ব্রিজ “আদনান ফুটওভারব্রিজ’ ঘোষণা করতে হবে।

ঘাতক চালককে আজ ২০১ দিনেও কেন গ্রেফতার করা হয়নি? বিকল্প ব্যবস্থা না করে কেন ওভারব্রিজ সরানো হল? জেব্রা ক্রসিংয়ের দুই পাশে স্পিডব্রেকার, ট্রাফিক পুলিশের ব্যবস্থা সিগন্যাল লাইটসহ নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহন না করেই কেন সাধারন মানুষের চলাচলের জন্য সড়কের মাঝের ডিভাইডার সরিয়ে ফেলা হল? ঘাতক চালককে না ধরেই কেন গাড়িটি তার মালিকের কাছে ফিরিয়ে দেয়া হল?

মানববন্ধনে অংশ নেয়া বিভিন্ন বক্তা বলেন, বিকল্প ব্যবস্থা না করে এখান থেকে ওভারব্রিজ সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এ কারণে একই স্থানে বার বার দুর্ঘটনা ঘটছে। আর আদনান তাসিন কে হত্যা করা হয়েছে, আমরা আদনান হত্যার বিচার চাই।

আদনানের বাবা আহসান উল্লাহ টুটুল বলেন, শিক্ষার্থী আদনান তাসিন কে সড়কে ফাঁদে ফেলে হত্তা করা হয়, আদনান তাসিনকে শিক্ষার্থীর পোশাকে দেখে ঘাতক চালক ক্রোধের বশবর্তী হয়ে ইচ্ছাকৃত ভাবে হত্যা করে, ২০১ দিন অতিবাহিত হয়ে গেলেও পুলিশ ঘাতক বাসচালককে আটক করেনি, এবং বাসটি বাসের মালিকের কাছে হস্তান্তর করা হয়, যদিও এই গাড়িটি বাসের মালিক নিজেই চালায়, কালক্ষেপণের উদ্দেশে কাল্পনিক চালক নাটক সাজিয়ে তাকে খোঁজা হচ্ছে বলে বেড়াচ্ছে, বাস্তবে মালিকি এই গাড়িটির চালক, আমি ঘাতক মালিক চালকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। আর কোনো মেধাবী ছাত্র যেন আমার ছেলের মতো দুর্ঘটনার শিকার না হয় সেই দাবি জানাচ্ছি।

নিহত মেধাবী শিক্ষার্থী আদনান তাসিনের ভাই আদনান সামিন, তার ছোট ভাইয়ের নির্মম হত্যার বিচার দাবি করেন।

মানব্বন্ধন ও সমাবেশে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, আগামী ১৫ দিনের মধ্যে ঘাতকের গ্রেফতার ও সাজা দেয়ার ব্যাবস্থা না করলে, থানার সামনে অবস্থান ও অনশন কর্মসূচি পালন করা হবে।

মানববন্ধনে প্রশাসনের উদ্দেশে নিম্নোক্ত ৫ দফা দাবি তুলে ধরা হয়ঃ

১. সড়কে তাসিন হত্যার সাথে জড়িতদের দ্রুত সময়ের মধ্যে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনতে হবে। শেওড়ায় বিকল্প নিরাপদ বেবস্থা না করে, ফুটওভার ব্রিজ অপসারণসহ সড়কে মৃত্যুফাঁদ সৃষ্টিকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি

২. তাসিনের পরিবারকে ক্ষতিপূরণের ব্যাবস্থা করতে হবে/তাসিন পরিবারের দায়িত্ব প্রশাসনকে নিতে হবে।

৩. শেওড়া বাসস্টান্ডে ফুটওভারব্রিজটি আদনান তাসিনের নাম অনুসারে “আদনান ফুটওভারব্রিজ’ ঘোষণা করতে হবে।

৪. দ্রুত সময়ের মধ্যে রাজধানীসহ সারাদেশে সড়ক পরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে নিরাপদ সড়ক প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

৫. সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ সময়ের মধ্যে বাস্তবায়ন করতে হবে, সড়কে হত্যার সাজা মৃত্যুদণ্ড করতে হবে ও দ্রুত বিচার আইনে বিশেষ ট্রাইব্যুনালে বিচার করতে হবে।

মানববন্ধনে জোয়ার সাহারা এলাকাবাসি, গার্মেন্টস ও বাইং হাউসের মালিক, কর্মকর্তা কর্মচারী, নিউ লাইট সহ এলাকার স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবক অংশ নেন।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)